Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ১১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১০ মার্চ, ২০১৭ ২৩:৫০
দুস্থের টাকা চেয়ারম্যান সচিবের পকেটে
লালমনিরহাট প্রতিনিধি

দুস্থ নারীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ৪০ টাকা করে আদায় করে তা ভাগ-বাটোয়ারা করে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ইউপি চেয়ারম্যান ও সচিবের বিরুদ্ধে।

ঘটনাটি ঘটেছে লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার পলাশী ইউনিয়ন পরিষদে।

দুস্থ মহিলাদের কাছ থেকে ট্যাক্সের কথা বলে ১০০ টাকা করে নেওয়া হলেও তাদের দেওয়া হয়নি কোনো রসিদ। তবে ইউপি চেয়ারম্যান জানান, মেম্বার-চৌকিদারদের নাশতার জন্য এ টাকা নেওয়া হয়েছে। জানা গেছে, বৃহস্পতিবার উপজেলার পলাশী ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে ভিজিডি সুফলভোগী ৩৩২ জন দুস্থ নারীর মধ্যে ৩০ কেজি করে চাল বিতরণ করা হয়। গত জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি এ দুই মাসের বরাদ্দকৃত ৩০ কেজি করে মোট ৬০ কেজি চাল বিতরণ করা হয়। এ সময় প্রত্যেক সদস্যের সঞ্চয় হিসাবে প্রতি মাসে ২০০ করে মোট ৪০০ টাকা করে নেওয়া হয়। কিন্তু সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা শওকত আলী ও ইউপি সচিব আবদুর রাজ্জাক মাল বিতরণের সময় এসব দুস্থ নারীর কাছ থেকে দুমাসের জন্য অতিরিক্ত ৪০ টাকা করে আদায় করেন। এসব দুস্থ মহিলার কাছ থেকে অতিরিক্ত ১৩ হাজার ২৮০ টাকা আদায় করেছে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান ও সচিব। এসব অতিরিক্ত অর্থ ট্যাগ অফিসারসহ সবার উপস্থিতিতে প্রকাশ্যে আদায় করেন তারা। কেউ প্রতিবাদ করলে তার কার্ডটি আটকে রাখা হয় বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ভিজিডি ভুক্তভোগী দুস্থ মহিলা অভিযোগ করেন।

শুধু তাই নয়, এই মহিলাদের কাছ থেকে ইউনিয়ন পরিষদ বার্ষিক ট্যাক্সের কথা বলে ১০০ টাকা করে আদায় করলেও তাদের দেওয়া হয়নি কোনো রশিদ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ইউপি সদস্য অভিযোগ করে বলেন, চেয়ারম্যান ও সচিব অতিরিক্ত ৪০ টাকা করে আদায় করে তারা সটকে পড়েছেন।

উপজেলা সহকারী পল্লী উন্নয়ন অফিসার ও ট্যাগ অফিসার সুখদেব রায়ের সঙ্গে কয়েকদফা যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

পলাশী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শওকত আলী দুস্থ মহিলাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের কথা স্বীকার করে বলেন, মেম্বার-চৌকিদারের নাশতা ও খরচ বাবদ এ টাকা নেওয়া হয়েছে। তিনি আরও বলেন, এত ছোটখাটো বিষয় নিয়ে আপনাদের (সাংবাদিক) মাথা না ঘামানোই ভালো। ট্যাক্স বাবদ ১০০ টাকা করে নেওয়া হলেও তাদের রশিদ দেওয়া হয়নি কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কোনো কথা বলতে রাজি হননি।

up-arrow