Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শনিবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৩১ আগস্ট, ২০১৮ ২৩:৩৩
চেঙ্গি ও মাইনি নদীর ভাঙনের কবলে ৫ শতাধিক বসতবাড়ি
খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি
চেঙ্গি ও মাইনি নদীর ভাঙনের কবলে ৫ শতাধিক বসতবাড়ি
খাগড়াছড়ির চেঙ্গি নদীর ভাঙন —বাংলাদেশ প্রতিদিন
bd-pratidin

নদীর এ কূল ভাঙে ঐ কূল গড়ে এই তো নদীর খেলা। চেঙ্গি, মাইনি নদীর এই খেলার মাঝে বিলীন হয়ে যাচ্ছে খাগড়াছড়ির দুই পাড়ের পাঁচ শতাধিক বাড়িঘর। বাস্তুভিটা হারিয়ে গৃহহীন হয়ে পড়েছে অনেক পরিবার। খাগড়াছড়ির চেঙ্গি, মাইনি নদীর ভাঙন দ্রুত রোধ করতে না পারলে অচিরে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাবে অনেক গ্রাম। বিগত কয়েক বছরের বন্যায় প্রায় দুই শতের অধিক বাড়িঘর বিলীন হয়ে গেছে নদীগর্ভে।  প্রতি বছর বর্ষার মৌসুমে খাগড়াছড়ির চেঙ্গি ও মাইনি নদীর ভাঙনে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায় অনেক এলাকা, অনেক বাড়িঘর। এ সময় আতঙ্কে থাকে নদী পাড়ের মানুষজন। কারণ কখন ভেঙে যায় তাদের বসত ভিটা। অনেক এলাকা ও অনেকের বাড়িঘর ভেঙে গেলেও নদী ভাঙন রোধে এখনো কোনো কার্যকরী পদক্ষেপ নেয়নি সরকার। যারা এখনো নদীর পাড়ে কোনো রকমে টিকে আছে তাদের দাবি অচিরে যেন নদীর পাড় ভাঙন রোধে ব্যবস্থা নেয় সরকার। যদি সরকার দ্রুত কোনো পদক্ষেপ না নেয়, তাহলে বাড়িঘর বিলীন হয়ে যাবে নদীগর্ভে। হারাবে তাদের বসতভিটা অসহায় হয়ে পড়বে হাজার হাজার মানুষজন। এ ছাড়া হুমকির মুখে রয়েছে শ্মশানসহ বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি, শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান। এ রকম চেঙ্গি নদীর ভাঙনের কবলে আছে খাগড়াছড়ি সদরের যুবরাজপাড়া, খবং পুড়িয়া, গঞ্জপাড়া, শব্দ মিয়া, কালাডেবা, বটতলী চাকমা পাড়া, অপর্ণা চৌধুরী পাড়া, গাছবানসহ শতাধিক গ্রামের প্রায় সহস াধিক পরিবারের প্রায় কয়েক হাজারের অধিক লোক এখন ঝুঁকিতে বসবাস করছে। অন্যদিকে দীঘিনালা মাইনি নদীর কবলে আছে নুনছড়ি, উদোল বাগান, তেবাংছড়া, নৌকোছড়া কাতারুং বড়াদাম, নারিকেল বাগানসহ শতাধিক গ্রামের প্রায় সহস াধিক পরিবারের কয়েক হাজারের অধিক লোক। এ ছাড়াও খাগড়াছড়ি জেলার বিভিন্ন উপজেলা ছোটখাটো খালের কবলে পড়ে ভেঙে বিলীন হচ্ছে অনেক এলাকা। খাগড়াছড়ি পানি উন্নয়ন বোর্ডের  উপ-সহকারী প্রকৌশলী নিকেল চাকমা বলেছেন, খাগড়াছড়ি শহর ও অবকাঠামো রক্ষা কল্পে নদী শাসনের আওতায় আনার জন্য চেঙ্গি এবং মাইনি নদীর ২৫টি ঝুঁকি পূর্ণ পয়েন্ট নির্ধারণ করে একটি বিশাল উন্নয়নমূলক প্রকল্প মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। এলাকাবাসীসহ সবার দাবি আওয়ামী লীগ সরকারের দুই মেয়াদের শেষে যেন অনন্ত চেঙ্গি, মাইনি, ফেনীসহ খাগড়াছড়ির সব নদী ও খালে যে সব এলাকা ভেঙে যাচ্ছে তা যেন অচিরেই ভাঙন রোধে ব্যবস্থা নেয় কর্তৃপক্ষ।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow