Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শনিবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৩১ আগস্ট, ২০১৮ ২৩:৩৪
ডাকাতের উপদ্রবে আতঙ্ক
কসবা
ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি
bd-pratidin

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় বেড়ে গেছে ডাকাতের উপদ্রব। জনতা ডাকাত ধরে থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করলেও অন্য মামলায় ঢুকিয়ে কোর্টে চালান দেয় পুলিশ। অপরদিকে ডাকাতিতে আক্রান্ত পরিবারগুলো থানায় মামলা দিলেও পুলিশ ওই সব মামলা রেকর্ড না করে ভুক্তভোগীদের হয়রানি করছে বলে অভিযোগ রয়েছে। জানা যায়, গত ২৮ আগস্ট ৮/১০ জনের একটি ডাকাতদল কসবা উপজেলার কাঠেরপুল-পানিয়ারূপ সড়কের রানিয়ারা সেতুতে গাড়ি থামিয়ে ডাকাতিকালে যাত্রীদের আর্তচিৎকারে জনতা সাজ্জাদ ও নাজমুল নামক ২ ডাকাতকে আটক করে মরধর করে পুলিশে সোপর্দ করে। কিন্তু পুলিশ ডাকাতদের নির্দিষ্ট মামলায় না দিয়ে অন্য মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে এদের কোর্টে চালান দেয়। কসবা থানা অফিসার ইনচার্জ আবদুল মালেক জানান, ওইদিন তিনি ছুটিতে ছিলেন। দায়িত্বে ছিলেন পরিদর্শক মৃণাল দেবনাথ। পরিদর্শক (তদন্ত) মৃণাল দেবনাথ জানান, এসআই কামাল জানেন। এসআই কামালের সঙ্গে যোগাযোগ করলে জানান, এ দুই ডাকাতের বিষয়ে এএসআই আলিম জানেন। তবে এএসআই আলিম জানান, এ দুই ডাকাতের বিরুদ্ধে নিয়মিত কোনো মামলা হয়নি। পূর্বের একটি ডাকাতির প্রস্তুতিমূলক মামলায় ঢুকিয়ে তাদের চালান দেওয়া হয়েছে। গত ১১ আগস্ট উপজেলার ধর্মপুর গ্রামে অনন্তপুর-ধর্মপুর জেলা পরিষদ সড়কে পঞ্চগ্রাম ঈদগাহ মাঠের সামনে রাত সাড়ে দশটায় সড়কের দুই পাশ থেকে রশি টানা দিয়ে মোটরসাইকেল গতিরোধ করে। মোটরসাইকেল, দুটো মোবাইল, নগদ ১৮ হাজার টাকাসহ মোট ১ লাখ ৭০ হাজার টাকার মালামাল ছিনিয়ে নেয়। ঘটনায় পরদিন মোটরসাইকেল মালিক কবির আহাম্মদ থানায় ওসিকে অভিযোগ দেন। কিন্তু ওসি এই বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নেননি। চার দিন পর বাদী মামলার অনুলিপি চাইলে তিনি অভিযোগ পাননি বলে অস্বীকার করেন। তবে অফিসার ইনচার্জ আবদুল মালেক জানান, অভিযোগটি কোথায় রেখেছি। কাকে দিয়েছি সঠিক বলতে পারছি না। গত ১৫ জুলাই রাত ১১টায় তিনলাখপীর-চারগাছ সড়কে শ্যামবাড়ি সেতুর পাশে ইজিবাইক থামিয়ে ড্রাইভারকে মারধর করে মহিলা যাত্রীদের কাছ থেকে নগদ টাকা ও গয়না ছিনিয়ে নেয়। এর এক সপ্তাহ পর একই স্থানে ডাকাতিকালে যাত্রীদের আর্তচিৎকারে জনতার হাতে ধরা পড়ে গণপিটুনিতে ডাকাত সেলিম (৩৫) নিহত হয়। মূলগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান মইনুল হোসেন জানান, নিহত সেলিম ডাকাত শ্যামবাড়ি গ্রামের পুলিশ কর্মকর্তা মৃত আবুল হোসেনের ছেলে। গত ৩ জুন রাতে চাপিয়া-চণ্ডিদ্বার সড়কে ডাকাতরা পথচারীদের গতিরোধ করে প্রায় লক্ষাধিক টাকা ছিনিয়ে নেয়। গত ১ জুন রাতে হাজীপুর নামক স্থানে কসবা-সৈয়দাবাদ সড়কে ডাকাতরা অটোরিকশা গতিরোধ করে যাত্রীদের মারধর করে তাদের সর্বস্ব লুটে নেয়।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow