Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বুধবার, ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৩৯
ভুল চিকিৎসায় দুই গৃহবধূর মৃত্যু
নেত্রকোনা ও চাঁদপুর প্রতিনিধি

নেত্রকোনা ও চাঁদপুরে ভুল চিকিৎসায় দুই গৃহবধূর মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। তারা হলেন— ময়মনসিংহের ধোবাউড়া উপজেলার গাছুয়াপাড়া গ্রামের হানিফের স্ত্রী মুমিনা খাতুন (১৮) ও কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার সাব্বির হোসেনের স্ত্রী হালিমা (৩৫)। দুটি ঘটনায় মামলা হয়েছে। পুলিশ জানায়, ময়মনসিংহের ধোবাউড়ার মুমিনা খাতুন ১৩ দিন আগে ছেলে সন্তান প্রসব করেন। এরপর তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। গত শনিবার তাকে দুর্গাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। দুই দিন চিকিৎসার পর অবস্থার অবনতি হলে রোগীকে ময়মনসিংহে পাঠানো হয়। স্বজনরা দালালের পরামর্শে মুমিনাকে ময়মনসিংহ না নিয়ে দুর্গাপুর হাসপাতাল মোড়ে তাহমিনা প্যাথলজির ডাক্তার নজরুল ইসলামকে দেখান। নজরুল ইসলাম রোগী সম্পূর্ণ সুস্থ হওয়ার আশ্বাস দিয়ে শরীরে একটি ইনজেকশন পুশ করেন। ইনজেকশন দেওয়ার পর রোগীর সাড়া শব্দ না পেয়ে স্বজনরা কান্না শুরু করেন। আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে ডাক্তার পালিয়ে যায়। চাঁদপুরের ঘটনায় করা মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ৭ আগস্ট হালিমা বেগমের প্রসব ব্যথা উঠলে কচুয়ার ফয়জুন্নেছা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তখন চিকিৎসক সিজারের মাধ্যমে কন্যা সন্তানের জন্ম দেন। জন্মের পর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসক নবজাতককে কুমিল্লার একটি প্রাইভেট হাসপাতালে পাঠান। সেখানে শিশুটির মৃত্যু হয়। এদিকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ হালিমাকে চিকিৎসা দিয়ে স্বামীর বাড়ি পাঠিয়ে দেয়। বাড়ি যাওয়ার পর থেকে তার পেটে ব্যথা বাড়তে থাকে। স্বজনরা তাকে পুনরায় ওই হাসপাতালে নিলে ডাক্তার পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে জরায়ুতে টিউমার আছে বলে ওষুধ লিখেন। ওষুধ সেবনের পরও ব্যথা না কমায় গত ২৯ আগস্ট কুমিল্লা শহরে মনোহরপুর আদর্শ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে পরীক্ষা করে জানানো হয় তার পেটে গজ রয়েছে, জরুরি ভিত্তিতে অপারেশন করা প্রয়োজন। ডাক্তারের পরামর্শে দ্বিতীয় বার তার অপারেশন করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত শনিবার রাতে হালিমা মারা যান।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow