Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শুক্রবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৪২
স্কুলছাত্রী গণধর্ষণের শিকার
সমঝোতা করলেন ওসি!
নরসিংদী প্রতিনিধি

স্কুলছাত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনা পাঁচ লাখ টাকায় সমঝোতা করার অভিযোগ উঠেছে নরসিংদী সদর মডেল থানার ওসির বিরুদ্ধে। পুলিশের এমন সিদ্ধান্তে এলাকায় বইছে সমালোচনার ঝড়। ওসি সৈয়দুজ্জামান জানান, বিষয়টি পুলিশ সমঝোতা করেছে এ কথা সত্য নয়। সদর উপজেলার নজরপুর ইউনিয়নে গত রবিবার গণধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ছাত্রীর পরিবার ও এলাকাবাসী জানায়, বাবাহারা মেয়েটি মামার বাড়িতে থেকে স্থানীয় স্কুলে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ছে। গত রবিবার সন্ধ্যায় সে পাশের বাজারে প্রসাধনী কিনতে যায়। সেখান থেকে ফেরার পথে সাদ্দাম (২৫), সজিব (২২) ও ফরহাদ (২৩) নামে তিনজন ছাত্রীকে তুলে মেঘনা নদীর পড়ে নিয়ে যায়। সেখানে নৌকায় তুলে পালাক্রমে ধর্ষণে করে বিবস্ত্র অবস্থায় ছেড়ে দেয়। খবর পেয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য মোস্তফা ও স্বজনরা মেয়েটিকে উদ্ধার করে। পরে ইউপি সদস্য শালিস ডেকে অভিযুক্ত তিনজনকে দেড় লাখ টাকা করে জরিমানা করে। একই সঙ্গে মামলা না করার জন্য ছাত্রীর পরিবারকে নির্দেশ দেয়। সময়মতো জরিমানার টাকা না দেওয়ায় বুধবার সদর থানা পুলিশের কাছে যায় ভুক্তভোগী পরিবার। পুলিশ অভিযোগ মামলা হিসেবে নথিভুক্ত না করে উল্টো পাঁচ লাখ টাকায় ঘটনাটি সমঝোতা করে দেন।

একটি সূত্র জানায়, সদর মডেল থানার ওসি সৈয়দুজ্জামান, ওসি (তদন্ত) সালাউদ্দিন ৫ লাখ টাকায় গণধর্ষণের ঘটনা সমঝোতা করেন। এর মধ্যে ছাত্রীর পরিবারকে দেওয়া হয় আড়াই লাখ টাকা। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল) শাহারিয়ার আলমকে এক লাখ এবং বাকি টাকা থানা পুলিশ ভাগভাগি করে নেয়। এ ঘটনা জানাজানি হলে পরিস্থিতি বেগতিক দেখে গতকাল ছাত্রীর নানীর করা অভিযোগ মামলাটি হিসেবে নথিভুক্ত করে পুলিশ। ইউপি সদস্য মোস্তফা জানান, আমরা অভিযুক্ত তিনজনকে দেড় লাখ টাকা করে জরিমানা করেছিলাম। কিন্তু তারা টাকা না দেওয়ায় মেয়ের পরিবার থানায় যায়। সেখানে ওসি বিষয়টি সমাধান করে দেওয়ায় মামলা হয়নি। সদর মডেল থানার ওসি সৈয়দুজ্জামান বলেন, ঘটনাটি স্থানীয়ভাবে সমঝোতার চেষ্টা করা হয়েছে। পুলিশ সমঝোতা করেছে এটা সত্য নয়। অভিযোগ নিতে কিছুটা বিলম্ব হয়েছে। বিষয়টি ওসি (তদন্ত) দেখছেন। পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন জানান, ধর্ষণের ঘটনা কেউ ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করলে, সে যদি পুলিশও হয়, তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow