Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বুধবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৫১
জরাজীর্ণ অর্ধশতাধিক ভবনে বসবাস
লালমনিরহাট রেলওয়ে কলোনি
লালমনিরহাট প্রতিনিধি

পশ্চিমাঞ্চলীয় রেলওয়ের বিভাগীয় সদর দফতর লালমনিরহাট রেল কলোনির অর্ধশতাধিক জরাজীর্ণ ভবনে ঝুঁকি নিয়ে চলছে বসবাস। ব্রিটিশ আমলে নির্মিত এ সব ভবন দীর্ঘদিন সংস্কারের কোনো উদ্যোগ নেয়নি রেল কর্তৃপক্ষ। ভবনগুলোর অবস্থা এতোটাই খারাপ-যেকোনো মুহূর্তে ধসে পড়ে যানমালের ক্ষতির আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী। এছাড়া বেশকাট ভবন পরিণত হয়েছে নেশাগ্রস্তদের আড্ডাখানায়। অবসরপ্রাপ্ত রেল কর্মচারী মোশারফ হোসেন জানান, ১৯৬৫ সালে রেলওয়েতে চাকরি নিয়েছিলাম। তখন থেকে ভবনগুলো দেখি আসছি। দীর্ঘ সময় এগুলো সংস্কার না করায় বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। লালমনিরহাট রেলওয়ের বিভাগীয় ম্যানেজার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘২৫ বছর আগে রেলওয়ের পক্ষ থেকে মাইকিং করে ভবনগুলো ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করা হয়েছে। বেরিয়ে যেতে বলা হয়েছে বসাবাসকারীদের। এরপরও সেখানে বাস করলে আমাদের কি করার আছে।’ বিভাগীয় রেলওয়ে প্রকৌশলী  আরিফুর রহমান জানান, ভবনগুলো সংস্কারের জন্য বরাদ্দ চেয়ে বিভিন্ন সময় আবেদন করা হলেও বরাদ্দ মেলেনি।  রেলওয়ে সূত্র জানায়, ব্রিটিশ শাসনামলে রেল কর্মকর্তা-কর্মচারীর আবাসন ব্যবস্থার জন্য ৫১টি কোয়ার্টার নির্মাণ করা হয়েছিল লালমনিরহাট শহরে। সেই ভবনগুলো দীর্ঘদিনেও সংস্কারের উদ্যোগ না নেওয়ায় এখন জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। ৫১টি কোয়ার্টারের মধ্যে ১৩টিতে বাস করছেন লালমনিরহাট রেল বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। বাকি ৩৮টিতে থাকছেন তাদের আত্মীয়-স্বজন ও বহিরাগতরা। অধিকাংশ ভবনই বাসের অনুপযোগী জেনেও সেখানে ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছেন তারা। কোয়ার্টারে বসবাসকারী অনেকে জানান, তাদের নিজস্ব জায়গা জমি নেই, নেই কোনো ঠিকানা। তাই ঝুঁকি সত্ত্বেও এখানে বসবাস করছেন।সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, ভবনগুলোর বিভিন্ন অংশে বড় বড় ফাটল ধরেছে। খসে পড়েছে অবকাঠামো। বের হয়ে গেছে লোহার রড। দেয়াল, সিঁড়ি, ছাদ সবখানেই ধসের চিহ্ন। কোনো কোনো ভবনের ইট খুলে গেছে। জরাজীর্ণ এ সব ভবন জরুরি ভিক্তিতে মেরামতের ব্যবস্থা নেওয়ার জোর দাবি জানিয়েছে সচেতন এলাকাবাসী।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow