Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ২ জুন, ২০১৬ ১৮:০০ আপডেট : ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
সুন্দরবনে চার হাজার মুনিয়া অবমুক্ত
শেখ আহ্সানুল করিম, বাগেরহাট
সুন্দরবনে চার হাজার মুনিয়া অবমুক্ত

সুন্দরবন থেকে চোরা শিকারীদের জালে আটক হয়ে পাচারের অপেক্ষায় থাকা বিরল প্রজাতির চার হাজার মুনিয়া পাখি উদ্ধার করেছে বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ। বৃহস্পতিবার দুপুরে বাগেরহাটের কচুয়া উপজেলার বাধাল বাজারের আব্দুল জলিলের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে এই পাখি উদ্ধার করা হয়। তবে এসময়ে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ বিভাগ কোন চোরা শিকারীকে আটক করতে পারেনি। উদ্ধার হওয়া পাখিগুলো আজ বিকাল ৫টায় বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনের করমজল বন্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্র এলাকায় অবমুক্ত করা হয়েছে।

খুলনা সার্কেলের বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের পরিদর্শক রাজু আহমেদ জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বাগেরহাটের কচুয়া উপজেলার বাধাল বাজার এলাকার আব্দুল জলিলের বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। এসময় বাড়ির লোকজনসহ চোরা শিকারীরা আমাদের উপস্থিতি টের টেয়ে দ্রুত দৌড়ে পালিয়ে গেলে ঘরের একটি ঘরে মশারি ও কয়েকটি খাঁচার ভেতরে পাচারের অপেক্ষায় থাকা সুন্দরবনের বিরল প্রজাতির হাজার হাজার পাখি দেখতে পাই। পরে বিরল প্রজাতির মুনিয়া পাখিগুলো বিকাল ৫টায় সুন্দরবনের করমজল বন্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্রে এলাকায় অবমুক্ত করার সময় গণনা করে দেখা যায় আটক করা পাখির সংখ্যা চার হাজার। এছাড়া এই অভিযানে আটক ২টি টিয়া ও ৪টি ঘুঘু পাখিও অবমুক্ত করা হয়েছে।

সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মো. সাইদুল ইসলাম বলেন, অন্যান্য প্রাণীর পাশাপাশি বিরল প্রজাতির মুনিয়াসহ ৩১৫ প্রজতির পাখির বসবাস সুন্দরবনে। চোরা শিকারীরা দীর্ঘদিন এসব পাখি সুন্দরবন থেকে জার পেতে ধরে এনে দেশের বাজারে বিক্রি করে আসছে। সুন্দরবনের গহীণে চোরা শিকারীরা এসব পাখি শিকার করায় দিন দিন তা কমে যাচ্ছে। এই পাকি শিকারী চক্রকে শনাক্ত করে আইনে আওতায় আনতে আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। 


বিডি-প্রতিদিন/ ০২ জুন, ২০১৬/ আফরোজ




আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow