Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ১৪ জুন, ২০১৬ ১৭:৩৪
লক্ষ্মীপুর বিসিক শিল্প নগরী যেন এক পরিত্যক্ত এলাকা
১৯ বছরেও গড়ে ওঠেনি কল কারখানা
লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি:
লক্ষ্মীপুর বিসিক শিল্প নগরী যেন এক পরিত্যক্ত এলাকা

লক্ষ্মীপুরে বিসিক শিল্প নগরী স্থাপনের ১৯ বছর পরও গড়ে ওঠেনি পর্যাপ্ত পরিমান কল-কারখানা। যে কয়েকটি শিল্প কারখানা গড়ে উঠেছে সেগুলোও এখন বন্ধ হওয়ার পথে রয়েছে বলে জানান কারখানা মালিকরা।

বর্তমানে গ্যাস ও বিদ্যুৎ সংকট, যোগাযোগ ও ড্রেনেজ অব্যবস্থাপনায় বেহাল দশা বিরাজ করছে সম্ভাবনাময় লক্ষ্মীপুর বিসিক শিল্প নগরীতে। একই সাথে বিসিক কর্মকর্তাদের তদারকির অভাব ও প্রকৃত শিল্প উদ্যেক্তাদের প্লট বরাদ্ধ না দিয়ে অর্থের বিনিময়ে ব্যাক্তি বিশেষের নামে-বেনামে ৫/৭টি করে প্লট বরাদ্ধ দেয়ার অভিযোগ রয়েছে বিসিক কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে। বিসিক শিল্প নগরীর উপ-ব্যবস্থাপক এসব সমস্যার কথা অকপটে স্বীকার করে বলেন, প্রথমে কিছু অনিয়ম অব্যবস্থপনা হয়েছে। এখন এগুলো সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে।

সূত্রে জানা যায়, লক্ষ্মীপুরে বেকার সমস্যার সমাধান ও শিল্পায়নের মাধ্যমে অর্থনৈতিক মুক্তির লক্ষ্যে শহরের অদূরে বাঞ্চানগর এলাকায় ১৬ একর ভূমির উপর ১৯৯৭ সালে বিসিক শিল্প নগরী প্রতিষ্ঠার কাজ শুরু হয়। প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা ব্যয়ে ২০০৪ সালে শিল্প নগরীর কাজ সম্পন্ন করা হয়। তৈরি করা হয় তিন ক্যাটাগরির ১০০টি প্লট। বর্তমানে ২০১৬ সালে এসে এসব প্লটের ৫৮টি শিল্প প্রকল্পের অনুকূলে বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ২৭টি প্রকল্প কোনরকমে চালু রয়েছে, আর ২৭টিতে নির্মান কাজ চলছে, বাকি ৪টি প্রকল্প উৎপাদনজনিত সমস্যার কারনে বন্ধ রয়েছে। বেকারি, ওয়েল মিল, সয়াবিন প্রক্রিয়াজাতকরণ, অটো রাইচমিল ও মবিল রি-প্যাকিং ফ্যাক্টরিসহ বর্তমানে বিসিক শিল্প নগরীতে হাতে গোনা কয়েকটি শিল্প প্রতিষ্ঠান রয়েছে। তবে গ্যাস, বিদ্যুৎ সংকট ও পানির সমস্যার কারনে সেগুলোও বন্ধের উপক্রম।

সরেজমিন দেখা গেছে, মূল ফটক থেকে শুরু করে বিসিক এলাকার সকল রাস্তায় বড় বড় খানা খন্দে ভরে গেছে। হঠাৎ দেখলে পরিত্যক্ত এলাকা বলে মনে হয়। এতে করে পন্য আনা-নেওয়াসহ যোগাযোগ ব্যবস্থায় বিঘ্ন ঘটছে বলে জানান গাড়ি চালকরা। বিসিক এলাকার সকল ড্রেন সরু হওয়ায় ময়লা নিষ্কাশন না হয়ে জমাট বেঁধে আছে। ছড়াচ্ছে দুর্গন্ধসহ রোগজীবানু।

বিসিক শিল্প নগরীর উপ-ব্যবস্থাপক মো. তাজুল ইসলাম এসব সমস্যার কথা স্বীকার করে বলেন, ''প্লট বরাদ্ধ প্রাপ্তদের উৎপাদনের বিষয়ে তাগিদ দেওয়া হচ্ছে, কিন্তু তারা (শিল্প উদ্যেক্তারা) গ্যাস সংকটের কারণে বিলম্ব করছেন। প্রথম পর্যাযে যারা বরাদ্ধের জন্য এসেছে তাদের বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে, কিন্তু তারা সঠিক শিল্প উদ্যোক্তা নয়।''

বিডি-প্রতিদিন/এস আহমেদ




আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow