Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ১৭ জুন, ২০১৬ ১৮:১৯
টেকনাফে ২ লাখ ৬০ হাজার পিস ইয়াবাসহ আটক ১
আব্দুস সালাম, টেকনাফ (কক্সবাজার):
টেকনাফে ২ লাখ ৬০ হাজার পিস ইয়াবাসহ আটক ১

টেকনাফে পৃথক অভিযানে ২ লাখ ৬০ হাজার পিস ইয়াবাসহ এক চালককে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।  

বিজিবি সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার ভোরে ২ বর্ডার গার্ড ব্যাটলিয়ান অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মোঃ আবু জার আল জাহিদের নেতৃত্বে বিজিবির একটি স্পেশাল টহল দল সাবরাং ইউনিয়নের মুন্ডার ডেইল সাগর উপকূল দিয়ে ইয়াবার একটি বড় চালান পাচারের গোপন সংবাদ পায়। পরে অভিযান চালালে ইয়াবা পাচারকারীরা বিজিবির উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায়।  

এসময় সেখানে তল্লাশি চালিয়ে পরিত্যাক্ত একটি ইয়াবা ভর্তি প্যাকেট উদ্ধার করা হয়। পরে উদ্ধারকৃত ইয়াবার প্যাকেট ব্যাটলিয়ান সদরে নিয়ে এসে গণনা করে ২ লাখ ৫০ হাজার পিস ইয়াবা পাওয়া যায়। তবে  এসময় ইয়াবা উদ্ধারের সাথে কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি বলে বিজিবি জানিয়েছে।  

উদ্ধারকৃত ইয়াবার আনুমানিক মূল্য ৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা বলে জানা গেছে। ইয়াবাসমূহ বিজিবি ব্যাটলিয়ান সদরে জমা রাখা হবে এবং পরবর্তীতে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে সংশ্লিষ্টদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে বলে জানিয়েছে বিজিবি।

এছাড়া শুক্রবার দুপুরে টেকনাফ সদরের নাজির পাড়া বিওপির নায়েক সুবেদার রাকিবুল ইসলালের নেতৃত্বে বিজিবির টহল দল সদর ইউনিয়নের গোদারবিল এলাকায় একটি যাত্রীবাহী অটোরিক্সায় (সিএনজি) তল্লাশী চালিয়ে ১০ হাজার পিস ইয়াবাসহ চালককে আটক করা হয়।  

তবে অটোরিক্সায় থাকা দুই যাত্রী পালিয়ে যায়। এসময় অটোরিক্সাটি (সিএনজি) জব্দ করা হয়। উদ্ধারকৃত ইয়াবাসহ সিএনজির আনুমানিক মূল ৩৫ লাখ ১ হাজার টাকা বলে জানিয়েছে বিজিবি।  

এদিকে প্রশাসনের হাত থেকে রক্ষা পেতে ইয়াবা পাচারকারীরা বড় বড় ইয়াবার চালান গুলো বঙ্গোপসাগর দিয়ে পাচার করছে। ইদানিং মিয়ানমার থেকে ইয়াবার চালান সমূহ সাগর দিয়ে সরাসরি দেশের বিভিন্ন স্থানে ঢুকে পড়ছে। তবে নাফ নদীতে প্রশাসন কড়াকড়ি আরোপ করায় কতিপয় ইয়াবা পাচারকারী টেকনাফ বঙ্গোপসাগর উপকূলকে ইয়াবা খালাসের নিরাপদ রুট হিসাবে বেছে নিয়েছে।  

শুক্রবার ভোরে আড়াই লাখ পিস ইয়াবার বড় চালান খালাস করতে গিয়ে বিজিবির জালে আটকা পড়ে। ইয়াবার বড় চালান আটকা পড়লেও কারা এর সাথে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থার দাবী জানিয়েছে স্থানীয় সচেতন মহল। তাছাড়া চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ী ও তাদের সহযোগিদের চিহ্নিত করে আইনী ব্যবস্থা না নিলে ইয়াবা পাচার রোধ করা সম্ভব হবে না বলেও জানায় এলাকার সচেতন মহল ।  


বিডি প্রতিদিন/১৭ জুন ২০১৬/হিমেল-১৩

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow