Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ১৯ জুন, ২০১৬ ১৭:৫৯
রিমান্ডে সেবক হত্যার তথ্য মেলেনি, আটক দু'জন কারাগারে
পাবনা প্রতিনিধি:
রিমান্ডে সেবক হত্যার তথ্য মেলেনি, আটক দু'জন কারাগারে
প্রতীকী ছবি

পাবনায় ঠাকুর অনুকূলচন্দ্র সেবাশ্রমের সেবায়েত নিত্য রঞ্জন পান্ডেকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় আটককৃত দু'জন থেকে ঘটনা সম্পর্কে চমকপদ তেমন কোন তথ্যই পাওয়া যায়নি। পাঁচ দিন করে রিমান্ড শেষে তাদেরকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মুন্সি আব্দুল কুদ্দুস বলেন, সেবায়েত হত্যাকান্ডের ঘটনায় সন্দেহভাজন আটককৃত দু'জনকে রিমান্ডে নিয়েও বিষয়টি পরিষ্কার হওয়া যায়নি। তবে তাদের আরও জিজ্ঞাসাবাদের জন্যে পুনরায় ৭ দিন করে রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে আদালতের নিকট।

তিনি জানান, গত রবিবার (১২ জুন) রাতে আবুল হাশেমকে পাবনার হেমায়েতপুরের তপোবন এলাকা থেকে আটক করা হয়। পরদিন সোমবার দুপুরে পাবনা আমলি আদালত-১ এ হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে বিচারক নাজিমুদ্দৌলা পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। গত শনিবার হাশেমের পাঁচ দিনের রিমান্ড শেষ হলে তাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়। আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।  

এর আগে শনিবার (১১ জুন) রাত ১১টার দিকে পাবনার চর ঘোষপুর থেকে পাবনা শহর ছাত্র শিবিরের সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক আরিফুল ইসলামকে আটক করা হয়। তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসার পথে পুলিশের গাড়ি রাস্তার পাশের একটি খালে পড়ে গেলে আরিফ ও কয়েকজন পুলিশ আহত হয়। আরিফসহ আহত পুলিশ সদস্যদের পাবনা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসা শেষ হবার পর শিবির নেতা আরিফুলকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সাথে সম্পৃক্ততার সম্ভাবনা থাকায় তাকে রিমান্ডে নিয়ে অধিক জিজ্ঞাসাবাদ করলে আরও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যেতে পারে বলে ধারনা ছিল পুলিশের। ১৪ জুন মঙ্গলবার একই আদালতে হাজির করে প্রথমে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে পাবনা আমলি আদালত-১ এর বিচারক ও চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নাজিমুদ্দৌলা পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। শিবির নেতা আরিফুলের রিমান্ড শেষে শনিবারই (১৮ জুন) দুপুরে পাবনা আমলি আদালত-১ এ সোপর্দ করা হলে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।  

গত শুক্রবার (১০ জুন) ভোরে পাবনার হেমায়েতপুরে ঠাকুর অনুকূলচন্দ্র সেবাশ্রমের সেবায়েত নিত্য রঞ্জন পান্ডেকে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। পরে ঠাকুর অনূকূল চন্দ্র সেবাশ্রমের সাধারণ সম্পাদক যুগল কিশোর ঘোষ বাদি হয়ে অজ্ঞাতদের আসামি করে পাবনা সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
   
নিত্যরঞ্জন প্রায় ৪০ বছর ধরে পাবনার ঠাকুর অনুকূল চন্দ্রের আশ্রমের সেবক ছিলেন।

বিডি-প্রতিদিন/এস আহমেদ

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow