Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ২১ জুন, ২০১৬ ১৬:০৫
প্রবাসীর স্ত্রীর কাণ্ড
চৌদ্দগ্রাম প্রতিনিধি:
প্রবাসীর স্ত্রীর কাণ্ড

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে প্রবাসী স্বামীকে বাসায় রেখে ১০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ পাঁচ লাখ টাকাসহ প্রয়োজনীয় মালামাল নিয়ে পালিয়ে গেছেন স্ত্রী। সাথে নিয়ে যান তিন বছর বয়সী ছেলে শিশু সন্তানকে।

দীর্ঘদিনেও ফিরে না আসায় স্বামী বাদি হয়ে স্ত্রীর বিরুদ্ধে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।  

প্রাপ্ত অভিযোগে জানা গেছে, উপজেলার কনকাপৈত ইউনিয়নের বুদ্দিন গ্রামের মৃত বাদশা মিয়ার পুত্র সৌদি প্রবাসী মো. সুমন (৩২) আট বছর আগে ইসলামী শরিয়াহ মোতাবেক পার্শ্ববর্তী চিওড়া ইউনিয়নের সাঙ্গিশ্বর গ্রামের ইয়াছিন মিয়ার মেয়ে জেসমিন আক্তারকে (২৬) বিয়ে করে। তাদের পরিবারে দুটি পুত্র সন্তান রয়েছে। জীবিকার তাগিয়ে সুমন সৌদি আরব পাড়ি জমায়। ছেলেদের পড়ালেখার কথা চিন্তা করে চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার বৈদ্দেরখীল গ্রামে স্ত্রীকে একটি বাসা ভাড়া করে দেয়। এরই মধ্যে জেসমিন প্রবাসী স্বামীর সাথে অযাচিত আচরণ করতে থাকে। গত ৩ মে সুমন তিন মাসের ছুটিতে দেশে আসে। ৮ মে সুমন গ্রামের বাড়ি বুদ্দিন গ্রামে যায়। এ সুযোগে ওইদিন সকালে জেসমিন ওই বাসা হতে ১০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ পাঁচ লাখ টাকাসহ ব্যবহৃত জিনিসপত্র এবং ছোট ছেলে সিয়ামকে নিয়ে পালিয়ে যায়। দুপুরে সুমন বাসায় ফিরে দেখে জিনিসপত্র এলোমেলো পড়ে আছে। সুমন জেসমিনের ব্যবহৃত মুঠোফোনের ০১৬৩১২২৫৬৬৪ নাম্বারে কল করলে জেসমিন অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে বলে ‘আর সংসার করব না’। এছাড়াও এঘটনায় কোন সালিশ-বৈঠক করলে সুমনকে প্রাণে হত্যা করা এবং মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করবে বলেও হুমকি দেয়া হয়। এঘটনায় সুমন বাদি হয়ে স্ত্রী জেসমিনের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ (নং-৬৯১/১৬) দায়ের করেছেন।  

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে জেসমিন সোমবার রাতে সুমনকে ০১৬২৯৬৯৮৮৫৯ নাম্বার থেকে ফোন করে বলে, ‘আঁই বিয়া করি সুখে আছি, তুই আর অপেক্ষা করিস না। তাড়াতাড়ি বিয়া কইরালা। আঁর আশা ছাইড়া দে’।  

এ ব্যাপারে মঙ্গলবার দুপরে সমুনের শাশুড়ি ফাতেমা বেগম জানান, ‘মেয়ে কোথায় গেছে বলতে পারছি না। আমরা বিভিন্নস্থানে খোঁজ নিচ্ছি’।  


বিডি -প্রতিদিন/ ২১ জুন, ২০১৬/ আফরোজ

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow