Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২৪ জুন, ২০১৬ ১৫:১৮
আপডেট : ২৪ জুন, ২০১৬ ১৫:২৫
কুষ্টিয়ায় আওয়ামী লীগ-জাসদ সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধসহ আহত ৬
কুষ্টিয়া প্রতিনিধি:
কুষ্টিয়ায় আওয়ামী লীগ-জাসদ সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধসহ আহত ৬

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধের জেরে স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও জাসদের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে একজন গুলিবিদ্ধসহ ৬ জন আহত হয়েছেন। আজ সকাল আটটার দিকে উপজেলার চাঁদগ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ৪০ রাউন্ড ফাকা গুলি ছোঁড়ে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, পূর্ব বিরোধের জের ধরে জাসদ সমর্থিত মিনাজুর রহমান ও আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাবেক ইউপি সদস্য এনামুল হকের সমর্থকদের মধ্যে সকালে বাকবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের লোকজন লাঠিসোঁটা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় উভয় পক্ষই কয়েক রাউন্ড গুলি বর্ষণ করে। এতে একজন গুলিবিদ্ধসহ উভয় পক্ষের অন্তত ৬ জন আহত হন। আহতদের মধ্যে জাসদ সমর্থিত দুইজন ও আওয়ামী লীগ সমর্থিত দুই জনকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এরা হলেন, জাসদ সমর্থিত সাইফুল প্রামানিক (২৮) ও আফিল মালিথা (৩০) এবং আওয়ামী লীগ সমর্থিত হাফিজুর রহমান (৩২) ও সোহাগ হোসেন (২৩)। এর মধ্যে সোহাগ বাম পায়ের উরুতে গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

বাকিরা গ্রেফতার এড়াতে পৃথক স্থানে চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে জানা গেছে। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক সাদিয়া জাহান বলেন, সোহাগের বাম পায়ের উরুতে গুলি লেগেছে। মনে হচ্ছে সেটা ভেতরে আছে।

হাসপাতারে চিকিৎসাধীন সোহাগ হোসেন বলেন, ঘটনার সময় তিনি রাস্তার ওপর দাঁড়িয়ে ছিলেন। এসময় হঠাৎ করে প্রায় ৪০ ফুট দূর থেকে জাসদের কয়েকজন লোক তাকে লক্ষ করে পিস্তলের গুলি ছোড়ে।  

ভেড়ামারা উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপাপ্ত সভাপতি আকতারুজ্জামান মিঠু বলেন, ‘ওই গ্রামে বেশ কয়েকদিন ধরে কয়েকবার আওয়ামী লীগ ও জাসদের মধ্যে সংর্ঘষ হয়েছে। এতে আওয়ামী লীগের কয়েকজন কর্মী আহত হয়েছে। বিষয়টি পুলিশ দেখছে। তারা যা ভালো মনে করেন সেটাই হবে। ’

তবে উপজেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক আনসার আলী এ ঘটনাকে দলীয় সংঘর্ষ বলতে নারাজ। তার দাবি, ‘ওই গ্রামে ৬৭ বছর ধরে বংশগত দ্বন্দ্বে মারামারি হয়ে আসছে। এরমধ্যে উভয় পক্ষেই আওয়ামী লীগ, জাসদ ও বিএনপির লোকজন আছে। এখানে আওয়ামী লীগ ও জাসদের মধ্যে কোন মারামারি হয়নি।  

ভেড়ামারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নূর হোসেন খন্দকার বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ৪০ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে। আপাতত পরিস্থিতি শান্ত। চাঁদগ্রামের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ব্যাপক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে একজনকে আটক করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ৬ নভেম্বর চাঁদগ্রামে আওয়ামী লীগ সমর্থকদের হামলায় বাবুল ড্রাইভার নামে এক জাসদ কর্মী নিহত হওয়ার পর থেকে সেখানে দু'পক্ষের লোকজন মাঝে-মধ্যেই সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ছে। সর্বশেষ গত সোমবার দুইপক্ষের সংঘর্ষে ৮ জন আহত হন।

 


বিডি প্রতিদিন/২৪ জুন ২০১৬/হিমেল-০৫

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow