Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারি, ২০১৭

প্রকাশ : ২৭ জুন, ২০১৬ ১৯:৪৫
আপডেট :
কুয়াকাটা হাসপাতালে বন্ধ চিকিৎসা সেবা, বিপাকে রোগীরা
কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি:
কুয়াকাটা হাসপাতালে বন্ধ চিকিৎসা সেবা, বিপাকে রোগীরা

পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটায় ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালটিতে গত এক সপ্তাহ ধরে চিকিৎসা সেবা বন্ধ রয়েছে। হাসপাতালের একমাত্র চিকিৎসক কামরুজ্জামান আগুনে ঝলসে যাওয়া মুমূর্ষ এক রোগীর স্বজনের হাতে লাঞ্চিত হবার পর থেকে জরুরী বিভাগসহ ইনডোর ও আউটডোরের চিকিৎসা সেবা বন্ধ রয়েছে। মুমূর্ষ সেই রোগী মৃত্যুবরণ করার পরও চালু হয়নি হাসপাতালটির চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম। এতে প্রতিদিনই পর্যটকসহ স্থানীয়রা ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। কবে নাগাদ এ হাসপাতালটিতে ফের চিকিৎসা সেবা চালু হবে উপজেলা স্বাস্থ্য প্রশাসনও বিষয়টি বলতে পারছেনা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ২০ জুন বিকেলে কেরোসিনের চুলার আগুনে ঝলসে যাওয়া বশার ফকির (১৬) নামে এক কিশোরকে হাসপাতালের জরুরী বিভাগে নিয়ে আসেন তার স্বজনরা। এ সময় জরুরী চিকিৎসা দিতে দেরি করার কারণে রোগীর বাবা জাকির ফকির ক্ষিপ্ত হয়ে হাসপাতালের একমাত্র ডাক্তার কামরুজ্জামানকে লাঞ্চিত করেন। এ ঘটনায় মহিপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয় বলে জানা গেছে।

কুয়াকাটা হাসপাতলে বর্তমানে দায়িত্বে থাকা মিঠাগঞ্জ ইউনিয়নের স্বাস্থ্য সহকারী (সেকমো) মোসা: সালমা বেগম জানান, তাকে এখানে অতিরিক্তি দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। সে কোন মতে আউটডোর সামাল দিচ্ছেন বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আবদুল মান্নান জানান, কুয়াকাটা হাসপাতালে দায়িত্বে থাকা ডাক্তার মো. কামরুজ্জামান বর্তমানে ছুটিতে রয়েছেন।

পটুয়াখালী জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো.সেলিম মিয়া জানান, কুয়াকাটা হাসপাতালে রোগীর স্বজনদের হাতে এক চিকিৎসক লাঞ্চিতের ঘটনা ঘটেছে। এতে হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা বন্ধ রাখা যাবে না বলে তিনি সাংবাদিকদের জানান।

 

বিডি প্রতিদিন/২৭ জুন ২০১৬/হিমেল-১৫

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow