Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারি, ২০১৭

প্রকাশ : ২৭ জুন, ২০১৬ ২১:২৫
আপডেট :
বিল না দেয়ায় বগুড়া পৌরসভার বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন, সমঝোতায় চালু
নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া:
বিল না দেয়ায় বগুড়া পৌরসভার বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন, সমঝোতায় চালু

১৭ কোটি টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়ার কারনে সোমবার বগুড়া পৌরসভার পৌর ভবন, পানির পাম্প ও সড়ক বাতির বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে বিদ্যুৎ বিভাগ। পরে বিল পরিশোধ করার শর্ত ও সমঝোতার ভিত্তিতে পাঁচ ঘন্টা পর বিকেল ৪টার দিকে ফের বিদ্যুৎ সংযোগ চালু করা হয়।

সোমবার বেলা ১১টায় বগুড়া পৌরসভা কার্যালয়, ৪টি পানির পাম্প এবং কমপক্ষে পৌরসভার ১০টি এলাকার সড়কবাতির বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়।

সোমবার সকাল থেকেই বগুড়া বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ-১, ২ ও ৩ এর কর্মকর্তা ও কর্মচারিরা বগুড়া পৌরসভা ভবনসহ শহরের জলেশ্বরীতলা, শেরপুর রোড, মালতিনগর, রহমান নগর, নূর মসজিদ লেন, এস চ্যাটার্জি লেন, বকশীবাজার, জহুরুল নগর, বাদুর তলা, নামাজগড়, চকসূত্রাপুর, প্রেসপট্রি, ঝাউতলা, বড়গোলা, দত্তবাড়ী, কাটনারপাড়া, করনেশন স্কুল, হাকিরমোড়, শিববাটি এলাকার সড়ক বাতির বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে। একই সাথে শহরের বিভিন্ন এলাকায় অবস্থিত পৌরসভার ১৪টি পানির পাম্পের মধ্যে চারটির বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। পানির মোট গ্রাহক রয়েছেন ১৭ হাজার। এ কারনে প্রায় ছয় হাজার গ্রাহক চরম দুর্ভোগে পড়েন। এ ঘটনার পর বগুড়া পৌরসভার মেয়র জরুরি ভিত্তিতে সকল কাউন্সিলরদের নিয়ে বৈঠকে বসেন। বৈঠক শেষে মেয়র ও কাউন্সিলরগণ জেলা প্রশাসক আশরাফ উদ্দিনের সাথে এক বৈঠকে বসেন। বৈঠক শেষে বিদ্যুৎ অফিস কর্মকর্তার সাথে সমঝোতার ভিত্তিতে বিকেল থেকে বিচ্ছিন্ন করা সংযোগ পুন:সংযোগ দেওয়া হয়।
বগুড়া বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবু হেনা মোস্তফা কামাল জানান, মেয়র ও কাউন্সিলরদের সাথে কথা বলে সমঝোতায় আসা হয়েছে। আগামীকাল মঙ্গলবার পৌরসভার পক্ষ থেকে কিছু বিল পরিশোধ করার শর্তে পুনরায় বিদ্যুৎ সংযোগ চালু করা হয়। জেলা প্রশাসক মো. আশরাফ উদ্দিনের অনুরোধের ভিত্তিতে ঈদের কারণে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বগুড়া পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট একেএম মাহবুবর রহমান জানান, মঙ্গলবার ৫ লাখ টাকা প্রদান করাসহ প্রতিমাসে ১২ লাখ টাকা প্রদান করার শর্তে পুনরায় বিদ্যুৎ সংযোগ চালু করেছে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড।

বগুড়া জেলা প্রশাসক মো. আশরাফ উদ্দিন বলেন, আপাতত জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয় বিবেচনা করে বিষয়টি সমঝোতার জন্য চেষ্টা করেছি। কিন্তু মনে রাখতে হবে বকেয়া বিলগুলো প্রদান করতে হবে।  

বিডি-প্রতিদিন/এস আহমেদ

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow