Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ৯ জুলাই, ২০১৬ ১৪:২৮
আপডেট : ৯ জুলাই, ২০১৬ ১৬:১১
মোরেলগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা নিখোঁজ, পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ
মোরেলগঞ্জ প্রতিনিধি
মোরেলগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা নিখোঁজ, পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ
আবু হানিফ হাওলাদার

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে আবু হানিফ হাওলাদার (৩৮) নামে স্বেচ্ছাসেবক লীগের এক নেতা নিখোঁজ থাকার ৪ দিন পরে থানায় জিডি করা হয়েছে। হানিফের স্ত্রী নুরুন্নাহার বেগম আজ শনিবার বেলা ১১টায় জিডি করেন। জিডিতে বলা হয়েছে,  আবু হানিফ মঙ্গলবার (৫ জুলাই) রাত ১২টার পর থেকে নিখোঁজ রয়েছেন। ২ সন্তানের পিতা আবু হানিফ সুতালড়ী গ্রামের ইউসুফ আলী হাওলাদারের ছেলে। সে মোরেলগঞ্জ পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ও সদর বাজারের হেনা গার্মেন্টসের মালিক।

এদিকে, অভিযোগ উঠেছে ঘটনার রাতে কাপুড়িয়া পট্টিতে সংঘঠিত অগ্নিকাণ্ডে হানিফকে পুড়িয়ে মারা হয়েছে অথবা সে কৌশলগত ভুলে পুড়ে মরেছে। হানিফের স্ত্রীরও একই অভিযোগ এবং সন্দেহ, ‘তার স্বামীকে পুড়িয়ে মারা হয়েছে’।

হানিফ নিখোঁজ হওয়ার রাতেই রাজারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে ৫টি দোকান পুড়ে যায়। এর মধ্যে সানমুন গার্মেন্টসের মধ্যে পাওয়া যায় এক ব্যাক্তির দগ্ধ মৃতদেহ। মৃতদেহটি পুড়ে বিকৃত হওয়ায় সনাক্ত করা যায়নি। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে পোস্টমর্টেম করে এবং বেওয়ারিশ লাশ হিসেবে বাগেরহাটে দাফন করা হয়। এটি হানিফের মৃতদেহ বলেই কথা ওঠে সকল মহলে। হানিফের স্ত্রী নুরুন্নাহার বেগমও এদিন কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন এবং এটি তার স্বামীর মৃতদেহ বলে তিনিও সন্দেহ করেন। তবে বিকৃত হয়ে যাওয়ায় এটি সনাক্ত করা যায়নি।
নুরুন্নাহার বেগম অভিযোগ করে বলেন, ‘আগুনে পোড়া লাশ উদ্ধারের পরদিন বুধবার থানায় অভিযোগ নিয়ে গেলে পুলিশ তা ছুড়ে ফেলে দেয়। এর পরে আরো কয়েক দফা গেলেও পুলিশ বিভিন্ন অজুহাতে অভিযোগ বা জিডি গ্রহণ করেনি। আজ শনিবার ঢাকা কেন্দ্রীয় যুব মহিলা লীগের এক নেত্রীকে সাথে নিয়ে থানায় গেলে পুলিশ ঘটনাটি নিখোঁজ হিসেবে জিডি করে।

এ সম্পর্কে থানার ওসি মো. রাশেদুল আলম বলেন, ‘ব্যবসায়ী হানিফের নিখোঁজ হওয়ার বিষয়ে তার স্ত্রী আজ থানায় জিডি করেছেন। বিষয়টি নিয়ে নানা ধরনের কথা উঠছে। সে অনুযায়ী সবকিছু খতিয়ে দেখা হচ্ছে। খুব শীঘ্রই পুলিশ এ সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা পেয়ে যাবে বলেও ওসি জানান।

বিডি-প্রতিদিন/৯ জুলাই ২০১৬/শরীফ

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow