Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১২ জুলাই, ২০১৬ ১৮:১২
আপডেট : ১২ জুলাই, ২০১৬ ১৮:২৮
সাতক্ষীরায় যুবলীগ নেতার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার
সাতক্ষীরা প্রতিনিধি:
সাতক্ষীরায় যুবলীগ নেতার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রান হারলেন সাতক্ষীরা সদর উপজেলার লাবসা ইউনিয়নের ১ নম্বর বিনেরপোতা ওয়ার্ড যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন (৩২)। মঙ্গলবার সকালে বিনেরপোতা ভাড়া বাড়ী থেকে গলায় রশি পেচানো তার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

মিলনের পিতার নাম হাকিম উদ্দিন এবং বাড়ি রাজশাহী জেলার বোয়ালিয়া গ্রামে। দীর্ঘদিন ধরে তিনি সাতক্ষীরার বিনেরপোতায় রজব আলীর ভাড়া বাড়িতে বসবাস করতেন। এখানকার ভোটারও ছিলেন শান্ত স্বভাবের এই যুবলীগ নেতা। তার শশুর বাড়ী সদর উপজেলার মিল বাজারের সামনে মাগুরা গ্রামে। পুলিশ জানিয়েছে, নিহত মিলনের দেহের কয়েকটি স্থানে আঘাতের ক্ষত চিহ্ন রয়েছে। এটি হত্যা না আত্মহত্যা তা এখনই নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ। তবে বিষয়টি নিয়ে খতিয়ে দেখছে পুলিশ। সদর হাসপাতালে লাশের ময়না তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।

এদিকে মিলনের ভাড়া বাড়ির মালিক রজব আলির দাবি করেছেন, মিলনকে সোমবার স্থানীয় বখাটে যুবক জিয়াউর রহমান, আব্দুল মান্নান ও মিজানুর রহমান ধরে নিয়ে ব্যাপক মারধর করে। পরে তারা তাকে পুলিশে সোপর্দ করে।

এ ঘটনার পর লাবসা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এড.শাহনেওয়াজ ও ছাত্রলীগ নেতা সাতক্ষীরা জজ কোর্টের এপিপি এড. তামিম আহমেদ সোহাগ মিলনকে থানা থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে আসেন। তবে পুলিশ ও এলাকাবাসী বলছে বিনা কারনে মারধর ও পুলিশে সোপর্দ করার কারণে অপমান সহ্য করতে না পেরে গলায় রশি দিয়ে আত্মহননের পথ বেছে নিতে পারে যুবলীগ এই নেতা।

মিলনের লাশের সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুতকারী সাতক্ষীরা সদর থানার এসআই হিমেল জানান, মিলনের দেহের কয়েক স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এটি হত্যা না আত্মহত্যা তা এখনই নিশ্চিত হতে পারেননি তিনি। ডাক্তারি ময়না তদন্ত রিপোর্ট পাওয়া গেলে সবকিছু পরিস্কার হয়ে যাবে।

এ ব্যাপারে সাতক্ষীরা সদর থানা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক মারুফ হোসেন জানান, গত কয়েক দিন আগে যশোরের সাগরদাাঁড়ী এলাকা থেকে একটি মেয়ে ও ছেলে তারা বিনেরপোতা এলাকায় বেড়াতে আসে। এসময় স্থানীয় একটি ক্লাবের ছেলেরা তাদের আটকিয়ে ব্যাপক জিঙ্গাসাবাদ করে ছেড়ে দেয়। ওই ক্লাবের সদস্য ছিল মিলন। কিন্তু তারা ওই স্থানীয় এলাকাবাসী জিয়াউর রহমান, আব্দুল মান্নান ও মিজানুর রহমান শুধু মাত্র থানায় মিলনের বিরুদ্ধে হয়রানির অভিযোগে একটি জিডি করে। পরে বিষয়টি প্রকাশ পেলে মিলনের সাথে তাদের বাকবিতন্ডা হয়। এঘটনায় তারা মিলনকে ব্যাপক মারধর করে আহত করে। মঙ্গলবার সকালে ভাড়া বাড়ী থেকে মিলনের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এদিকে মিলন হত্যা ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন সদর উপজেলা যুবলীগ।


বিডি প্রতিদিন/১২ জুলাই ২০১৬/হিমেল-১০

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow