Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৩ জুলাই, ২০১৬ ১০:৩২
আপডেট : ১৩ জুলাই, ২০১৬ ১৩:৩০
বিরোধে বৌদ্ধ ভিক্ষুর ওপর হামলার অভিযোগ
কক্সবাজার প্রতিনিধি
বিরোধে বৌদ্ধ ভিক্ষুর ওপর হামলার অভিযোগ

কক্সবাজার শহরের উইমাহ্লাটারা ক্যাং এর বৌদ্ধ ভিক্ষু উপেনদিতাকে (৭৭) কুপিয়ে জখম করেছে দুর্বৃত্তরা। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ক্যাং পরিচালনা কমিটির জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে মংয়িন এই হামলা চালিয়ে থাকতে পারে বলে অভিযোগ করেছে কক্সবাজার ইউমাহ্লাটারা ক্যাং পরিচালনা কমিটি।

বুধবার ভোর ৫টার দিকে শহরের উইমাহ্লাটারা ক্যাং এর ভিতরে ঢুকে দুর্বৃত্তরা উপেনদিতাকে কুপিয়ে পালিয়ে যায়।

ঘটনার সময় বৌদ্ধভিক্ষুর সেবায় নিয়োজিত থাকা ৯ বছরের ছেলে থুইসা মং বলেন, ভোরে ভান্তের কাপড় পরিহিত এক ব্যক্তি গেইট খোলার জন্য বললে আমি গেইট খুলে দিই। তিনি আমাকে ২০ টাকা দিয়ে নাস্তা নিয়ে আসার জন্য দোকানে পাঠায়। পরে এসে দেখি লোকটি নাই, ভিক্ষু উপেনদিতা রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে।

ক্যাং এর নিচতলায় থাকা কলেজছাত্র অংছাইং মারমা বলেন, ভিক্ষু দু'তলায় চিৎকার করলে আমি যেতে চাইলে সন্ত্রাসীরা বাধা দেয়। তখন আমি বাইরে এসে ক্যাং পরিচালনা কমিটির নেতাদের খবর দিই। ততক্ষণে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।

ক্যাং পরিচালনা কমিটির সভাপতি মংথাছিন বলেন, আমরা খবর পেয়ে সাড়ে ৬টার দিকে ক্যাং এ এসে দেখি ভিক্ষু রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। আমরা তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপতালে নিয়ে আসি।

কক্সবাজার সদর হাসপতালে গিয়ে সরেজমিনে দেখা যায়, বৌদ্ধভিক্ষুর মাথায় ৪টি কাটা দাগ, হাত পা ভাঙ্গা। তাকে দ্রুত অপারেশন থিয়োটারে নেয়া হয়।

কক্সবাজার জেলা আধিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক মং থেনহ্লা জানান, এ ঘটনায় আমরা আতঙ্কিত। ঘটনার মূল ক্লু বের করে হামলাকারিদের দ্রুত গ্রেফতার করতে হবে।

কক্সবাজার ইউমাহ্লাটারা ক্যাং পরিচালনা কমিটির সভাপতি মংথাছিন জানান, ক্যাং এর জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। এ বিরোধের জের ধরে স্থানীয় তথাকথিত ভিক্ষু পোশাকধারী মংয়িন ধারালো অস্ত্র দিয়ে ভিক্ষু উপেনদিতাকে হামলা করে। ক্যাং এর বৌদ্ধ ভিক্ষু উপেনদিতা দীর্ঘ ২০ বছর ধরে উক্ত ক্যাং-এ ভিক্ষু হিসেবে রয়েছেন।

কক্সবাজার পুলিশ সুপার শ্যামল কুমার নাথ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তিনি বলেন, ঘটনার কারণ বের করা হচ্ছে। কমিটির নেতাদের মৌখিক অভিযোগের প্রেক্ষিতে অভিযুক্ত মংয়িনকে গ্রেফতারের অভিযান চলছে।

বিডি-প্রতিদিন/১৩ জুলাই, ২০১৬/মাহবুব

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow