Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০১৭

প্রকাশ : ২০ জুলাই, ২০১৬ ২০:১৯
আপডেট :
'চেকআপের' নামে হাসপাতালের নামাজের স্থানে নিয়ে ধর্ষণ
কুমিল্লা প্রতিনিধি
'চেকআপের' নামে হাসপাতালের নামাজের স্থানে নিয়ে ধর্ষণ

ইপিজেডে চাকরি দেওয়ার লোভ দেখিয়ে মেডিক্যাল চেকআপ করানোর নাম দিয়ে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চতুর্থ তলা’র নামাজের স্থানে নিয়ে অচেতন করে শারমিন আক্তার (ছদ্মনাম) (১৮) নামে এক কারখানার শ্রমিমকে ধর্ষণ করা হয়েছে। ধর্ষক নিজেকে কুমিল্লা ইপিজেডে'র ব্রেন্ডিক্স কোম্পানির ইনচার্জ পরিচয় দিয়েছে। তার বয়স আনমানিক (৫০)। আজ বুধবার ঘটনাটি জানাজানি হয়।

শারমিন জানায়, তার বাড়ি কুমিল্লার বরুয়া উপজেলায়। কুমিল্লা নগরীর ঠাকুরপাড়া বিসমিল্লাহ তোয়ালে কারখানার শ্রমিক ছিলেন। গত জুন মাসে চাকরিটি ছেড়ে ১৮ জুলাই সকালে নতুন চাকরির খোঁজে কুমিল্লা ইপিজেডের সামনে আসলে বয়স আনুমানিক (৫০) এক লোক তাকে চাকরি দিবে বলে জানায়। ওই ব্যক্তি ইপিজেডের ব্রেন্ডিক্স কোম্পানির ইনচার্জ পরিচয় দিয়েছে। চাকরি করতে মেডিক্যাল চেকআপ কোম্পানির কাছে জমা দিতে হয়। এ কথা বলে ওই ব্যক্তি তাকে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চতুর্থ তলায় নিয়ে যায়। তারপর তাকে অচেতন করে নামাজ পড়ার স্থানে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে। সেখান থেকে হাসপাতালের কর্মচারীরা তাকে উদ্ধার করে মেডিক্যালে ভর্তি করে।

এ ব্যাপারে ওয়ার্ড মাস্টার মনিরুজ্জামান জানান, মেয়েটিকে ধর্ষণ করা হয়েছে। বর্তমানে তাকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। সুস্থ হয়ে উঠলে এ বিষয়ে সবকিছু জানা যাবে।

কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক স্বপন কুমার অধিকারী জানান, একটি মেয়েকে মেডিক্যালের চতুর্থ তলায় ধর্ষণ করা হয়েছে বলে জেনেছি। কে ধর্ষণ করেছে তার তথ্য এখনো পাওয়া যায়নি। এ বিষয়টি মেডিক্যালে কর্তব্যরত পুলিশকে জানানো হয়েছে।

কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানার ওসি আবদুর রব জানান, এ বিষয়ে কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

বিডি-প্রতিদিন/২০ জুলাই ২০১৬/শরীফ

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow