Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৬:৪৯
বীরগঞ্জে মৃত্যুর ১০ মাস পর কবর থেকে লাশ উত্তোলন
দিনাজপুর প্রতিনিধি:
বীরগঞ্জে মৃত্যুর ১০ মাস পর কবর থেকে লাশ উত্তোলন

দিনাজপুরের বীরগঞ্জে মৃত্যুর ১০ মাস পর মো. আব্দুল খালেক নামে এক ব্যক্তির মৃতদেহ উত্তোলন করা হয়েছে। আদালতের নির্দেশে লাশ উত্তোলন করে মর্গে প্রেরণ করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

মৃত আব্দুল খালেক দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার নিজপাড়া ইউনিয়নের সৈয়দপুর কল্যাণী গ্রামের মৃত মো. আবু হানিফ সরকারের পুত্র।

সোমবার সকাল ১১টায় বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ আলম হোসেনের নেতৃত্বে নিজপাড়া ইউনিয়নের সৈয়দপুর কল্যাণী গ্রামের গুচ্ছ গ্রাম সরকারী কবরস্থান হতে মৃতদেহটি উদ্ধার করে পিবিআই। এ সময় মামলা তদন্তকারী অফিসার পিবিআই পুলিশ পরিদর্শক রেজা মানিক, বীরগঞ্জ থানার এসআই মো. আযম প্রধানসহ পুলিশ কর্মকর্তা ও পুলিশ সদস্যগণ উপস্থিত ছিলেন।

মামলার বাদী মৃতের ছেলে মো. ওয়াহেস কুরনী বলেন, ''২০১৫ সালের ১৩ নভেম্বর আমার বাবা আব্দুল খালেক রাত ৮টায় ব্যাটারিচালিত অটোরিক্সাযোগে গ্রামের বাড়ি নিজপাড়া ইউনিয়নের সৈয়দপুর কল্যাণী হতে বীরগঞ্জ পৌর শহরের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। পথে একই ইউনিয়নের প্রেমবাজার নামকস্থানে একটি মাইক্রোবাস অটোরিক্সাকে চাপা দেয়। এতে তিনি গুরুত্বর আহত হন। গুরুত্বর আহতাবস্থায় তাকে উদ্ধার করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে সৈয়দপুর রাবেয়া মোড়ে তিনি মারা যান।   মৃত্যুর বেশ কিছুদিন পর জানতে পারি ওয়াকফ সম্পতি ঢোল পুকুর নিয়ে নিজপাড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মো. আব্দুল খালেক সরকারের সাথে আমার বাবার দীর্ঘদিন বিরোধ চলে আসছিল। আমার বাবার মৃত্যুর পর চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক সরকার ওয়াকফ সম্পত্তি দখল করলে আমি বাধা দেই। এ সময় তিনি আমাকে হুমকি প্রদর্শন করে বলেন যে, তোমার বাবার মতো তোমাকেও শেষ করে দেওয়া হবে। এতে আমার সন্দেহ হয় যে, সেদিন মাইক্রোবাস চাপা দিয়ে আমার বাবাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে খালেক চেয়ারম্যান। তাই আমি এ ব্যাপারে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালত-০২ -এ  আব্দুল খালেক সরকারকে আসামি করে ২০১৬ সালের ২৩মে একটি হত্যা মামলা দায়ের করি। ''

পিবিআই পুলিশ পরিদর্শক রেজা মানিক সাংবাদিকদের জানান, সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালত-০২ এর বিজ্ঞ বিচারক মো. লুৎফর রহমান মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব পিবিআই এর কাছে ন্যাস্ত করেন। তদন্তের স্বার্থে এবং মৃত্যুর প্রকৃত রহস্য উদঘাটনে আদালতের নির্দেশ মোতাবেক মৃতদেহ উত্তোলন করে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ফরেনসিক পরীক্ষার রিপোর্ট পেলে এ ঘটনার মূল রহস্য জানা যাবে।

বিডি-প্রতিদিন/এস আহমেদ

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow