Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২০:১৭
ফেনী জেলা কারাগারে বন্দীদের মানবেতর জীবন
ফেনী প্রতিনিধি:
ফেনী জেলা কারাগারে বন্দীদের মানবেতর জীবন

ফেনী জেলা কারাগারে ধারণ ক্ষমতার চেয়ে প্রায় পাঁচগুণ বন্দী মানবেতর জীবন যাপন করছে। ফলশ্রুতিতে বাড়ছে অপরাধ। বৃটিশ শাসনামলে ১৯১৫ সালে নির্মিত উপ কারাগারটি ১৯৮৪ সালে  ফেনী জেলা হওয়ার পর থেকে জেলা কারাগার হিসাবে ব্যবহার করা হচ্ছে। বর্তমানে ফেনী কারাগারের ৪ তলার একটি ভবন ও টিন সেটের ৩টি ভবন মিলে ধারণ ক্ষমতা মাত্র ১৭২ জনের। গড়ে এ কারাগারে ৮শ' থেকে সাড়ে ৮শ' বন্দী অবস্থান করেন। মহিলা ওয়ার্ডের ২টি বেডের বিপরীতে প্রায় ২০ জন বন্দী প্রতিদিন এখানে মানবেতর জীবনযাপন করছে।

ফেনী জেলা কারাগারের জেলার শংকর মজুমদার জানান ৬ সেপ্টেম্বর বন্দী উপস্থিতির রেজিষ্ট্রার অনুযায়ি এই কারাগারে ৮৪০ বন্দী রয়েছে। মহিলা ভবনে ২টি বেডের বিপরীতে অবস্থান করছে ১৮ জন মহিলা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন বন্দী জানান, কিশোর বন্দীদের সাধারণ বন্দীদের সাথে রাখায় কিশোররা শারীরিক এবং মানসিক ভাবে নির্যাতিত হচ্ছে। ফলশ্রুতিতে তারা সংশোধন না হয়ে অমানুষ বা পূর্ণ সন্ত্রাসীতে রুপ নিচ্ছে। বন্দীরা জানান, কারাগারে গোসলের, খাওয়ার এবং ঘুমানোর সময় পালাক্রমে অপেক্ষা করা সম্ভব হলেও টয়লেটের ব্যাপারে মাঝে মধ্যে প্রচন্ড সমস্যায় পড়তে হয়। রাত জেগে পালাক্রমে ঘুমানোর বিষয়টি তাদের খুব বেশি কষ্ট দেয়। শীতকালে এত বন্দী কোন ভাবে গাদাগাদি করে থাকা গেলেও গরমের এই মৌসুমে একেবারে অসহনীয় হয়ে যাচ্ছে তাদের জীবন। এছাড়া কারা অভ্যন্তরে বন্দীদের চলাফেরা এবং বিনোদনের কোন সুযোগ নেই।  

এছাড়া তারা আরও অভিযোগ করে বলেন, আধুনিক জেলা কারাগারের কোন সুযোগ সুবিধা নেই এখানে। জেল অফিস কাম ইন্টারভিউ ব্লক, সাজাপ্রাপ্ত ও বিচারাধীন বন্দীদের জন্য আলাদা ওয়ার্ক শেড, আলাদা পুরুষ-মহিলা ও কিশোর বন্দী ভবন, কারারক্ষী ব্যারাক, পুরুষ ও মহিলা বন্দীদের জন্য আলাদা মেডিকেল সেন্টার, কয়েদী সেল, জেলারের বাসভবন, কর্মকর্তা কারারক্ষীসহ অন্যান্য কর্মচারীদের জন্য যে সব সুযোগ সুবিধা থাকার কথা তার ছিঁটেফোঁটাও নেই এখানে। বন্দীদের স্বজনরা জানান, তাদেরকে প্রতিনিয়ত হারপিক, ব্লিসিং পাওডার, সাবান এবং বদনা পর্যন্ত কিনে দিতে হয়।  

 

বিডি প্রতিদিন/৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬/হিমেল-১৩

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow