Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৮:০৮
চুনারুঘাটে ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে হত্যা
হবিগঞ্জ প্রতিনিধি:
চুনারুঘাটে ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে হত্যা
ছবি: প্রতীকী

হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধু তাহেরা খাতুন (২৪) কে স্বামী, শাশুরি ও ভাসুর মিলে অমানুষিক নির্যাতন করে হত্যা করেছে। শুক্রবার সকালে উপজেলার শানখলা উনিয়নের সাদেকপুর গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।

এলাকাবাসী জানান, পারিবারিক কলহের জের ধরে ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধু তাহেরা খাতুন (২৪) কে তার বিদেশ ফেরত ভাসুর কাওছার মিয়া মাথায় আঘাত করলে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান। খবর পেয়ে চুনারুঘাট থানার এসআই সেলিম মিয়া ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশ উদ্ধার করে হবিগঞ্জ মর্গে প্রেরণ করেন।  

জানা যায়, প্রায় ৮/৯ মাস পূর্বে চুনারুঘাট উপজেলার পঞ্চাশ গ্রামের আব্দুস সামাদ এর মেয়ে তাহেরা খাতুনের সাথে বিয়ে হয় সাদেকপুর গ্রামের হরমুজ আলীর ছেলে রাসেল মিয়ার সাথে। রাসেল এর যৌথ পরিবার। তিনি পোল্ট্রি ফার্মের ব্যবসায়ী। যৌথ পরিবার হওয়ায় প্রায়ই তাদের পরিবারে কলহ লেগে থাকত। সম্প্রতি তাহেরা খাতুনের ভাসুর কাওছার মিয়া বিদেশ থেকে বাড়িতে আসলে কলহ আরো বেড়ে যায়।

বৃহস্পতিবার শ্বাশুরি ও ভাসুর কাওছার মিয়া তাহেরা খাতুনের সাথে খারাপ আচরন করলে সে তার পিত্রালয়ে চলে যেতে চায়। পরে শানখলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সবুজ তরফদার এর ছোট ভাই ফজল তরফদার এবং প্রতিবেশী সমির মিয়া সালিশ করে বিরোধ নিষ্পত্তি করেন। কিন্তু রাতেই আবার শুরু হয় পারিবারিক কলহ।  

শুক্রবার ভোরে স্বামী রাসেল মিয়া, শ্বাশুরি ও ভাসুর কাওছার মিয়া তাহেরা খাতুনের উপর শারিরীক নির্যাতন শুরু করলে এক পর্যায়ে তাহেরা মারা যায়। এরপর থেকে শ্বাশুরি ও ভাসুর কাউছার মিয়া বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়।

চুনারুঘাট থানার ওসি নির্মলেন্দু চক্রবর্তী জানান, পারিবারিক কলহের জের ধরে তাহেরা খাতুনকে হত্যা করা হয়েছে। তার স্বামী রাসেল মিয়াকে আটক করা হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। তিনি আরো জানান, নিহতের শ্বাশুরি ও ভাসুর কাউছার মিয়াকে গ্রেফতার করতে পুলিশ চেষ্টা করছে।

বিডি-প্রতিদিন/এ মজুমদার

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow