Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২১:০৯
রূপগঞ্জে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে নির্যাতনের অভিযোগ
রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি:

রূপগঞ্জে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে নির্যাতনের অভিযোগ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে দাবিকৃত যৌতুকের টাকা না পেয়ে স্বামীসহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন রুনা আক্তার (২৪) নামে এক গৃহবধূকে ঘরে আটকে রেখে নির্যাতন চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রবিবার সকালে উপজেলার গোলাকান্দাইল ইউনিয়নের হোড়গাঁও এলাকায় এ নির্যাতনের ঘটনা ঘটে।

আক্রান্ত গৃহবধূ ওই এলাকার সোলেমান মিয়ার ছেলে সুমন মিয়ার স্ত্রী এবং শরিয়তপুর জেলার জাজিরা থানার কলমীরচর কালু বেপারীকান্দি এলাকার হোসেন মাতাব্বরের মেয়ে।
 
গৃহবধূর বোন মনিরা আক্তার জানান, গত ৫ বছর আগে সুমন মিয়ার সঙ্গে রুনা আক্তারের বিয়ে হয়। এসময় যৌতুক হিসেবে স্বর্ণালংকার ও আসবাবপত্রসহ দুই লাখ টাকার মালামাল দেয়া হয়। বিয়ের পর তাদের সংসারে শায়েন নামে এক পুত্র সন্তানের জন্ম হয়। গত দুই বছর আগে গৃহবধূ রুনার স্বামী, শ্বশুর ও শাশুড়ি এক লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। মেয়ের সুখের কথা চিন্তা করে রুনার বাবা হোসেন মাতাব্বর শ্বশুরবাড়ির দাবিকৃত ১ লাখ টাকা পরিশোধ করেছেন বলে জানান।

তিনি আরও জানান, রবিবার সকালে গৃহবধু রুনার স্বামী সুমন মিয়া তার বাপের বাড়ি থেকে আরও ২ লাখ টাকা যৌতুক এনে দিতে বলে। রুনা আক্তার সাব জানিয়ে দেয় তিনি তার বাবার কাছ থেকে কোন টাকা এনে দিতে পারবেন না। পরে স্বামী সুমন মিয়া, শ্বশুর সোলেমান, শাশুড়ি রেনু বেগম ও দেবর সবুজ মিয়া গৃহবধূ রুনা আক্তারকে ঘরে বন্ধি করে শারীরিক নির্যাতন চালায়। তিনি অভিযোগ করেন, এক পর্যায়ে টাকা এনে দিতে না পারলে তাকে হত্যা করা হবে বলেও হুমকি দেন স্বামী সুমন মিয়া।

পরে রুনা আক্তার কৌশলে তার স্বামীর বাড়ি থেকে পালিয়ে ভুলতা এলাকার তার বোনের বাড়িতে আশ্রয় নেয়। এ ব্যাপারে রূপগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

এদিকে, স্বামীসহ শশুর বাড়ির লোকজনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা নির্যাতন ও যৌতুকের বিষয়টি সম্পূর্ণ অস্বীকার করেন। পারিবারিক বিষয়াদি নিয়ে ঝগড়াকে কেন্দ্র করে গৃহবধূ রুনা তাদেরকে ফাঁসাতে নাটক সাজিয়েছে বলেও পাল্টা অভিযোগ করেন তারা।

এ ব্যাপারে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসমাইল হোসেন বলেন, এ ধরনের একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিডি-প্রতিদিন/১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬/মাহবুব

 

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow