Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ৩ অক্টোবর, ২০১৬ ১৬:৩৯
মেহেরপুরে সাড়ে ৫ মাস পর কবর থেকে লাশ উত্তোলন
মেহেরপুর প্রতিনিধি:
মেহেরপুরে সাড়ে ৫ মাস পর কবর থেকে লাশ উত্তোলন

দাফনের প্রায় সাড়ে ৫ মাস পর আদালতের নির্দেশে মেহেরপুর সদর উপজেলার শ্যামপুর কবরস্থান থেকে হাসানুজ্জামান মিলনের লাশ উত্তোলন করা হয়েছে।
সোমবার সকাল ১১ টার দিকে মেহেরপুরের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট দেলোয়ার হোসেনের উপস্থিতিতে পুলিশের সহযোগিতায় তার লাশ উত্তোলন করে দাঁত ও হাড়ের কিছু অংশের নমুনা সংগ্রহ করে সিআইডি।


 
সিআইডি’র পরিদর্শক হাসান ইমাম জানান, মেহেরপুরের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মহিদুজ্জমানের নির্দেশে লাশের দাঁত ও হাড়ের ডিএনএ পরীক্ষার জন্য লাশ উত্তোলন করে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এ পরীক্ষার প্রতিবেদন হাতে পেলে আসল হত্যাকারীদের শনাক্ত করা সম্ভব হবে।

পরিদর্শক হাসান ইমাম আরো জানান, সিআইডি সদর দপ্তরের ডিএনএ ল্যাবরেটরি থেকে পূর্ণাঙ্গ প্রোফাইল তৈরি করার জন্য মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মনিরুল ইসলামের কাছে নমুনা পাঠানোর জন্য চাহিদা দেওয়া হয়। সে মোতাবেক মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আদালতে লাশ উত্তোলন করে নমুনা সংগ্রহের আবেদন জানালে বিজ্ঞ বিচারক লাশ উত্তোলনের নির্দেশ দেন। আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী জেলা প্রশাসক একজন ম্যাজিষ্ট্রেট নিয়োগ করেন লাশ উত্তোলনের জন্য।

জানা গেছে, চলতি বছরের ২৪ এপ্রিল রাতে গাংনী ঝিনেরপুর পাড়া থেকে মিলনের রক্তমাখা মোটরসাইকেল উদ্ধার করে পুলিশ। পরের দিন সকালে পুলিশ মোটরসাইকেল উদ্ধারের স্থান থেকে কিছু দূরে মিলনের লাশ পায়। লাশের ময়না তদন্ত শেষে ওইদিন শ্যামপুর কবরস্থানে দাফন করা হয়। পরে মিলনের পিতা আব্দুল হামিদ 'স্ত্রীর পরকীয়া প্রেমের কারণে খুন' উল্লেখ করে নিজে বাদি হয়ে মিলনের স্ত্রী মানছুরা খাতুন, ভায়রা আব্দুর রশিদ, আব্দুর রশিদের স্ত্রী মাছনুয়ারা খাতুন এবং তার 'স্ত্রীর প্রেমিক' মোজাম্মেল হককে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ অভিযান চালিয়ে ওই মামলার সকল আসামিকে আটক করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করে। পরে পুলিশের কাছ থেকে মামলাটি সিআইডিতে হস্থান্তর করা হয়।

সম্প্রতি মামলার দুই আসামি মিলনের ভায়রা আব্দুর রশিদ ও তার স্ত্রী মাছনুয়ারা খাতুন আদালত থেকে জামিনে মুক্তি লাভ করেন। মামলার অপর দুই আসামি মিলনের স্ত্রী মানছুরা খাতুন ও তার প্রেমিক মোজাম্মেল হক বর্তমানে জেল হাজতে রয়েছেন।  

বিডি-প্রতিদিন/এস আহমেদ

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow