Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ৩ অক্টোবর, ২০১৬ ১৯:০৬
পটুয়াখালীতে আ'লীগ নেতার দখলকৃত স্কুলের জমি উদ্ধার
পটুয়াখালী প্রতিনিধি:
পটুয়াখালীতে আ'লীগ নেতার দখলকৃত স্কুলের জমি উদ্ধার

পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের শ্রমবিষয়ক সম্পাদক গাজী হাফিজুর রহমান ওরফে সবির গাজীর জোরপূর্বক দখল করা পটুয়াখালী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সম্পত্তি উদ্ধার করেছে জেলা প্রশাসক ও পৌর মেয়র। উদ্ধারের পর ওই জমি বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।

আজ সোমবার সকালে পটুয়াখালীর জেলা প্রশাসক এ কে এম শামিমুল হক ছিদ্দিকী ও পটুয়াখালী পৌরসভার মেয়র ডাক্তার মো. শফিকুল ইসলামসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছে ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সম্পত্তি দখলমুক্ত করে কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে দেন। এ সময় বিদ্যালয়ের জমির সীমানা নির্ধারণ করে লাল পতাকা টাঙ্গিয়ে দেওয়া হয়।

জমি উদ্ধারের সময় দখলদার ওই আওয়ামী লীগ নেতাকে ঘটনাস্থলে দেখা যায়নি।

জেলা প্রশাসন ও স্কুল কর্তৃপক্ষ জানায়, বিদ্যালয়ের পশ্চিম পাশের ভবন সংলগ্ন খেলার মাঠ ও প্রধান শিক্ষকের বাসভবন সংলগ্ন পশ্চিম-উত্তর পাশে সরকারি পুকুর। পুকুরের পাশেই আওয়ামী লীগ নেতা সবির গাজীর বড় ভাই বিএনপি নেতা গাজী মিজানুর রহমান সাঈদ ওরফে সাইদ গাজীর জমি। গত ২৫ সেপ্টেম্বর সবির তার দলবল নিয়ে বড় ভাই বিএনপি নেতা সাঈদ গাজীর চলাচলের জন্য স্কুলের পুকুরে বালু ফেলে ভরাট করে একটি রাস্তা নির্মানের কাজ শুরু করেন। ফলে স্কুলের একটি অংশে জায়গা দখল করে সেখানে টিনের সীমানা প্রাচীর দেয় আওয়ামী লীগ নেতা সবির। বিদ্যালয়ের সম্পত্তিতে থাকা বেশ কয়েকটি গাছও কেটে ফেলা হয়। দখলদাররা শহরের প্রভাবশালী হওয়ায় স্কুল কর্তৃপক্ষ জেলা প্রশাসনের দারস্থ হয়েও প্রথমে প্রতিকার পায়নি।

স্কুলের জমি দখল ঠেকাতে ২৬ সেপ্টেম্বর ১৫ ছাত্রী মেয়রের কাছে একটি আবেদন করেন। আবেদনে বলা হয়, ‘বিদ্যালয়ের পশ্চিম দিকের ভবনসংলগ্ন গেটের পরেই আমাদের খেলার মাঠ। সেই মাঠটি আমাদের একমাত্র খেলার স্থান। ‘দুর্ভাগ্যবশত জনৈক প্রতিবেশী সরকারি পুকুর ভরাট করে রাস্তা তৈরি করছেন। শুধু তাই নয়, বিদ্যালয়ের পশ্চিম পাশের রাস্তার সঙ্গে একত্র করে বিদ্যালয়ের জমি দখলের পাঁয়তারা করছেন। দখলের এই পদক্ষেপ বন্ধ করার জন্য অনুরোধ করছি। ’

এ নিয়ে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হলে টনক নড়ে জেলা প্রশাসন ও পৌর মেয়রের। পরে সোমবার ওই জমি দখলমুক্ত করে সীমানা নিধারণ করে দেওয়া হয়।

পটুয়াখালীর জেলা প্রশাসক এ কে এম শামিমুল হক সিদ্দিকী বলেন, স্কুল কর্তৃপক্ষের অভিযোগের ভিত্তিতে অবৈধ দখলদারদের হাত থেকে জমিটি উদ্ধার করা হয়েছে।
এ বিষয়ে পটুয়াখালী পৌরসভার মেয়র ডাক্তার মো. শফিকুল ইসলাম জানান, উদ্ধারকৃত জমিতে পৌরসভার পক্ষ থেকে সীমানা প্রচীর নির্মান করে দেওয়া হবে। পাশাপাশি পুকুরটি খনন করে বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের ব্যবহার উপযোগী করে দেওয়া হবে।

বিডি-প্রতিদিন/এস আহমেদ

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow