Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, বুধবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৯:৫৫ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২০:৩৯
'শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচনে না এলে আস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হবে বিএনপি'
নোয়াখালী প্রতিনিধি
'শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচনে না এলে আস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হবে বিএনপি'
ফাইল ছবি

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম বলেছেন, 'বিএনপি দেশের জনগণকে ও বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তাকে ভয় পায়। সে কারণে তারা নির্বাচনের পথে না গিয়ে আবার ষড়যন্ত্রের পথে হাটা শুরু করেছে।

এই দলটির জন্মই ষড়যন্ত্রের মধ্য দিয়ে। তাই তারা ষড়যন্ত্র ছাড়া কিছুই বোঝে না। আগামী ২০১৯ সালে সংবিধান মোতাবেক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সে নির্বাচনে অংশ না নিলে তারা আস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হবে। '

আজ শনিবার জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে বিশেষ বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।  

এনামুল হক শামীম বলেন, 'বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার নামে দুর্নীতির মামলা আওয়ামী লীগ করেনি। এটা তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলের মামলা। তিনি (খালেদা) দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত নন, এটা আদালতে গিয়ে প্রমাণ করুন। তার সাজা হবে কিনা সেটা আদালতের বিষয়। দুর্নীতি-লুটপাট এবং পরবর্তীতে জ্বালাও, পোড়াও সন্ত্রাসের কারণে জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে বিএনপি। তারা সরকার পতনের আন্দোলনের ডাক দিয়েছিল। কিন্তু জনগণ সাড়া দেয়নি। জনরোষের কারণে তারা আন্দোলন থেকে পিছু হটে। এখন জনগণকে ভয় পায় বলেই আগামী নির্বাচনে অংশ না নিতে টালবাহানা শুরু করেছে। তবে বিএনপি যদি নির্বাচনে অংশ গ্রহণ না করে তাহলে তাদের অবস্থা আরও খারাপ হবে।

তৃণমূলকে সংগঠিত ও শক্তিশালী করার নির্দেশ দিয়ে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বলেন, এই নোয়াখালীর মাটি এক সময় বিএনপির ঘাটি ছিল। আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়ন ও জনবান্ধব কর্মসূচি গ্রহণের ফলে নোয়াখালীর মানুষ আওয়ামী লীগের ওপর আস্থাশীল। নোয়াখালীর মাটি এখন আওয়ামী লীগের ঘাটি।

তিনি আরও বলেন, আগামী নির্বাচন আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জ। সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হলে তৃণমূলকে আরও বেশি শক্তিশালী করতে হবে। আওয়ামী লীগ যদি ঐক্যবদ্ধ হয় তাহলে পৃথিবীর কোনো শক্তি নেই আগামী নির্বাচনে পরাজিত করে। নিজেরা ঐক্যবদ্ধ থাকুন-একাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ হ্যাট্রিক করবে।  

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ খায়রুল আনম সেলিমের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন, জেলা সাধারণ সম্পাদক নোয়াখালী-৪ আসনের সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী, চাটখিল আসনের সংসদ সদস্য এইচএম ইব্রাহীম, সোনাইমুড়ী ও সেনবাগ আসনের সংসদ সদস্য মোরশেদ আলম, বেগমগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য মামুনুর রশিদ কিরণ, হাতিয়া আসনের সংসদ সদস্য আয়েশা ফেরদৌস, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. জাফর উল্যাহ, প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী জাহাঙ্গীর আলম, সহ-সভাপতি আতাউর রহমান ভূঁইয়া মানিক, এনায়েত উল্যাহ, মিয়া মোহাম্মদ শাহজাহান, আবু তাহের, খন্দকার রুহুল আমিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মমিন বিএসসি, মাওলা জিয়াউল হক লিটন, সামছুদ্দিন জেহান, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শিহাব উদ্দিন শাহিন, জেলা আওয়ামী লীগের  সাংগঠনিক সম্পাদক ওমর ফারুক বাদশা, সামছুদ্দিন সেলিম, প্রচার সম্পাদক জহিরুল ইসলাম জহির, শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল ওয়াদুদ পিন্টু ও পৌর মেয়র সহিদ উল্যাহ খাঁন সোহেলসহ জেলা-উপজেলার নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

পদ্মা সেতু নিয়ে ষড়যন্ত্র করার অপরাধে ড. ইউনুসের বিরুদ্ধে বিশেষ ট্রাইব্যুানালে বিচার করার দাবি জানান সভায় জেলা আওয়ামী লীগের নেতারা। এছাড়াও কয়েকটি উপজেলা ও সহযোগী সংগঠনের সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ করা হয়।

বিডি প্রতিদিন/১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭/এনায়েত করিম

আপনার মন্তব্য

up-arrow