Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ১৬ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, বুধবার, ১৬ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৮:২৬ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৯:০৫
যৌতুকের দাবিতে স্বামীর অকথ্য নির্যাতন
উচ্ছ্বল হাবিবা এখন যেন এক প্রাণহীন দেহ
বাবুল আখতার রানা, নওগাঁ:
উচ্ছ্বল হাবিবা এখন যেন এক প্রাণহীন দেহ

নওগাঁয় যৌতুকের দাবিতে বিয়ের মাত্র দুই মাসের মাথায় স্বামীর পরিবারের বর্বর নির্যাতনের শিকার হাবিবা খাতুন নামে এক গৃহবধূ মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। ভারি আঘাতে তার মাথা ও পিঠে ক্ষতের সৃষ্টি হয়েছে।

খাবার দেওয়া হচ্ছে নাক দিয়ে। শরীরের কোন অঙ্গই কাজ করছে না তার। কথাও বলতে পারছেন না হাবিবা। শুধু বিছানায় শুয়ে মাঝে মধ্যে একটু করে চেয়ে আশপাশের মানুষ দেখছে।

পরিবারের দাবি যৌতুকের জন্য অমানবিক নির্যাতন করেছে হাবিবার স্বামী ও তার মা। বর্তমানে চিকিৎসার ব্যয় বহন করতে না পারায় অচেতন মেয়েকে নিয়ে অমানবিক জীবন কাটাচ্ছে পরিবারটি। এ বিষয়ে হাবিবার বাবা হাফিজুর রহমান বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। মামলার পর হাবিবার স্বামী ও শ্বশুরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ২৩ আগষ্ট হাবিবা খাতুনের সাথে বিয়ে হয় একই মহল্লার শামসুজ্জোহা খান বিদ্যুতের ছেলে তামভি হাসান অভির। বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই বাবার বাড়ি থেকে ২ লাখ টাকা নিয়ে আসতে বলা হয় হাবিবাকে। কিন্তু হাবিবার গৃহশিক্ষক বাবা হাফিজুর রহমানের পক্ষে তা দেওয়া কোনভাবেই সম্ভব ছিল না। এক পর্যায়ে গত ৩০ নভেম্বর বিকেলে হাবিবার বাবার কাছে খবর পাঠানো হয় তার মেয়ে গলায় দড়ি দিয়ে মারা গেছে। কিন্তু ছেলের পরিবার ওইদিন হাবিবাকে হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক জীবিত আছে জানিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে। রাজশাহী মেডিকেলে ভর্তি করানোর মাত্র ৪দিন পর অচেতন হাবিবাকে হাসপাতাল থেকে নিয়ে পালিয়ে যায় তারা। মেয়েকে দেখতে হাবিবার পরিবার রাজশাহীতে গেলে হাসপাতালের নির্ধারিত ঠিকানায় তাদের মেয়েকে খুঁজে না পেয়ে নওগাঁর স্থানীয় কমিশনার মজনু হোসেন ও ছেলের বাবা শামসুজ্জোহার শরনাপন্ন হন। তাদের সহযোগিতায় দীর্ঘ প্রায় ছয় দিন পর রাজশাহীতে তামভির এক আত্মীয়ের বাসায় অচেতন হাবিবাকে পাওয়া যায়। এরপর হাফিজুর রহমান তার মেয়েকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে চিকিৎসকরা তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখে। দীর্ঘ ১৬ দিন লাইফ সাপোর্টে রাখার পর তাকে হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তির পরামর্শ দেওয়া হয়। সেখানে তিন দিন থাকার পর বাড়ি নিয়ে যেতে বলেন চিকিৎসকরা।

হাবিবার বাবা হাফিজুর রহমান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, মেয়েকে বাড়ি নিয়ে আসার পর স্থানীয় নিউরোলোজিষ্ট ডা. মিলন বাদশার কাছে চিকিৎসা শুরু করেন তারা। কিন্তু এখন পর্যন্ত তাদের মেয়ের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়নি। খাওয়াতে হয় নাক দিয়ে। হাত পায়ে কোন শক্তি নেই। কথাও বলতে পারে না।

তিনি বলেন, মেয়ের এমন অবস্থার জন্য যারা দায়ী তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চান তিনি। হাবিবার মা সফুরা আখতার বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ৩০ নভেম্বর মেয়ের খবর পাওয়া মাত্রই চিকিৎসার কথা বলছিলেন তারা। কিন্তু রাজশাহীতে নেয়ার পর থেকেই মোবাইল ফোনে ছেলে পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয় তাদের মেয়ে সুস্থ আছে। কিন্তু মিথ্যা সান্তনা দিয়ে দিনের পর দিন তাদের মেয়েকে চিকিৎসা না করিয়ে মেরে ফেলতে চেয়েছিলেন তারা। তিনি বলেন, উন্নত চিকিৎসা করানোর মতো সামর্থ নেই তাদের। তাই এখন কী করা উচিত ঠিক তা বুঝে উঠতে পারছেন না।

এ বিষয়ে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল হাসপাতালের সহকারী রেজিষ্টার ডা. মিলন বাদশা বাংলাদেশ প্রতিদিনকে জানান, শরীরের বেশ কিছু ফাংশন নষ্ট হয়ে যাওয়ার কারনে তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে না। এ অবস্থা থেকে আদৌ তাকে বাঁচানো যাবে কি না তা নিয়েও সংশয় প্রকাশ করেন তিনি।

নওগাঁ সদর মডেল থানার ওসি তরিকুল ইসলাম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, মামলা হওয়া মাত্রই অভিযুক্ত তামভি হাসান ও তার বাবা শামসুজ্জোহা খানকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আর আরেক আসামি ছেলের মা সৈয়দা তাহমিনাতুলকে গ্রেফতারে সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে।

বিডি-প্রতিদিন/এস আহমেদ

আপনার মন্তব্য

up-arrow