Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, শুক্রবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : ১৯ মে, ২০১৭ ১৭:১৫ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ১৯ মে, ২০১৭ ১৭:৫৩
বরিশালে এক দড়িতে ঝুলে প্রেমিক যুগলের আত্মহত্যা
পৃথক ঘটনায় আরেক ব্যক্তির আত্মহত্যা
নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল
বরিশালে এক দড়িতে ঝুলে প্রেমিক যুগলের আত্মহত্যা
প্রতীকী ছবি

বরিশালের মুলাদীর সফিপুর গ্রামে দুই কলেজ শিক্ষার্থী এক দড়িতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। শুক্রবার সকালে ওই গ্রামের ফরিদা বেগমের পরিত্যাক্ত ঘরের আড়ায় এক দড়িতে ঝুলন্ত অবস্থায় প্রেমিক যুগলের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

 

আত্মহত্যাকারী প্রেমিক সোহেল (১৯) সফিপুর গ্রামের মৃত দলিল উদ্দিন হাওলাদারের ছেলে এবং প্রেমিকা জান্নাতুল ফেরদৌস টিয়া (১৯) একই গ্রামের দুলাল বেপারীর মেয়ে। তারা দুই জনই উপজেলার সৈয়দ বদরুল কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থী ছিল।  

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, সোহেল ও টিয়া প্রাইমারী থেকে মাধ্যমিক এবং সর্বশেষ কলেজেও একই সাথে লেখাপড়া করে আসছিল। স্কুল থেকেই তাদের সাথে প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছে। কিন্তু এ প্রেম মেনে নিতে পারেনি টিয়ার পরিবার। এ কারণে সোহেল ও টিয়া দু’বার পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে উভয় পরিবারের লোকজন তাদের উদ্ধার করে নিজ নিজ বাড়িতে ছেলে-মেয়েকে নিয়ে যায়। এরপর বিভিন্ন মাধ্যমে টিয়ার পরিবারকে বোঝানোর চেষ্টা চলে টিয়ার সাথে সোহেলের বিয়ের বিষয়টি। কিন্তু টিয়ার বাব কোনভাবেই এ বিয়েতে রাজী হননি।  

এর জের ধরে শুক্রবার গভীর রাতের কোন এক সময় সোহেল ও টিয়া ঘর থেকে বের হয়ে পরিত্যাক্ত ওই ঘরে গিয়ে একই দড়িতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে বলে স্থানীয়দের ধারনা। সকালে গ্রামবাসী ওই ঘরে সোহেল ও টিয়ার ঝুলন্ত লাশ দেখে পুলিশে ও উভয়ের পরিবারকে খবর দেয়। এরপর পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করে।  

সোহেলের মা ফকরুন্নেছা জেদী জানান, আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেয়ার অভিযোগে টিয়ার পিতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করবেন তারা।  

মুলাদী থানার ওসি মতিউর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, উভয়ের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বরিশাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় কেউ সুনির্দিষ্ট অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।  

এদিকে একই রাতে মুলাদী উপজেলার ষোলঘর গ্রামে রফিকুল ইসলাম (২৬) নামের এক নিঃসন্তান ব্যক্তি বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন। তিনি ওই গ্রামের শাহজাহান খলিফার ছেলে।  

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, রফিক প্রথম স্ত্রীকে নিয়ে আট বছর সংসার করে। কিন্তু সন্তান না হওয়ায় তাকে তালাক দিয়ে গত দুই বছর পূর্বে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। সেই সংসারেও সন্তান না হওয়ায় রাগে ক্ষোভে সে বিষপান করে। রাতেই তাকে উপজেলা হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রফিক মারা যায়।  

মুলাদী থানার ওসি মতিউর রহমান জানান, ময়না তদন্তের জন্য রফিকের লাশ উদ্ধার করে বরিশাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।  


বিডি প্রতিদিন/১৯ মে ২০১৭/হিমেল

আপনার মন্তব্য

up-arrow