Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮

প্রকাশ : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১৬:০৮ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১৬:১৩
অধ্যক্ষ অপসারণের দাবিতে উত্তাল বাগেরহাট মেরিন ইনস্টিটিউট
শেখ আহসানুল করিম, বাগেরহাট :
অধ্যক্ষ অপসারণের দাবিতে উত্তাল বাগেরহাট মেরিন ইনস্টিটিউট

অধ্যক্ষ অপসারণের দাবিতে দ্বিতীয় দিনের বিক্ষোভে অচল হয়ে পড়েছে বাগেরহাট সদর উপজেলার বেমরতা ইউনিয়নের বৈটপুর এলাকায় অবস্থিত ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজি। অধ্যক্ষ মো. সিরাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ এনে গত রবিবার মধ্যরাত থেকে এ বিক্ষোভ শুরু হয়। দ্বিতীয় দিন মঙ্গলবার সকালে ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জন ও ইনস্টিটিউটের প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। পরে তারা একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ ও ক্যাম্পাস চত্বরে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করতে থাকে। এদিকে ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলামের অনিয়ম দুর্নীতির বিষয়ে মুখ খুলতে শুরু করেছে ইনস্টিটিউটের অন্যান্য শিক্ষকরা। তারাও অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলামের অপসারন দাবি করে শিক্ষার্থীদের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করেছেন। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মেরিন ইনস্টিটিউটের একাধিক শিক্ষক বলেন, অধ্যক্ষের অনিয়ম দুর্নীতির কারণে হোস্টেলের রুমে ভাড়ার বিনিময়ে বহিরাগত লোকদের রাখা হয়। ইনস্টিটিউটে গ্যাস বাবদ ১ লক্ষ ৮৪ হাজার টাকা বাৎসরিক বাজেট থাকা সত্ত্বেও অধ্যক্ষ জোর করে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে গ্যাস বিল দিচ্ছে। ইনস্টিটিউটে পানির প্লান্ট সম্পূর্ণ হওয়া সত্ত্বেও দুর্নীতির কারণে শিক্ষার্থীদের খাবার পানি থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ইনস্টিটিউটে ক্লিনার নিয়োগ আছে এবং তার বেতন-ভাতা প্রিন্সিপাল কর্তৃক উরত্তোলন করা হলেও ক্লিনার পদে কোন লোক নেই। এমন আরো অনেক বিষয় আছে যা এতদিন সবাই মুখ বুঝে সহ্য করেছে। তাই অধ্যক্ষের অপসারণের দাবিতে বাধ্য হয়ে সবাই বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ শুরু করেছে। 

বাপ্পিসহ আন্দোলনরত একাধিক শিক্ষার্থীরা বলেন, অধ্যক্ষ অপসারণ না করা পর্যন্ত আমাদের এ বিক্ষোভ কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে। আমাদের দাবি মানা না হলে আরো কঠোর কর্মসূচীর ঘোষণা দেয়া হবে বলেও হঁশিয়ারি দেন তারা।  

শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মুখে গা ঢাকা দেয়া অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম মঙ্গলবার বিকাল পর্যন্ত ইনস্টিটিউটে প্রবেশ করতে পারেননি। তিনি প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষসহ শহরের প্রভাবশালী নেতা ও রাজনৈতিক ব্যক্তিদের ব্যবহার করে বিষয়টি নিয়ে শিক্ষার্থীদের সাথে আপসের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে। 

এসব বিষয়ে বাগেরহাট ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজির অধ্যক্ষ মো. সিরাজুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ব্যস্ত আছেন, পরে কথা হবে বলে জানিয়ে মোবাইল ফোনটি কেটে দেন। 

বিডি-প্রতিদিন/১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮/মাহবুব

আপনার মন্তব্য

up-arrow