Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৭ এপ্রিল, ২০১৮ ১৪:৩৭ অনলাইন ভার্সন
লামায় জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্মাণ কাজে চরম অনিয়ম
বান্দরবান প্রতিনিধি:
লামায় জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্মাণ কাজে চরম অনিয়ম
bd-pratidin

বান্দরবানের লামায় জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের আওতায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৬টি ওয়াস ব্লক নির্মাণ কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। ব্লক নির্মাণে নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী (ইট, কংকর, রড) ব্যবহার, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলীর ইঞ্জিনিয়ারের অনুপস্থিতে বেইজ, পিলার ও ছাদ ঢালাই, নকশা মোতাবেক কাজ না করা, নির্মাণ কাজে অপরিস্কার বালু ব্যবহার (ছাকুনি ব্যবহার না করা) ও সময়মত কিউরিং (পানি দিয়ে ভেজানো) করা হয় না বলে জানান সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও স্কুল শিক্ষকরা।  

সরজমিনে লাইনঝিরি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ওয়াস ব্লক নির্মাণ কাজে গেলে উক্ত অনিয়মগুলো পরিলক্ষিত হয়। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা ঠিকাদারের সাথে যোগসাজসে নিম্নমানের কাজ করে এবং তড়িঘড়ি করে নির্মাণ কাজ শেষ করছে বলে জানায় স্থানীয়রা।  

জানা গেছে, লামা উপজেলায় সরকারিভাবে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রায় ৪৯ লক্ষ ২০ হাজার টাকা ব্যয়ে ৬টি আধুনিক মানের ওয়াস ব্লক নির্মাণ করা হচ্ছে। স্কুলগুলো হল, লাইনঝিরি, মেরাখোলা, রুপসীপাড়া, গজালিয়া হেডম্যান পাড়া, ফাইতং হেডম্যান পাড়া ও সরই ডলুছড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। এর মধ্যে ৫টি ওয়াস ব্লক কাজের কার্যাদেশ পায় মেসার্স মিলন কনসট্রাকসন নামে বান্দরবানের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। তবে কাজগুলো ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাথে শেয়ারে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অদিধপ্তরের সহকারী উপ-প্রকৌশলী মুজিবুর রহমান করছেন বলে লোক মুখে শুনা যায়। এতে করে কোন রকম নয়-ছয় কাজ শেষ করে বিলের অর্থ উত্তোলন করার জোর তৎপরতা চালানো হচ্ছে বলেও জানা গেছে। 

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. নুর জামাল বলেন, কাজের শুরু থেকে চরম অনিয়ন হচ্ছে। বারবার বলার পরেও তারা কথা শুনছে না। তাই বাধ্য হয়ে আজ কাজ বন্ধ করে দিতে বলেছি। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আসার পর কাজ করতে বলা হয়েছে। 

ওয়াস ব্লক নির্মাণে তদারকীর দায়িত্বে থাকা লামা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের মেকানিক নুরুল আমিন বলেন, আমাদের কাছে কোন প্রকার ডিজাইন, ম্যাপ ও কার্যাদেশ নেই। আমি শুধু ঘুরে দেখে যাই। কাজ সঠিক হচ্ছে কীনা। আপনি কিভাবে বুঝবেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সেটা আমাদের সহকারী উপ-প্রকৌশলী মুজিবুর রহমান স্যার জানেন। 

ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স মিলন কনসট্রাকসনের কর্ণধার মিলন বাবু বলেন, আমি ব্যস্ত। তাই সবসময় যেতে পারি না। ঢালাই কাজে বালু ছাকতে হয় না।  
এব্যাপারে লামা জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহকারী উপ-প্রকৌশলী মুজিবুর রহমানের সাথে মোবাইল ফোনে বার বার যোগাযাগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য দেয়া সম্ভব হয়নি। 

এই বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নুর-এ জান্নাত রুমি বলেন, বিষয়টি আমি জানতাম না। আমি সংশ্লিষ্টদের থেকে জেনে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করছি। 

বিডি প্রতিদিন/ মজুমদার

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow