Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২১ মে, ২০১৮ ২১:৪৬ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ২১ মে, ২০১৮ ২১:৪৭
কিশোরীকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে গণধর্ষণ, অতঃপর...
নাজমুল হুদা, সাভার
কিশোরীকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে গণধর্ষণ, অতঃপর...
প্রতীকী ছবি

সাভারে এক কিশোরীকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে স্থানীয় বখাটে রাজুসহ কয়েকজন গণধর্ষণ করেছে। রবিবার রাতে সাভারের হেমায়েতপুর যাদুরচর গ্রামের মতি মিয়ার বাড়িতে এ গণধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। 

পরে ভুক্তভোগী ওই কিশোরী বিষয়টি তার পরিবারের সদস্যদের জানালে পুলিশের সহযোগিতা নেয়ার চেষ্টা করেন তারা। এতে ধর্ষণকারীসহ এলাকার প্রভাবশালীরা ভুক্তভোগী ওই পরিবারকে ঘরের ভিতর আটকে রাখে এবং বিষয়টি কাউকে জানালে গ্রাম ছাড়া করার হুমকি দেয় বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বিষয়টি জানতে পেরে সাভার মডেল থানা পুলিশ ভুক্তভোগী ওই কিশোরীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। 

ভুক্তভোগী পরিবার ও থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, হেমায়েতপুর যাদুরচর এলাকার মতি মিয়ার বাড়িতে নিজের পরিবার নিয়ে ভাড়া থাকেন গ্রিল মিস্ত্রী আব্দুস সালাম। রবিবার রাতে তারাবীর নামাজের সময় মিস্ত্রি সালামের মেয়েকে বাড়িওয়ালার বখাটে ছেলে রাজু বাসার পাশে ডেকে নিয়ে যায়। পরে তার আরও দুই বন্ধুসহ তিনজন মিলে ওই কিশোরীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। 

রাতেই ভুক্তভোগী ওই কিশোরী বিষয়টি তার পরিবারকে জানালে বাবা আব্দুস সালাম দ্রুত পুলিশকে জানানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু এ ঘটনায় স্থানীয় প্রভাবশালীরা তাদেরকে ঘরের ভিতর আটকে রেখে ভয়ভীতি দেখান। এছাড়া ধর্ষণকারীদের অভিভাবকসহ স্থানীয়রা মিলে ভুক্তভোগী ওই পরিবারকে রাতেই গ্রামছাড়া করার পরিকল্পনা করে। 

বাধ্য হয়ে ভুক্তভোগী ওই কিশোরীর বাবা আব্দুস সালাম '৯৯৯' নম্বরে জাতীয় জরুরি সেবায় ফোন করে বিষয়টি জানালে ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায় পুলিশ। এরপর ওই কিশোরীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হলেও বখাটে রাজু ও তার সহযোগীরা ততোক্ষণে গা ঢাকা দেয়। 

সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহসীনুল কাদির বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, নির্যাতিতা কিশোরীকে উদ্ধার করে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে। 

এ ঘটনায় একটি মামলা দায়েরের পাশাপাশি ধর্ষণকারীদের গ্রেফতার করতে পুলিশি অভিযান অব্যাহত আছে বলেও জানান তিনি।

বিডি প্রতিদিন/২১ মে ২০১৮/এনায়েত করিম

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow