Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২২ মে, ২০১৮ ১৪:০৯ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ২২ মে, ২০১৮ ১৭:৪৬
যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় ৪ জনকে কুপিয়ে জখম
নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী:
যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় ৪ জনকে কুপিয়ে জখম

রাজশাহীর বাঘায় এক স্কুলছাত্রীকে যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকসহ ৪ জনকে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যার পর উপজেলার আলাইপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় গুরুতর জখম ছাত্রলীগের নেতা সুজনসহ অপর দুইজনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে সুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তার হাত ভেঙে দেওয়া হয়েছে। পেটে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। এখন তিনি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। চিকিৎসকরা জানান তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। 

আহতদের মধ্যে আজমল (২৬) ও সাজেদাকেও (৪৫) রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অপরজন হামিদুল হককে বাঘা উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।  এ ঘটনায় রাতেই থানায় মামলা দায়েরের পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে একজনকে গ্রেফতার করেছে। তার নাম লালন। আলাইপুর গ্রামের বাশের সরদারের ছেলে সে। এ ঘটনায় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তিনি অবিলম্বে অপরাধীদের গ্রেফতারের জন্য বাঘা থানা পুলিশকে নির্দেশ দেয়েছেন। 

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলার সীমান্ত সংলগ্ন আলাইপুর গ্রামে আবদুর রাজ্জাকের বখাটে ছেলে সবুজ হোসেন একই এলাকার অষ্টম শ্রেণীতে পড়য়া এক ছাত্রীকে প্রায় যৌন হয়রানি ও বিভিন্নভাবে উত্ত্যক্ত করে আসছিলো। সর্বশেষ এ বিষয়ে সোমবার ইফতারের পর ছাত্রলীগ নেতা সুজন এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলতে গেলে প্রতিপক্ষের একদল লোকজন বখাটে সবুজের নেতৃত্বে সুজনের ওপর হামলা চালায়। হামলাকারীরা সবাই জামায়াত বিএনপির সমর্থক বলে জানা গেছে। তারা প্রথমে ছাত্রলীগ নেতা সুজনের ওপর লাঠি-সোঠা ও ছুরি নিয়ে হামলা চালায়। এতে তার বাম হাত ভেঙে যায়। পরে তার বুকে ও পিঠে ছুরিকাঘাত করা হয়। পরে তাকে উদ্ধারে এগিয়ে আসলে আজমল, সাজেদা ও হামিদুলের উপর হামলা চালানো হয়। পরে এলাকাবাসী এসে তাদের উদ্ধার করে রাতেই উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করে। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে সুজন, আজমল ও সাজেদাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। 

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক হাবিবুল্লাহ জানান, সুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখে তাকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। অন্যদের অবস্থা আশঙ্কামুক্ত বলেও তিনি জানান। 

বাঘা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হীরেন্দ্রনাথ প্রামাণিক জানান, এই বিষয়ে রাতেই বখাটে সবুজ, লাল মোহাম্মদ, সাদ্দাম, মাইনুল, মাহাবুর, লালন, তৌফিকুল, ইস্রাপিল, সনি, রবিসহ অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে। রাতেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে লালন নামের একজনকে গ্রেফতার করেছে। অন্যদের গ্রেফতারে পুলিশ মাঠে নেমেছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

বিডি প্রতিদিন/মজুমদার

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow