Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৫ আগস্ট, ২০১৮ ২০:০৭ অনলাইন ভার্সন
শোক দিবসের অনুষ্ঠানে পৃথক সংঘর্ষে আহত ১৭
নাটোর প্রতিনিধি:
শোক দিবসের অনুষ্ঠানে পৃথক সংঘর্ষে আহত ১৭
bd-pratidin

নাটোরের বড়াইগ্রামে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত শোক সভায় অংশগ্রহণ করতে আসা নেতাকর্মীদের ওপর দলীয় প্রতিপক্ষের হামলায় কমপক্ষে ১০ জন আহত ও ১০টি মোটরসাইকেল ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া অপর এক আলোচনা সভায় সিটে বসাকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আরো ৭ জন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় এক ছাত্রলীগ নেতাকে আটক করেছে পুলিশ। 

জানা যায়, আজ বুধবার বিকালে বড়াইগ্রাম পৌরসভা চত্ত্বরে পৌর যুবলীগের উদ্যোগে শোক সভার আয়োজন করা হয়। সভায় উপজেলা চেয়ারম্যান জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন। এ শোক সভায় যোগদানের জন্য জোনাইল ও চান্দাই ইউনিয়ন থেকে নেতাকর্মীরা মোটরসাইকেল শোডাউন নিয়ে উপজেলার রোলভা এলাকায় আসলে অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস এমপি সমর্থক বলে পরিচিত সাইফুল ইসলাম মেম্বারের নেতৃত্বে ১৫-২০ জন যুবক লোহার রড, হাতুড়ি ও লাঠিসোটা নিয়ে তাদের উপর হামলা করে। এ ঘটনায় চান্দাই ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আতাউর রহমান জিন্নাহ, চান্দাই ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম ইন্তাজ, জোনাইল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আযাদ, সহ-সভাপতি মাহতাব উদ্দিন মাষ্টার, আওয়ামী লীগ কর্মী নজু খাঁ, ইসরাইল হোসেন, মেহেদী হাসান, মমিন আলী, ফরহাদ হোসেন, যুবলীগ নেতা মিন্টু আহত হন।  পরে আহতদের মধ্যে সাত জনকে বড়াইগ্রাম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। 

অপরদিকে, সকালে বড়াইগ্রাম সরকারি কলেজের আলোচনা সভায় চেয়ারে বসাকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ৭ জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে ছাত্রলীগ কর্মী হাসানুজ্জামান শিপন (১৯), উপজেলা ছাত্রলীগের সদস্য মাসুদ রানা (২০) ও শাহীন আলমকে (২০) বড়াইগ্রাম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরে কলেজের অধ্যক্ষের অভিযোগের ভিত্তিতে হাসানুজ্জামান শিপনকে হাসপাতাল থেকে আটক করেছে পুলিশ। 

কলেজ সূত্রে জানা যায়, আজ বুধবার সকালে শিপন ৪-৫ জন বহিরাগত নিয়ে কলেজ চত্বরে শোক দিবসের মঞ্চে গিয়ে শিক্ষকদের জন্য নির্ধারিত চেয়ারে বসে।সেখানে উপস্থিত মাসুদ রানা তাদেরকে শিক্ষকের চেয়ার ছেড়ে দিতে বললে তাদের মধ্যে বিতর্ক বাধে। এর এক পর্যায় শিপন উত্তেজিত হয়ে মাসুদের উপর আক্রমণ চালায়। এ সময় অন্যরা এগিয়ে এলে সংঘর্ষ বাধে। এতে মাসুদ, শিপনসহ অন্তত ৭ জন আহত হয়। 

বড়াইগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দিলিপ কুমার দাস বলেন, খবর পেয়ে কলেজ চত্বরে টহল পুলিশ পাঠানো হয়েছে। পরিস্থিতি এখন শান্ত রয়েছে। অধ্যক্ষের মৌখিক অভিযোগে শিপন নামে এক ছাত্রকে আটক করা হয়েছে। এছাড়া বিকালের ঘটনায় পুলিশ যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। 

বিডি প্রতিদিন/মজুমদার

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow