Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২০ আগস্ট, ২০১৮ ০৭:৫৭ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ২০ আগস্ট, ২০১৮ ১৩:০৫
পাবনায় ৬ তলা ভবনে আগুন
পাবনা প্রতিনিধি
পাবনায় ৬ তলা ভবনে আগুন
প্রতীকী ছবি

পাবনায় মধ্য শহরে সাত্তার বিশ্বাস মার্কেট ও অ্যাপার্টমেন্টে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। আজ সোমবার ভোর ৫টার দিকে ভবনের নিচতলা থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। 

শহরের আব্দুল হামিদ সড়কের বহুতল বাণিজ্যিক ভবনটিতে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যাংক, বাণিজ্যিক শো রুম, রেস্তোরাঁসহ বিভিন্ন বিপনী বিতার রয়েছে। 

অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ছয়জন আহত হয়েছেন বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান। ফায়ার সার্ভিসের ৫টি ইউনিট প্রায় ৪ ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে কি পরিমাণ আর্থিক ক্ষতি হয়েছে তা নিরূপনে চেষ্টা চলছে।

পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) জালাল উদ্দিন জানান, ভোর ৫টার দিকে সাত্তার বিশ্বাস ভবনের নিচতলা থেকে আগুন লেগে দ্রুত উপরের দিকে ছড়িয়ে পড়ে। জেলা প্রশাসন ও পুলিশের তত্ত্বাবধানে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের প্রচেষ্টায় আটকে পড়া ৫ ব্যক্তিকে নিরাপদে বের করে আনা হয়েছে। তবে ভবনটির অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা দুর্বল হওয়ায় আগুন নিয়ন্ত্রণে সময় বেশি লেগেছে।

তবে, অগ্নিনির্বাপণে ফায়ার সার্ভিসের অদক্ষতার অভিযোগ করেছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, বড় ধরণের অগ্নি দুর্ঘটনায় পাবনার ফায়ার সার্ভিস কতটা অদক্ষ তার প্রমাণ আজ আমরা পেলাম। অল্প সময়ের মধ্যেই তাদের পানি শেষ হয়ে যায়। এরপর পানির ব্যবস্থা করতে সময়ক্ষেপণে আগুনে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ বেড়ে গেছে। 

তারা আরও অভিযোগ করে বলেন, বহুতল এই ভবনে গুরুত্বপূর্ণ বেশ কিছু ব্যাংকের শাখা রয়েছে, সেখানে রেস্তোরাঁঁ রান্নাঘর কিভাবে থাকে সেটাই বিস্ময়কর ব্যাপার। 

ওই ভবনের ২য় তলার মুদ্রন ব্যবসায়ী তৌহিদুল ইসলাম বলেন, ভবনের দোতলায় আমার প্রায় কোটি টাকার সম্পদ রয়েছে। কি অবস্থায় আছে কিছুই বুঝতে পারছি না। তবে ফায়ার সার্ভিসের অদক্ষতার কারণে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সময় লেগেছে। মনে হয় আমার সব শেষ হয়ে গেছে।

ব্যবসায়ী ও জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক কামিল হোসেন বলেন, এই ভবনটির কোনো প্রকার অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থা তো দূরে থাক জরুরিভাবে বহিঃনির্গমনের ব্যবস্থাও নেই। এছাড়া রেস্টুরেন্টের মতো ব্যবসায়ীদের ভাড়া দিয়েছে। সেখানে থাকা ফাস্ট ফুড ও চাইনিজ রেস্টুরেন্টের রান্না ঘর থেকেই এই অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়েছে। 

উপস্থিত একাধিক উৎসুক জনতাও বনলতার রান্না ঘর থেকে এই আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলে দাবি করেন। 

তবে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স পাবনার সহকারী পরিচালক এম সাইফুল ইসলাম বলেন, তাৎক্ষণিকভাবে বলতে পারছি না কোথা থেকে এই আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। তবে ক্ষয় ক্ষতি কয়েক কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে বলে তিনি ধারণা করেন।  

পাবনার পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলাম বলেন, পুলিশ ও সাধারণ মানুষের সহযোগিতায় প্রায় চার ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। বেশ কয়েকটি ব্যাংক ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান থাকায় আমরা সর্বোচ্চ নিরপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছি। আহতদের উদ্ধার করে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।  

পাবনা জেলা প্রশাসক মো. জসিম উদ্দিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে বলেন, ফায়ার সার্ভিস এবং জেলা প্রশাসন ঘটনার তদন্তে নেমেছে। অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় কারও গাফিলতির প্রমাণ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বিডি প্রতিদিন/এনায়েত করিম

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow