Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৫:৫৫ অনলাইন ভার্সন
নাটোরে সরকারি জায়গা দখল করে ছাত্রলীগ নেতার দোকান নির্মাণ
নাটোর প্রতিনিধি

নাটোরে সরকারি জায়গা দখল করে ছাত্রলীগ নেতার দোকান নির্মাণ

নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলার খাজুরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মিনাজুল আবেদিন মিঠুনের বিরুদ্ধে কৃষি বিভাগের জায়গা দখল করে দোকান ঘর নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার খাজুরা বাজারের প্রবেশ মুখে কৃষি বিভাগের পরিত্যক্ত গোডাউনের জায়গা দখল করে গত শনিবার থেকে খাজুরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মিনাজুল আবেদিন মিঠুন টিনের বেড়া ও টিনের চালা দিয়ে দোকান ঘর নির্মাণ কাজ শুরু করে। স্থানীয় কৃষি বিভাগের নিষেধ অমান্য করে ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে তিনি নির্মাণ কাজ অব্যাহত রেখেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা যায়, উপজেলার খাজুরা ইউনিয়নের খাজুরা বাজারের প্রবেশ মুখে খাজুরা মৌজায় ৩ নং খতিয়ানের ৩০৫৪ দাগে মোট ৮ শতক জমির উপর অনেক আগের কৃষি বিভাগের একটি গোডাউন ঘর ছিল। বর্তমানে গোডাউন ঘরটি ব্যবহারের অনুপযোগী হওয়ায় তা পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। আর এই সুযোগে স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি ওই জায়গা দখল করে বিভিন্ন স্থাপনা তৈরি করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলে। পরে বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় কৃষি বিভাগের নামে থাকা জায়গায় অবৈধভাবে গড়ে উঠা স্থাপনাগুলো উচ্ছেদ করে প্রশাসন। কিন্তু পরে আবারও জায়গাটা দখল করে স্থাপনা তৈরির কাজ শুরু করে স্থানীয় প্রভাবশালীরা। তাদের দেখাদেখিতে গত শনিবার থেকে টিনের বেড়া টিনের চালা দিয়ে দোকান ঘর নির্মাণ শুরু করে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মিনাজুল আবেদিন মিঠুন ও তার তিন ভাই মকসেদ, মতিন ও মকলেছ। 

এ ব্যাপারে মিনাজুল আবেদিন মিঠুন জানান, আমি খাজুরা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান ও নাটোর ২ আসনের সাংসদের শফিকুল ইসলাম শিমুলের অনুমতি নিয়ে দোকান ঘর নির্মাণ করছি।

খাজুরা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান অনুমতি দেয়ার কথা অস্বীকার করে জানান, সাংসদ তো দূরের কথা কোন জনপ্রতিনিধি সরকারী জমি দখলের অনুমতি দিতে পারে না। ছাত্রলীগ নেতাকে কৃষি বিভাগের জায়গায় দখল করে দোকান ঘর নির্মাণের অনুমতি দেওয়ার প্রশ্নই উঠে না। তবে নলডাঙ্গা উপজেলা কৃষি অফিসার আমাদের ইউনিয়ন পরিষদে এসে জায়গাটি দখল বন্ধের সহযোগিতা চেয়েছিল, আমি বলেছি আপনারা উচ্ছেদের উদ্যোগ নেন আমি সহযোগিতা করবো।

এ ব্যাপারে নাটোর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ রফিকুল ইসলাম জানান, খাজুরার ওই জায়গাটি কৃষি বিভাগের। সেটি দখলমুক্ত করতে সব ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হচ্ছে।

বিডি-প্রতিদিন/২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮/মাহবুব

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow