Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১১ অক্টোবর, ২০১৮ ১৪:১৮ অনলাইন ভার্সন
টেকনাফে ইয়াবাসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ী আটক
আব্দুস সালাম, টেকনাফ (কক্সবাজার)
টেকনাফে ইয়াবাসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ী আটক

কক্সবাজারের টেকনাফে বিজিবি'র পৃথক অভিযানে ২৪ হাজার ২২২ পিস ইয়াবাসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ী আটক হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যায় টেকনাফ ২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধীনস্থ নাজিরপাড়া বিওপির নায়েব সুবেদার মো. আব্দুল মান্নানের নেতৃত্বে বিশেষ টহল দল এ অভিযান চালায়।  

আটকদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করা হয়েছে। 

জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সাবরাং মন্ডল পাড়ায় অভিযান চালিয়ে সুপারি বাগানের ভেতর একজন লোক দেখতে পায় বিজিবি। এসময় টহল দলের উপস্থিতি টের পেয়ে ইয়াবা পাচারকারী দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে। টহল দলও ধাওয়া করে পলিথিন দ্বারা মোড়ানো ইয়াবা ভর্তি একটি প্যাকেটসহ এক ব্যক্তিকে আটক করতে সক্ষম হয়। পরে প্যাকেটটি খুলে গণনা করে ৩৯ লাখ ৬৯ হাজার ৯ শত টাকা মূল্যমানের ১৩ হাজার ২৩৩ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট পাওয়া যায়। 

আটক মো. হেলাল উদ্দিন (৩০) সাবরাং ইউনিয়নের মন্ডল পাড়া এলাকার নুরুল ইসলামের ছেলে বলে জানা গেছে। পরে তাকে ইয়াবাসহ ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করা হলে ১ বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়। 

এছাড়া একই দিনে দমদমিয়া বিওপির সুবেদার মো. আব্দুর রাজ্জাক বিশ্বাসের নেতৃত্বে একটি টহল দল যানবাহন তল্লাশি কাজে নিয়োজিত ছিল।টেকনাফ হতে কক্সবাজারগামী স্পেশাল সার্ভিস একটি মিনিবাস দমদমিয়া বিজিবি চেকপোস্টে পৌঁছলে টহলদল সিগন্যাল দিয়ে থামায়। বাসটি তল্লাশিকালীন দুইজন যাত্রীর আচরণ সন্দেহ হওয়ায় তাদের ব্যাগসহ বাস থেকে নামিয়ে তল্লাশি করে শুটকি মাছের নিচে অভিনব পদ্ধতিতে লুকায়িত অবস্থায় ইয়াবা ভর্তি প্যাকেট পায়। পরে খুলে গণনা করে ৩২ লাখ ৯৬ হাজার ৭শ টাকা মূল্যমানের ১০ হাজার ৯শ ৮৯ পিস ইয়াবা জব্দ করে। এসময় মুন্সীগঞ্জ জেলার লৌহজং থানার কাজির পাড়ার গোয়াল মান্দার মো. আলমাছের ছেলে মো. শাকিল (৩৫) এবং মৃত আবুল হোসেনের ছেলে মো. সোহেলকে (৩২) আটক করতে সক্ষম হয়। 

ইয়াবা ট্যাবলেট রাখার দায়ে আটক আসামিদের ৯০ পিস ইয়াবাসহ ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করা হলে উভয়কে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়। অবশিষ্ট ১০ হাজার ৮৯৯ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট পরবর্তীতে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করার জন্য ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে। 

অপরদিকে, সাজাপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের কারাগারে প্রেরণের জন্য টেকনাফ মডেল থানায় সোর্পদ করা হয়েছে।

বিডি প্রতিদিন/এনায়েত করিম

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow