Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২২:৩৯

বাঘায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান হচ্ছেন লাভলু

আটজনের প্রার্থীতা প্রত্যাহার

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী:

বাঘায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান হচ্ছেন লাভলু

রাজশাহীর বাঘা উপজেলায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা অ্যাডভোকেট লায়েব উদ্দিন লাভলু। মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে বাঘা উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আবদুল্লাহ আল মামুন ও জাতীয় পার্টির সামশুদ্দিন রিন্টু তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিলে লাভলু একক প্রার্থী হন।

এর আগে ১০ ফেব্রুয়ারি মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী অ্যাডভোকেট লায়েব উদ্দিন লাভলু, বাঘা উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আবদুল্লাহ আল মামুন, জাতীয় পার্টির সামশুদ্দিন রিন্টু ও জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেরাজুল ইসলাম মেরাজ মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। কাগজপত্রে ত্রুটি থাকায় মেরাজের মনোনয়নপত্র বাতিল করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। আপিলেও তা বহাল থাকে। আর মঙ্গলবার বৈধ প্রার্থী মামুন ও রিন্টু তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। ফলে একক প্রার্থী হিসেবে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন লাভলু।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান, বাঘা উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে চারজন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। যাচাই-বাছাইয়ে মনোনয়নপত্র বাতিল হয়ে যায় স্বতন্ত্র প্রার্থী মেরাজুল ইসলাম মেরাজের। আর শেষ দিনে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেন স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল্লাহ আল মামুন ও সামশুদ্দিন রিন্টু। ফলে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী লায়েব উদ্দিন লাভলুর কোন প্রতিদ্বন্দ্বি থাকলো না।

এদিকে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন থেকে রাজশাহীর তিন চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ আটজন সরে দাঁড়িয়েছেন। মঙ্গলবার তারা নিজেদের মনোনয়নপ্রত্র প্রত্যাহার করে নেন। মঙ্গলবারই ছিল মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। রাজশাহীর পুঠিয়া, বাঘা, তানোর ও দুর্গাপুর উপজেলার রিটার্নিং কর্মকর্তা এবং অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক জুলকার নায়ন ও বাগমারা, গোদাগাড়ী, মোহনপুর ও চারঘাট উপজেলার রিটার্নিং কর্মকর্তা এবং জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সাইফুল ইসলামের কাছ থেকে প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেন।

চেয়ারম্যান পদের যারা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন তারা হলেন, পুঠিয়ার স্বতন্ত্র প্রার্থী মোখলেসুর রহমান মন্টু, বাঘা উপজেলার বিএনপি নেতা আবদুল্লাহ আল মামুন, জাতীয় পার্টির সামশুদ্দিন রিন্টু ও বাগমারার বিএনপি নেতা ডিএম জিয়াউর রহমান। ভাইস-চেয়ারম্যান পদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেছেন বাঘার মোখলেসুর রহমান মুকুল ও মহিদুল ইসলাম। এদের মধ্যে মুকুল উপজেলা বিএনপির নেতা।

মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান পদের নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন বাঘার প্রার্থী ফারহানা দিল আফরোজ রুমি ও মোহনপুরের নাজমা বিবি। মোহনপুরেও এখন একমাত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগের আবদুস সালাম। যাচাই-বাছাইকালে তিন প্রতিদ্ব›দ্বী প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়ে যাওয়ায় একক প্রার্থী থাকেন সালাম। এ উপজেলার মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান প্রার্থী নাজমা বিবি মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করায় একক প্রার্থী হয়ে গেলেন সানজিদা রহমান। এছাড়া বাগমারা বর্তমান মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান নাসিমা আক্তার বাবুলেরও কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী নেই।

রিটার্নিং কর্মকর্তা জুলকার নায়ন ও সাইফুল ইসলাম জানান, বুধবার প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ করা হবে। তারপর যেসব প্রার্থীর প্রতিদ্বন্দ্বী নেই তাদের ব্যাপারে ঢাকায় নির্বাচন কমিশনকে জানানো হবে। সেখান থেকে তাদের বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করা হবে।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল

 


আপনার মন্তব্য