Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮

মনের খোরাক বই

অমর একুশ স্মরণে আজ জমছে বইয়ের মেলা, বইপ্রেমীদের ভিড় জমেছে কাটায় সারাবেলা।   নতুন নতুন বই এসেছে গ্রন্থমেলা জুড়ে, সব শিশুরা মেলায় ঘোরে গল্প, ছড়ার সুরে।   বাবা-মায়ের সাথে শিশু- কিনছে নতুন বই, গল্প, ছড়ার সে বই কিনে খুশিতে হইচই।   বইমেলা যে স্বপ্নচূড়া দিচ্ছে মনে পাড়ি, মনের খোরাক সে বই কিনে ফিরছে সবাই বাড়ি।
বইমেলা

বইমেলা

বইমেলা গেলে দেখি গাদা গাদা বই বই দেখে বই কিনি পড়ে খুশি হই। বইমেলা ভাল লাগে চারিদিকে ভীড় সকলেই খুঁজে পাই যেন এক নীড়।…

ছড়িয়ে পড়ি

বাঙলা ভাষায়— ছাগল ডাকে ম্যা ভেড়া ডাকে ভ্যা কুকুর ডাকে ঘেউ ভেবেছেন কি কেউ?   বাঙলা ভাষায়— গরু ডাকে হাম্বা কাক ডাকে কা কা  কোকিল ডাকে কুহু এরা ভাষা ছাড়তে পারে? উঁহু   বাঙালিরা কেমনে ছাড়ে বাঙলা ভাষা বল, ছড়িয়ে দিতে এই ভাষা ছড়িয়ে পড়ি চল।

ইচ্ছে যতো

ইচ্ছে করে দোরটি খুলে মনের সুখে ঘুরতে, পাখির মতো মুক্ত হয়ে আকাশ পানে উড়তে।   ইচ্ছে করে কোকিল সুরে গলা ছেড়ে গাইতে, ইচ্ছে করে মাঝির সাথে বৈঠাও-যে বাইতে।   ইচ্ছে করে সাগর পানে সাঁতার কেটে নাইতে, ইচ্ছে করে সকল ঋতুর সুবাস মনে পাইতে।   ইচ্ছে করে সবার আগে রোজ সকালে উঠতে, ইচ্ছে করে সকাল সন্ধ্যা ফুলও হয়ে ফুটতে।   ইচ্ছে…

বন্ধু

ফুড়ুৎ ফুড়ুৎ উড়ছে চড়ুই বসছে গাছের মগডালে, “এ্যাই” পাখিটা করছোটা কি পড়া ফেলে সক্কালে।   তোমায় বুঝি মা বকে না করতে হয় না হোমটাস্ক, ম্যাম বুঝি এমনি এমনি দিয়ে দেয় ফুল-মার্কস।   তোমার তো ভাই ভারি মজা খেলে বেড়াও সারাটা দিন, আমার তুমি বন্ধু হবে? খেলবো দুজন ছুটির দিন।

সত্যি তারা ধন্য

বাংলা ভাষার মান বাঁচাতে ছিলেন সবাই শক্ত, দিলেন ঢেলে দুপুর বেলা বুকের তাজা রক্ত।   প্রাণের মাঝে করল আঘাত যায়না মানা আর তো, রাখবো মায়ের মুখের ভাষা এটাই আসল স্বার্থ।   পারবে নাকি বাংলা ছাড়া অন্য কিছু ধরতে? লড়তে চলো সবাই মিলে থাকবো কেন গর্তে?   এমন ভেবে রক্ত দিলেন বাংলা ভাষার জন্য, সফল তারা এই জীবনে সত্যি তারা…

লিখতে পারো তুমিও

ছোট্ট বন্ধুরা, তোমাদের জন্যই এই আয়োজন। ছড়া-কবিতা-গল্প লিখে পাঠাও আমাদের ঠিকানায়। সঙ্গে ঠিকানা দিও। ঠিকানা : বিভাগীয় সম্পাদক, ডাংগুলি বাংলাদেশ প্রতিদিন প্লট নং- ৩৭১/এ, ব্লক-ডি বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, ঢাকা ইমেইল : danguli71@gmail.com
up-arrow