Bangladesh Pratidin

শরৎকাল

শরতকালে ভোর সকালে শিশির ঝরে ঘাসে সুয্যিমামা পুবাকাশে ঝিলিক মেরে হাসে।   আমন ধানের মাঠে মাঠে সজীবতা ভাসে মৃদু হাওয়া ঢেউ তুলে যায় নদীর তীরে কাশে।   ঝকঝকে ঐ নীল আকাশে সাদা মেঘের ভেলা সকাল থেকেই দৌড়াদৌড়ি আরো নানান খেলা।   আকাশ জুড়ে মেঘবালিকা সাঁতরে বেড়ায় জোরে নীল-সাদা গায় শাড়ি পরে সারাটা দিন ঘোরে।
ইঁদুর ছানা

ইঁদুর ছানা

গাঁয়ে থাকে ইঁদুর ছানা মায়ের কাছে বায়না, চড়বে বিমান ঘুরতে যাবে দূরের দেশ ঐ চায়না।   চায়না গিয়ে করবে বিয়ে আনবে ঘরে লক্ষ্মী,…

আলোর পাখি

আলোর পাখি আলোর পাখি তোমায় বাসি ভালো; আলোর পাখি রাতের বুকে জ্বালাও মধুর আলো।   আলোর পাখি মিটিমিটি জ্বলে তোমার বুক; তোমায় দেখে দুচোখ জুড়াই মনে জাগে সুখ।   আলোর পাখি সারা নিশি থাকো তুমি জেগে; আলোর পাখি যাও না ছুটে ঝড়-তুফানের বেগে।   আলোর পাখি আলোর পাখি নামটি তোমার কি? বন্ধুরা সব মজা করে বলছে জোনাকি!

ঝিঁঝিঁপোকার দল

ঝোঁপঝাড়েতে ঝিঁঝিঁপোকা আরো নানান পাখি পাতার সারাটাক্ষণ করে ডাকাডাকি।   ঝিঁ ঝিঁ ঝিঁ ঝিঁ আওয়াজ করে এদিক ওদিক ছোটে, আওয়াজ শুনে ছোট্ট খোকা ঘুম থেকে রোজ ওঠে।   দিনের বেলায় ঘুমে থাকে ঝিঁঝিঁপোকার দল, সন্ধ্যে বেলায় ডুবলে রবি পায় যে সবে বল।   উড়ে উড়ে খেলা করে গুনগুনিয়ে কয়, গান শুনিয়ে মুগ্ধ করি ধরার লোকালয়।

শরৎ আসে

আষাঢ় শ্রাবণ বিদায় দিয়ে শরৎ আসে নীড়ে মাঝি মাল্লা পাল গুছিয়ে ফিরে চলে তীরে।   নদীর তীরে ভেসে বেড়ায় কাশফুলের রং শরৎ আসে প্রকৃতিজুড়ে নিয়ে নানা ঢং।   শরৎ আসে ছড়িয়ে দিতে শিউলি ফুলের ঘ্রাণ কাশফুলের শুভ্র হাসিতে প্রকৃতি জুড়ায় প্রাণ।

জেলে

নদীর মাঝে সকাল সাঁঝে জালটি তারা মেলে, নৌকা নিয়ে মাছ ধরতে যায় পেশায় তারা জেলে।   বিলের জলে, সাগর জলে কিংবা নদীর বাঁকে, জালটি ছুড়ে মেরে সে মাছ ধরে ঝাঁকে ঝাঁকে।   ইলিশ, চিংড়ি, বোয়াল ধরে ধরে পুঁটি, শোল বা কৈ, পাবদা, ট্যাংরা, মাগুর ধরে ধরে কাতলা কিংবা রুই।   মাছ ধরে সেই ঝুড়ি কাঁধে যায় সে নদীর ঘাটে, মাছগুলোকে বিক্রি…

লিখতে পারো তুমিও

ছোট্ট বন্ধুরা, তোমাদের জন্যই এই আয়োজন। ছড়া-কবিতা-গল্প লিখে পাঠাও আমাদের ঠিকানায়। সঙ্গে ঠিকানা দিও। ঠিকানা : বিভাগীয় সম্পাদক, ডাংগুলি বাংলাদেশ প্রতিদিন প্লট নং- ৩৭১/এ, ব্লক-ডি বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, ঢাকা ইমেইল : danguli71@gmail.com
up-arrow