Bangladesh Pratidin

শরৎ এলো

শরৎ এলো

নীলাকাশে মেঘের ভেলায় শরৎ এলো ভেসে, নদীর তটে, বালুর চরে কাশবনেতে হেসে।   শিউলিতলায় ফুল ঝরে হয় সুবাসিত ভোর, শাপলা-শালুক,…
দাদুর স্মৃতি

দাদুর স্মৃতি

ঐযে দেখো আমবাগানে একটি কুঁড়েঘর, ভেঙ্গেচুরে বাঁশের খুঁটি পড়ে আছে খড়।   সেই ঘরেতে থাকতো দাদু খেলতো আমার সাথে, ঘুম পাড়াতে…

মেঘ ও কাশফুল

পরতে পরতে মেঘ উড়ে শরতে সাদা সাদা ছোপছোপ নীলে নীল আকাশে রঙ রঙে আঁঁকা যে মেঘে মেঘ ফেলে টোপ।   হাওয়া ছুটে হুড়মুড় মেঘ ভাঙ্গে চুড়মুড় ঝুপঝাপ বৃষ্টি ফুল ফুল দুলদুল কাশফুল তুলতুল অপরূপ সৃষ্টি।   ভেসে ভেসে যায় মেঘ কাশফুল চেয়ে দেখ দুলেদুলে ডাকছে মেঘ ফুলে মিতালী সুর তুলে গীতালি শরতকে আঁঁকছে।

চাঁদের দেশে

খোকন যাবে চাঁদের দেশে পঙ্খিরাজের পিঠে আকাশ দেখে বাতাস দেখে দেখে তাদের ভিটে।   যাওয়ার পথে হঠাৎ করে পরীর রাণীর দেখা খোকন প্রথম ভয় পেয়েছে তাই বলে সে একা।   পরীর রাণী আদর করে ডেকে নিলো রাজ্যে কত্ত কিছু পেয়ে খোকন আত্মহারা আজ যে।   চারিদিকে নীল পরীরা ঘুরছে নেচে গেয়ে। মুগ্ধ খোকন আপ্যায়নে হরেক খাবার পেয়ে।

আমরা শিশু

আমরা শিশু নতুনকুঁড়ি আমরা সতেজ ফুল মুখে সদা সদ্য বলি নেইতো কোন ভুল।   আমরা শিশু ন্যায়ের আলো আমরা সতেজ প্রাণ জ্ঞানের আলোর পরশ নিয়ে গাইবো সাম্যের গান।   আমরা শিশু আগামীর পথ আমরা সতেজ বার্তা গড়বো একদিন সোনার বাংলা হবো দেশটির কর্তা।

ধানের মাঠে

ওরে খোকা, ওরে খুকি কইরে তোরা কই? পোটলা ভরা ধান কুড়িয়ে আনলে বুঝি খই।   ঐ মাঠেতে রঙিন ঘুড়ি উড়ে শত শত, সাঁঝের বেলায় খেলা করে আছে শিশু যত।   ঐ মাঠেতে গরু চড়ায় রাখাল ছেলে এসে, রাখালীরা চড়ুইভাতি খেলে বেলা শেষে।   ঐ মাঠেতে জমবে এবার প্রজাপতির মেলা, তাদের কথায় গল্পে-গানে পেরিয়ে যাবে বেলা।
up-arrow