Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১২ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১২ জুলাই, ২০১৬ ০০:০৬
ধর্মতত্ত্ব
বছরজুড়ে চলুক সংযমের শিক্ষা
মাওলানা সেলিম হোসাইন আজাদী
বছরজুড়ে চলুক সংযমের শিক্ষা

আকাশে ভাসছে শাওয়ালের চাঁদ। বিদায় নিয়েছে পবিত্র মাহে রমজান। সংযম, ত্যাগ, অনাহার ও ইবাদত পালনের মাধ্যমে রমজানকে বিদায় জানিয়েছে মুমিনরা। দীর্ঘ এক মাস আল্লাহপ্রেমের পরিচয় দিয়েছে মুমিনের হৃদয়। ইবাদত ও সংযমের এ শিক্ষা ইমানদারদের জন্য শুধু এক মাসের জন্য নয়, রমজান একটি বিশেষ উপলক্ষ মাত্র। রমজানকে কেন্দ্র করে মহান আল্লাহ তাঁর অফুরন্ত ভাণ্ডার খুলে দেন বান্দার জন্য। তাই পরবর্তী ১১ মাস রমজানের শিক্ষাকে ধরে রাখা প্রতিটি মুসলমানের জন্য অত্যন্ত জরুরি। রোজার আত্মিক দিকটি সারা বছরই পালন করতে হবে। সংযমের চর্চা প্রয়োজন রোজার মাসের মতো সারা বছরই। সুদ, ঘুষ, দুর্নীতি, মিথ্যাচার, পরচর্চা, অপবাদ, হিংসা, লালসা ইত্যাদি বর্জন রমজানের মতো রমজান-পরবর্তী জীবনেও অব্যাহত রাখতে হবে। মিতব্যয়িতা ও পরিমাপ-বিধি বজায় রেখে চলার নির্দেশ সারা বছরের জন্য একই। প্রতিটি মাসেই সব আমল এমন হওয়া উচিত, যেন সে রমজান মাসই অতিবাহিত করছে। মুমিনের ১২ মাসই রমজান। রমজানে প্রতি ওয়াক্তের নামাজ, তারাবি, ইফতার, সাহরি, ইতিকাফসহ যাবতীয় ইবাদতের মতো নিয়মিতভাবে প্রতি ওয়াক্ত নামাজসহ রোজা পালন করবে এবং নফল নামাজ আদায় করবে। তবেই আল্লাহর পক্ষ থেকে অব্যাহত থাকবে অফুরন্ত রহমত, বরকত ও মাগফিরাত। রমজানের রুটিন বাস্তবায়ন করে সারা বছর চললে রয়েছে তার সুফলও। আমলের এ ধারা সারা বছর ধরে রাখতে পারাটাই রমজানের শিক্ষা। রমজানের শিক্ষাগুলো সারা বছর ধরে রাখাই রমজানের অন্যতম উদ্দেশ্য। আল্লাহতায়ালা কোরআনুল কারিমে বলেন, ‘মৃত্যু আসা অবধি তোমার প্রতিপালকের ইবাদত করতে থাক। ’ (সূরা হিজর : আয়াত ৯৯)। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, ‘আল্লাহর কাছে সবচেয়ে পছন্দনীয় আমল হচ্ছে সেই আমল, যা নিয়মিত করে যাওয়া হয়; যদিও বা তার পরিমাণ কম হয়। ’ শুধু এক মাস ইবাদত করে বাকি ১১ মাস নাফরমানি আল্লাহর কাছে পছন্দনীয় নয়। মূল্যহীন রমজানের আমল। মুমিনের প্রতিটি মুহূর্তই কাটবে আল্লাহর ধ্যানে। যদিও অল্প আমলের মাধ্যমে হোক। হুজুর (সা.) বলেন, ‘অল্প আমল মুমিনের জন্য যথেষ্ট। ’ তবে থাকতে হবে আমলের ধারাবাহিকতা। সারা বছর নামাজ, রোজা, জিকির-আজকার ও কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে পরিচয় দিতে হবে প্রকৃত মুমিনের। তবেই হবে রমজানের সার্থকতা। পাশাপাশি রমজানের শিক্ষা সমাজে বয়ে আনবে সুফল। পাপ-পঙ্কিলতামুক্ত সমাজ গড়তে রমজানের শিক্ষা বাস্তবায়ন অতি জরুরি।

লেখক : বিশিষ্ট মুফাসসিরে কোরআন ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব

এই পাতার আরো খবর
up-arrow