Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, সোমবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : বুধবার, ২০ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৯ জুলাই, ২০১৬ ২৩:৪২
ট্যানারি স্থানান্তর প্রসঙ্গ
মালিকদের সুমতি কাম্য

হাজারীবাগ থেকে ট্যানারি না সরালে সংশ্লিষ্ট মালিককে প্রতিদিন ১০ হাজার টাকা জরিমানা গুনতে হবে। এর আগে হাইকোর্ট কারখানা স্থানান্তরে ব্যর্থ মালিকদের প্রতিদিন ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ধার্য করে। এ আদেশের বিরুদ্ধে ট্যানারি মালিকদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চ সোমবার জরিমানার অর্থ এক-পঞ্চমাংশ কমিয়ে দৈনিক ১০ হাজার টাকা ধার্য করেন। উপরোক্ত অর্থের অর্ধেক দাতব্য প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ লিভার ফাউন্ডেশনে জমা দেওয়ারও নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে সর্বোচ্চ আদালতের আদেশে। প্রসঙ্গত, এক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০০১ সালে ট্যানারি শিল্প হাজারীবাগ থেকে সরিয়ে নিতে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। দীর্ঘদিন ধরে ওই আদেশটি বাস্তবায়িত না হওয়ায় অন্য এক আবেদনে ২০১০ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে হাজারীবাগের ট্যানারি অন্যত্র সরিয়ে নিতে ২০০৯ সালের ২৩ জুন আবারও নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। সরকারপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে পরে ওই সময়সীমা কয়েক দফা বাড়িয়ে ২০১১ সালের ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত সম্প্রসারণ করা হয়। কিন্তু এ সময়ের মধ্যেও ট্যানারি স্থানান্তরিত না হওয়ায় আদালত অবমাননার মামলা দায়ের করে হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ। এ প্রেক্ষাপটে ২০১৪ সালের ১৫ এপ্রিল আদালত অবমাননার রুল জারি করে হাইকোর্ট। গত বছরের ২১ এপ্রিল আদালতে হাজির হয়ে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দেন শিল্প সচিব। এরপরও বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান ট্যানারি স্থানান্তরের পদক্ষেপ না নেওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে আবারও আদালত অবমাননার অভিযোগ আনা হয়।

এ আবেদনের শুনানি শেষে গত বছরের ১১ আগস্ট হাইকোর্ট দশ কারখানা মালিকের বিরুদ্ধে রুল জারি করে। পরে গত ১৩ এপ্রিল হাজারীবাগে এখনো যেসব ট্যানারি রয়েছে শিল্প সচিবকে তাদের তালিকা দাখিলের নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। আদালতের আদেশে শিল্প সচিবের পক্ষ থেকে আদালতে ১৫৫টি ট্যানারির তালিকা দাখিল করা হয়। এর মধ্যে মাত্র একটি ট্যানারি স্থানান্তর করেছে। ট্যানারি মালিকদের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, সাভারের ট্যানারি পল্লীর কাজ সম্পন্ন না হওয়ায় স্থানান্তরে বিলম্ব হচ্ছে। আমরা আশা করব কিছু প্রতিকূলতা থাকা সত্ত্বেও জনস্বার্থে ট্যানারি মালিকরা হাজারীবাগ থেকে তাদের প্রতিষ্ঠান দ্রুত সাভারে স্থানান্তরের উদ্যোগ নেবেন।   নিজেদের সুনাগরিক হিসেবে প্রমাণের স্বার্থে এ বিষয়ে তারা সুমতির পরিচয় দেবেন এমনটিই কাম্য।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow