Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৭

ঢাকা, সোমবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৭
প্রকাশ : রবিবার, ২৪ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৩ জুলাই, ২০১৬ ২৩:০৩
সন্ত্রাসের সঙ্গে ইসলামের দূরতম সম্পর্কও নেই
মাওলানা মুহম্মাদ আশরাফ আলী

ইসলামের সঙ্গে সন্ত্রাসের দূরতম সম্পর্কও নেই। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের সঙ্গে মুসলিম উম্মাহকে যুক্ত করা চরম মুনাফেকি।

জঙ্গি-সন্ত্রাসীরা গোটা মানবতার শত্রু, তারা কোনো ধর্মেরই অনুসারী নয়। আল্লাহতায়ালা সন্ত্রাসীদের অপছন্দ করেন। কোরআন বলছে, তোমরা পৃথিবীতে সন্ত্রাস ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে চেও না, আল্লাহ বিশৃঙ্খলাকারীদের পছন্দ করেন না। সূরা কাসাস : আয়াত ৭৭।

কোরআন আরও বলছে, আল্লাহতায়ালা সন্ত্রাস ও ফাসাদকারীদের কর্মকে সফল করেন না। সূরা ইউনুস : আয়াত ৮১। কোরআনের দৃষ্টিকোণ থেকে বলা যায়, আত্মঘাতী সন্ত্রাসীর পরিণামও ভয়াবহ! মহান রব বলছেন, নিজেদের হত্যা কর না। আল্লাহ তোমাদের ওপর দয়াশীল। সূরা নিসা : আয়াত ২৯।

নিজেকে মানববোমা বানিয়ে উড়িয়ে দেওয়া ইসলামের দৃষ্টিতে বৈধ নয়। নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সঙ্গে জিহাদে শরিক এক ব্যক্তি যুদ্ধে আহত হয়ে আত্মহত্যা করলে তিনি তাকে জাহান্নামি বলে ঘোষণা দেন।

সাহল ইবন সা’দ সায়েদী থেকে বর্ণিত। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম একবার মুশরিকদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে অবতীর্ণ হন। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের দলে এমন একজন সৈন্য ছিল। সে যাকে সামনে পাচ্ছিল বীরবিক্রমে তাকে খতম করছিল। কেউ একজন বলল অমুক লোকটি আজ যে লড়াই করেছে আমাদের কেউই তার মতো করতে পারেনি। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, নিশ্চিত সে জাহান্নামি। এক লোক বলল, আমি তার পেছনে পেছনে থাকব, দেখব সে কী করে। বর্ণনাকারী বলেন, লোকটি তার পেছনে পেছনে গেলেন। ওই সৈন্য থামলে তিনিও থামেন। সে দাঁড়ালে তিনিও দাঁড়ান। একপর্যায়ে সে গুরুতরভাবে আহত হয় এবং মৃত্যুর ব্যাপারে তাড়াহুড়া করে। তরবারির বাঁট মাটিতে রেখে অগ্রভাগ তার বুকে ঠেকায়। এরপর জোরে চাপ দেয় এবং আত্মহত্যা করে। লোকটি তখন রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে এসে বলল, আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি আপনি আল্লাহর রসুল। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, কী কারণে?

সে বলল, আপনি যে লোকটির কথা বলেছিলেন, সে জাহান্নামি হবে এতে মানুষ অবাক হয়েছিল। আমি লোকটিকে লক্ষ্য করছিলাম, একপর্যায়ে লোকটি মারাত্মক আহত হয়। সে মৃত্যুকে ত্বরান্বিত করে। তরবারির বাঁট মাটিতে রেখে অগ্রভাগ বুকে ঠেকিয়ে জোরে চাপ দিয়ে আত্মহত্যা করে। তখন রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, এমনও লোক আছে যে বাহ্যিক দৃষ্টিতে জান্নাতের আমল করে অথচ সে জাহান্নামি। আর কেউ আবার চোখের দেখায় জাহান্নামের কাজ করে কিন্তু সে জান্নাতে যায়। বুখারি, ২/৫০৪

লেখক : ইসলামী গবেষক।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow