Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৩১ আগস্ট, ২০১৬ ২৩:০৯
প্রতিক্রিয়া
প্রসঙ্গ : বেগম জিয়াকে লেখা ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর খোলা চিঠি
ড. তোফায়েল আহমেদ

ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী আমার অত্যন্ত   শ্রদ্ধাভাজন। ব্যক্তিগতভাবে তার স্নেহ এবং প্রশ্রয় সব সময়ই আমি পেয়ে আসছি। বিএনপির নতুন কমিটি এবং বিশেষত একটি রাজনৈতিক দলে গণতন্ত্র ও নীতিচর্চার যে বিষয়গুলো সূক্ষ্ম ও সাহসিকতার সঙ্গে তিনি তুলে ধরেছেন তা যে কোনো বিচারে প্রণিধানযোগ্য। একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে বিএনপি বা চেয়ারপারসন হিসেবে বেগম খালেদা জিয়া কীভাবে কতটুকু মেনে নেবেন তা দেখার এবং ভাবার বিষয়। বিশেষ করে দলের অভ্যন্তরে গণতন্ত্র চর্চা এবং নীতি-নির্ধারণী প্রক্রিয়ার স্বচ্ছতা বিষয়ে যে কথাগুলো তিনি খোলা চিঠিতে লিখেছেন তা শুধু বিএনপির জন্য নয়, দেশের সব রাজনৈতিক দলের ক্ষেত্রেই অনুসরণীয় হওয়া উচিত। ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বিএনপির কোনো পদ-পদবি ধারণ করেন বলে অন্তত আমার জানা নেই। তাই বিএনপির নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে তার আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু করার আছে বলেও আমার মনে হয় না। তবে তিনি বিভিন্ন সময়ে বেগম জিয়ার সঙ্গে সরাসরি বা বিএনপি সম্পর্কে অনেক কথা বলে যাচ্ছেন যা বিভিন্ন সময়ে গণমাধ্যমে এসেছে, এভাবে ইতিপূর্বে কেউ বিএনপি বা বেগম জিয়াকে বলেছেন বলে আমার জানা নেই। ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী অত্যন্ত খোলা মনের মানুষ। তিনি যা বলেন বা লিখেন তা সরাসরিই করেন। কোনো রাজনৈতিক দলে না থাকলেও প্রকৃতিগতভাবে তিনি রাজনীতিরই মানুষ। সেটি হঠাৎ করে এ সময়ের ঘটনা নয়, ১৯৬০-এর দশক থেকেই সমসাময়িক রাজনীতি ও রাজনীতির মানুষগুলোর সঙ্গে তার গভীর সম্পৃক্ততা ছিল। মুক্তিকালীন সময়ে তিনি বিদেশে উচ্চশিক্ষা অসমাপ্ত রেখে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেন, এটাই দেশের প্রতি তার নিঃস্বার্থ অঙ্গীকার উপলব্ধির জন্য যথেষ্ট। স্বাধীন দেশের উপযোগী স্বাস্থ্যনীতি, জাতীয় ওষুধনীতি ও দক্ষ স্বাস্থ্য ব্যবস্থা গড়ে তোলার পেছনে তার চেষ্টা ও কর্মের স্বীকৃতি সবাই দেবেন। দেশের স্থানীয় সরকার বিষয়ে তার সুস্পষ্ট অঙ্গীকার রয়েছে। তিনি দেশের একজন সিনিয়র এবং সক্রিয় সিটিজেন। দেশের রাজনীতি ও রাজনৈতিক দলের ওপর তার বক্তব্য অবশ্যই গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচিত হওয়া উচিত। আমার এ লেখার উদ্দেশ্য কিছুটা ভিন্ন। ড. চৌধুরী তার খোলা চিঠির একটি অংশে বিএনপির গঠনতন্ত্রে ‘দলের সদস্য নয়, অথচ বিশেষ ক্ষেত্রে পারদর্শী, যোগ্যতাসম্পন্ন ও সুদক্ষ ব্যক্তিদের কো-অপট করার বিধান আছে এবং ওই বিধানের অধীনে বিভিন্ন বিষয়ভিত্তিক অভিজ্ঞতাসম্পন্ন অদলীয় ব্যক্তিদের তিনি বিভিন্ন কমিটিতে অন্তর্ভুক্তির পরামর্শ দিয়েছেন যার মধ্যে আমার নামও উল্লেখ করেছেন। তার বিএনপিকে দেওয়া পরামর্শে তিনি ক্ষতিকর বা বিব্রতকর কোনোকিছুই করেননি। বরং তিনি ওই বিশিষ্ট ব্যক্তিদের তালিকাভুক্ত করে আমাকে সম্মানিত করেছেন বলেই আমি মনে করি। তবে রাজনৈতিক দলের অঙ্গীভূত হয়ে কাজ করার ক্ষেত্রে আমার একটি ব্যক্তিগত অবস্থান আছে। দীর্ঘদিন ধরে নিজেকে অদলীয় একটি অবস্থানে স্থির রাখার চেষ্টা করেছি। তা সব সময় যে সুখকর তাও নয়, তা সত্ত্বেও আমার অবস্থানটি আমি পরিষ্কার রেখেছি। কারণ নাগরিক সমাজের একজন হিসেবে নানা বিষয়ে মতামত দিতে গেলে প্রায়শ তাতে দলগত মেরুকরণের চেষ্টা চলে। মতামত কখনো কারও মতের পক্ষে আবার বিপক্ষে যায়, তাতে ব্যক্তির ওপর জোর করে দলের রং মাখিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়। যারা নাগরিক সমাজের হয়ে কাজ করেন, কথা বলেন এরকম অনেকেই দল করে থাকেন। তাতে আমার ব্যক্তিগত কোনো অমত/দ্বিমত নেই। কিন্তু আমি ব্যক্তিগতভাবে কোনো রাজনৈতিক দলের সদস্য হয়ে কাজ করতে অপারগ। কোনো দলের প্রতি বিরাগ থেকে নয়, এটি মূলত আমারই সীমাবদ্ধতা। আমি বা আমার মতো আরও অনেকে আমরা যে কাজগুলো করি, মূলত রাজনৈতিক দল ও সরকারি বেসরকারি নানা পর্যায়ে নীতি-নির্ধারকদের জন্যই তা করে থাকি। আর একটি লক্ষ্য থাকে জনশিক্ষা ও জনসচেতনতা সৃষ্টি। আমাদের এ কাজগুলো থেকে ইচ্ছা করলে বিএনপি কেন, যে কোনো রাজনৈতিক দলই তাদের নীতিনির্ধারণী প্রক্রিয়ায় তা গ্রহণ/বর্জন করতে পারেন। কিন্তু আমি ব্যক্তিগতভাবে কোনো রাজনৈতিক দলের কাঠামোভুক্ত হয়ে কাজ করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করব না। কারণ আমাদের রাজনৈতিক দলীয় সংস্কৃতিতে দলের অভ্যন্তরে ভিন্নমতের কোনো স্থান নেই। দলের শৃঙ্খলার সঙ্গে আমার ব্যক্তি স্বাতন্ত্র্য বা ব্যক্তি মতাদর্শকে আমি কম্প্রোমাইজ করতেও রাজি নই। তাই সচেতনভাবে দলীয় পরিমণ্ডলের বাইরে নাগরিক সমাজ (Civil Society) এর একজন হিসেবে থাকতে সব সময় স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি।

আমি ব্যক্তিগতভাবে সব দলের নেতা ও আদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। দ্বিমত বা পরামর্শ থাকলে তা লেখনী বা বক্তব্যের মাধ্যমে প্রকাশ করি। দলীয় বুদ্ধিজীবীরা ইচ্ছা করলে তা দলের নীতিনির্ধারণী প্রক্রিয়ায় স্থান দিতে পারেন। তবে বাংলাদেশের যে কোনো রাজনৈতিক দল কোনো পরামর্শের জন্য ডাকলে সাড়া না দেওয়ার কোনো কারণ নেই। ইতিপূর্বে অনেক দলের মুক্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করে নিজের বক্তব্য দেওয়ার সুযোগ গ্রহণ করেছি। বহু আগে স্থানীয় সরকার সহায়ক গ্রুপ, সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুপ্র) পরবর্তীতে প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে সুজন, ড. এ টি এম শামশুল হুদার আহ্বানে গঠিত Concern Citizen Group প্রভৃতি নাগরিক সংগঠনে ক্ষুদ্র অবদান রাখার চেষ্টা করেছি। দেশে কার্যকর গণতন্ত্র, সুশাসন প্রতিষ্ঠার সব উদ্যোগে সাধ্যমতো নিজের অবদান রাখার চেষ্টা করি। এ জন্য সরকার বা কোনো রাজনৈতিক দল থেকে কোনো বড় ধরনের প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হইনি। ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে তার সাহসী ও সময়োপযোগী বক্তব্যের জন্য অভিনন্দন। আমি মনে করি, তার এ বক্তব্য বিএনপিসহ দেশের সব রাজনৈতিক দলে গণতন্ত্রায়নের জন্য প্রয়োজন এবং প্রযোজ্য।

লেখক : গবেষক এবং দেশে স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ হিসেবে সমধিক পরিচিত

tofail101@gmail.com

এই পাতার আরো খবর
up-arrow