Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : সোমবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:২২
প্যাকেজিং কারখানায় অগ্নিকাণ্ড
দুর্ঘটনার দায় নির্ণয়ের ব্যবস্থা নিন

ঈদের আগে মৃত্যুর বিভীষিকা কেড়ে নিল ২৭ জন কর্মজীবীর প্রাণ। টঙ্গীর এক প্যাকেজিং কারখানার গ্যাস সিলিন্ডারের বিস্ফোরণ থেকে সৃষ্ট অগ্নিকাণ্ডে মুহূর্তেই তারা পুড়ে অঙ্গার হয়ে গেল। কারখানার শ্রমিকরা যখন ঈদের ছুটিতে বাড়ি যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল ঠিক সেই সময় তাদের ওপর নেমে এলো এক মহাবিভীষিকা। ২৭টি পরিবার এবং তাদের স্বজনরাই শুধু নয়, কারখানার সব শ্রমিকের ঈদের আনন্দও যেন নিষ্প্রভ হয়ে গেল। গ্যাস সিলিন্ডারের পাশে বয়লার থাকায় আগুন মুহূর্তেই ভয়াবহভাবে বিস্তৃত হয়ে পড়ে। টঙ্গীর বিসিক এলাকার ট্যাম্পাকো ফয়েলস লিমিটেড নামের কারখানার বিরুদ্ধে এমনিতেই অভিযোগ ছিল ব্যাপক। নড়বড়ে ভবনে ছিল এই কারখানা। ঝুঁকিপূর্ণ পরিবেশে রাখা হয়েছিল গ্যাস সিলিন্ডার। যার পাশেই ছিল বয়লার। শ্রমিকদের দাবি, বয়লার স্থাপনে যথাযথভাবে অনুমতি নেওয়া হয়নি এবং তা মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে গিয়েছিল। অগ্নিকাণ্ডের ফলে পুরো কারখানা ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়। ঈদের প্রাক্কালে ২৭ জন আদম সন্তানের মৃত্যু দেশের মানুষের ঈদ উৎসবেও বিষাদের কালো ছায়া বিস্তার করেছে। দুর্ঘটনায় যারা আহত হয়েছে যন্ত্রণাকাতর সেসব মানুষের কাছে এখন মৃতরাও ঈর্ষার পাত্র। হাসপাতালে কাতরাচ্ছেন তারা। অসহায়ভাবে তাদের স্বজনদেরও ঈদের আনন্দ মাটি হয়ে গেছে গ্যাস বিস্ফোরণ থেকে সৃষ্ট অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায়। অগ্নিকাণ্ডে কারখানায় যারা হতাহত হননি তারাও জীবিকার ক্ষেত্রে অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হওয়ায় হতাশায় ভুগছেন। ঈদের প্রাক্কালে সংঘটিত এ দুর্ঘটনা তাদের সব আনন্দই কেড়ে নিয়েছে। স্মর্তব্য, কারখানাটিতে ৪৫০ জনেরও বেশি শ্রমিক কর্মরত ছিলেন। শনিবার কাজ শেষে কারখানায় ঈদের ছুটি ঘোষণার কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই দুর্ঘটনায় লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে সবকিছু। আগুন নেভাতে দমকল বাহিনীর সদস্যরা সর্বাত্মক চেষ্টা চালালেও বিপর্যয় এড়ানো সম্ভব হয়নি। দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিবারকে দুই লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ এবং আহতদের চিকিৎসার খরচ বহন করার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে সরকারের পক্ষ থেকে। শ্রম প্রতিমন্ত্রীর এই আশ্বাস আহতদের চিকিৎসাসংক্রান্ত উৎকণ্ঠার অবসান ঘটাবে বলে আশা করা যায়। আমরা আশা করব সরকারের গঠিত তদন্ত কমিটি দুর্ঘটনার কারণ উদঘাটন এবং দায় নির্ণয়ের পদক্ষেপ নেবে।  হতাহতদের যথাযোগ্য ক্ষতিপূরণও কাম্য। অগ্নিকাণ্ডে হতাহতদের জন্য আমাদের আন্তরিক সহানুভূতি।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow