Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৩৬
ইতিহাস
সিরিয়ায় ইসলামী শাসন

খালিদ ৬৩৪ সালের জুনে সিরিয়ায় প্রবেশ করেছিলেন এবং দ্রুত সীমান্তবর্তী সাওয়া, আরাক, তাদমুর, সুখনা, কারইয়াতাইন ও হাওয়ারিন দুর্গ দখল করেন। এরপর তিনি দামেস্কের দিকে অগ্রসর হন। তিনি বুসরার দিকে যান। এটা ছিল গাসানীয় আরব রাজ্যের রাজধানী। তারা বাইজেন্টাইনদের মিত্রপক্ষ ছিল। তিনি অন্য মুসলিম সেনাপতিদের নির্দেশ দেন যাতে তারা বাহিনী নিয়ে বুসরায় জড়ো হয়। মারাজ আল রাহাবে খালিদ গাসানীয় সেনাবাহিনীকে পরাজিত করেন। ইতিমধ্যে সিরিয়ায় মুসলিম সেনাবাহিনীর সর্বোচ্চ কমান্ডার আবু উবাইদা ইবনুল জাররাহ আরেক সেনাপতি শুরাহবিল ইবনে হাসানাকে বুসরা আক্রমণের আদেশ দেন। শুরাহবিল তার ক্ষুদ্র সেনাদল নিয়ে বুসরা অবরোধ করেন। বাইজেন্টাইন ও তাদের আরব মিত্ররা এ বাহিনীকে কোনো বড় মুসলিম বাহিনীর অগ্রবর্তী দল ভেবে আক্রমণের সিদ্ধান্ত নেয়। তারা দুর্গ নগর থেকে বেরিয়ে এসে শুরাহবিলের বাহিনীকে আক্রমণ করে। খালিদ সেখানে পৌঁছে তাদের সঙ্গে যোগ দেন। খালিদ, শুরাহবিল ও আবু উবাইদার সম্মিলিত বাহিনী এরপর বুসরার যুদ্ধে যোগ দেয়। এর ফলে গাসানীয় রাজবংশের সমাপ্তি ঘটে।

এখানে খালিদ খলিফার নির্দেশ মোতাবেক আবু উবাইদার কাছ থেকে মুসলিম সেনাবাহিনীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন। বড় আকারের একটি বাইজেন্টাইন সেনাদল আজনাদায়নে জমায়েত হওয়া শুরু করে। খালিদের নির্দেশ অনুযায়ী মুসলিম বাহিনী আজনাদায়নে জমায়েত হয়। এখানে সংঘটিত আজনাদায়নের যুদ্ধে বাইজেন্টাইনদের পরাজয়ের ফলে সিরিয়া মুসলিমদের হাতে পতিত হয়। খালিদ বাইজেন্টাইনদের শক্ত ঘাঁটি দামেস্ক জয়ের সিদ্ধান্ত নেন। খালিদ দামেস্কে পৌঁছে শহর অবরোধ করেন। বাকি অঞ্চল থেকে শহর বিচ্ছিন্ন করে ফেলার জন্য দক্ষিণে ফিলিস্তিনের পথে, উত্তরে দামেস্ক-এমেসার পথে এবং অন্যান্য কিছু স্থানে সেনা মোতায়েন করেন।     শাকিল জাহান

এই পাতার আরো খবর
up-arrow