Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ৮ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৮ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০৬
সাপ পোষা ভালো নয়
জঙ্গি দমনে ইসলামাবাদকে আন্তরিক হতে হবে

সাপ পুষলে সাপের ফণায় জীবন দিতে হয় এটি একটি প্রবচন। প্রবচনটি পাকিস্তান নামের আত্মঘাতী রাষ্ট্রটির ক্ষেত্রেও যে প্রযোজ্য তা এখন এক বাস্তবতা।

পাকিস্তান মুসলিম বিশ্বের একমাত্র পারমাণবিক শক্তিধর দেশ। ভূরাজনৈতিক বাস্তবতায় দক্ষিণ এশীয় এ দেশটির গুরুত্ব আঞ্চলিক ও বিশ্বরাজনীতিতে বিশেষ গুরুত্বের অধিকারী। যাকে সম্বল করে দ্রুত এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ থাকলেও ভূতের মতো এ দেশটি শুধু পেছনের দিকে হাঁটছে। অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল ও গণহত্যার জন্য কুখ্যাতি অর্জনকারী পাকিস্তানের সেনাবাহিনী এবং সেনা গোয়েন্দা সংস্থার কারসাজিতে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত হতে চলেছে দেশটি। দেশটির শক্তিশালী সেনাবাহিনীকে এ যাবৎ তোষামোদ করেই চলতে হয়েছে প্রতিটি সরকারকে এবং এটি তাদের ঐতিহ্যের অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। কিন্তু কাশ্মীরের উরিতে ভারতীয় সেনাঘাঁটিতে পাকিস্তান থেকে অনুপ্রবেশকারী জঙ্গি হামলার পর সারা বিশ্বে ছি ছি রব উঠছে, এ হামলার পেছনে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর মদদ থাকার কারণে। উচ্চপর্যায়ের এক বৈঠকে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ সেনা কমান্ডারদের সাফ সাফ বলে দিয়েছেন, হয় জঙ্গিদের নিরস্ত করুন না হয় সারা বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন থাকার ঝুঁকি গ্রহণ করুন। বৈঠকে অভিযোগ করা হয়, সরকার কোনো জঙ্গিকে ধরলেই তাকে ছাড়িয়ে নিতে পাকিস্তানি সেনা গোয়েন্দা সংস্থা উঠেপড়ে লাগে। এ নিয়ে বৈঠকে পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সেনা কর্মকর্তাদের উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ও হয়। এ বৈঠকের যে বিবরণ পাকিস্তানি সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে তাতে স্পষ্ট হয়ে যায় জঙ্গি তোষণে সে দেশের সেনাবাহিনীর সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। পাকিস্তান অযুত সম্ভাবনার দেশ হলেও সেনাবাহিনীর কাছে পুরো দেশের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে। সেনা গোয়েন্দা সংস্থা জঙ্গিদের পৃষ্ঠপোষকের ভূমিকা পালন করায় দেশটির স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বও প্রশ্নের সম্মুখীন হচ্ছে। জঙ্গিদের বিরুদ্ধে বন্ধু দেশ যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন হামলা চলছে নিয়মিতভাবে। ভারতের সঙ্গে যুদ্ধ পরিস্থিতিও সৃষ্টি হয়েছে জঙ্গিদের পেছনে সেনাবাহিনীর মদদ থাকার কারণে। ইসলামাবাদে অনুষ্ঠিতব্য সার্ক শীর্ষ সম্মেলন স্থগিতও হয়েছে এ ইস্যুকে কেন্দ্র করে। নিজেদের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব এবং আঞ্চলিক শান্তির স্বার্থে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীকে জঙ্গি নামের সাপ পোষার ভ্রান্ত পথ থেকে সরে আসতে হবে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow