Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : সোমবার, ১০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৯ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:৩০
জঙ্গিবিরোধী অভিযান
জননিরাপত্তার প্রশ্নে কঠোর হতে হবে

শনিবার একই দিনে ১২ জঙ্গিকে হত্যা করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী জঙ্গিবিরোধী অভিযানে বড় ধরনের সাফল্যের নজির রেখেছে। হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার তিন মাসের মধ্যে শনিবারের চারটি অভিযানসহ সাতটি অভিযানে নিহত হয়েছে নব্য জেএমবির ২৫ জন সদস্য।

যাদের মধ্যে এ জঙ্গি দলের সামরিক প্রধান তামিম চৌধুরীসহ বেশ কয়েকজন শীর্ষ নেতাও রয়েছে। গত শনিবার র‌্যাব, সোয়াট ও পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট রাজধানী ঢাকার আশুলিয়া, গাজীপুরের পাতারটেক ও হাড়িনাল এবং টাঙ্গাইলের কাগমারায় অভিযান চালিয়ে ১১ জন সন্দেহভাজন জঙ্গিকে হত্যা করে। এ সময় জঙ্গিদের অর্থদাতা হিসেবে পরিচিত এক ব্যক্তি পাঁচতলা থেকে লাফিয়ে পালাতে গিয়ে প্রাণ হারায়। নিহতদের মধ্যে হলি আর্টিজানের জঙ্গি হামলার পরিকল্পনাকারী এবং নব্য জেএমবির ঢাকা বিভাগের অপারেশন কমান্ডার আকাশও রয়েছেন। দুর্গাপূজা ও আশুরাকে সামনে রেখে জঙ্গিরা তত্পর হয়ে উঠতে পারে বলে যখন আশঙ্কা করা হচ্ছিল ঠিক সেই মুহূর্তে চারটি পৃথক অভিযানে ১২ জন জঙ্গির ভবলীলা সাঙ্গের ঘটনাকে তাত্পর্যপূর্ণ সাফল্য হিসেবে দেখা হচ্ছে। আশা করা হচ্ছে এর ফলে জঙ্গিদের আঘাত হানার ক্ষমতা সংকুচিত হয়ে পড়বে। ইতিমধ্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আভাস দিয়েছেন শীর্ষ জঙ্গি নেতা মেজর জিয়া আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারিতে রয়েছেন এবং যে কোনো সময় তাকে ধরা হবে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মতে, জঙ্গিরা দুর্গাপূজা ও আশুরা উপলক্ষে হামলা চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছিল। তাদের কাছ থেকে বেশ কিছু অস্ত্র, বিপুল পরিমাণ টাকা এবং জঙ্গি সংশ্লিষ্ট বই পুস্তক উদ্ধার করা হয়েছে। গুলশানের হলি আর্টিজানের জঙ্গি হামলার পর দেশের জননিরাপত্তা এবং জঙ্গি দমনে বাংলাদেশের সামর্থ্য নিয়ে বহির্বিশ্বে সংশয় সৃষ্টি হয়। তিন মাসের মধ্যে সাতটি অভিযানে বেশ কয়েকজন শীর্ষ জঙ্গিসহ ২৫ জনকে হত্যার ঘটনা সংশয় নিরসনে ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা হচ্ছে। জঙ্গি তত্পরতা বাংলাদেশের সুনামের জন্য হুমকি সৃষ্টি করেছে। দেশ যখন অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে তখন জঙ্গি নামের দেশ ও জাতির চিহ্নিত শত্রুরা বাংলাদেশ সম্পর্কে অপধারণা সৃষ্টির যে পাঁয়তারা চালাচ্ছে তা এক উদ্বেগজনক ঘটনা। আমরা আশা করব জঙ্গি দমনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর মনোভাব অব্যাহত থাকবে। গত তিন মাসে এ ব্যাপারে যে সাফল্য অর্জিত হয়েছে তাতে আত্মপ্রসাদে না ভুগে জননিরাপত্তার স্বার্থে তারা তাদের চোখ ও কান খোলা রাখবে এমনটিই প্রত্যাশিত।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow