Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, শনিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : সোমবার, ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৫২
উপকূলের ব্যতিক্রমী ফসল গোলপাতার রস আর গুড়
শাইখ সিরাজ
উপকূলের ব্যতিক্রমী ফসল গোলপাতার রস আর গুড়

কিছুদিন আগে পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া উপজেলার নীলগঞ্জ ইউনিয়নে গিয়েছিলাম হৃদয়ে মাটি ও মানুষ-এর শুটিংয়ের কাজে। সেই ইউনিয়নের নবীপুর গ্রামে প্রচুর চাষ হয় গোলপাতার।

বিচ্ছিন্নভাবে এই জেলার অন্যান্য জায়গাতেও হয় গোলপাতার চাষ। এই গোলপাতা তাদের জীবন-জীবিকার বড় একটি উৎস, প্রধান অর্থকরী ফসলও বলা যেতে পারে। উপকূলীয় অঞ্চলের পরিচিত গাছ গোল, যারা দেখেনি তাদের কাছে এর পাতা মনে হতে পারে গোল। গাছটিকে নিয়ে বিশেষ কোনো ভাবনাও নেই কারোর। কিন্তু গোলপাতা গাছের কাছে এলে যেন তালগোল পাকিয়ে যায়। নারকেল গাছের মতো পাতাঅলা অন্যরকম এক গাছ। কাদামাটি থেকে যে গাছটির অনেকগুলো শাখা ও পাতা একসঙ্গেই উঠে গেছে আকাশমুখী। বেশ ঘনত্বে প্রাকৃতিক লবণপানির শক্তি নিয়ে বেড়ে ওঠে ম্যানগ্রোভ এই গাছ। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের সমুদ্র উপকূলে রয়েছে গোলগাছ। তবে আমাদের উপকূলীয় অঞ্চলের জনজীবনের সঙ্গে এই গাছ যেভাবে মিশে আছে তা সত্যি দেখার মতো। যুগ যুগ ধরে এই গাছটি শক্তি জুগিয়ে চলেছে কৃষি অর্থনীতিতে। খালের ধারে, নালার পাড়ে এই গাছ বহু আগে থেকেই জন্মাচ্ছে। তবে মানুষ যখন এর নানা উপযোগিতা টের পেল— যেমন এর রস, তা থেকে গুড় তৈরি করে আর্থিকভাবে লাভবান হওয়া- তখনই এর চাষের ব্যাপারে আরও মনোযোগী হলো। বলা যায়, নবীনগর গ্রামের ছোট পুকুরগুলোর ধারেও চাষ হচ্ছে গোলপাতা। উপকূলের এক কৃষক নির্মল চন্দ্র মৃধার সঙ্গে দেখা হলো। গোল তাদের প্রাকৃতিক সম্পদ নয় শুধু। পূর্বপুরুষ থেকেই জীবন-জীবিকার প্রধান উৎস। চারা কোথায় পেয়েছেন, জানতে চাইলে নির্মল জানান স্বাধীনতার আগেই তার পূর্বপুরুষ এই চারা লাগিয়েছেন। লবণপানির পাশে নির্মলের গোলগাছগুলো দেখলাম বেশ বয়সী। প্রায় প্রতিটি গাছেই সযত্নে গোলের রস সংগ্রহও করছেন তিনি। এটিই সৃষ্টির এক বিস্ময়। প্রকৃতির অমৃত সুধা। লবণপানি যে গাছের প্রধান শক্তি সে গাছের ভিতরে তৈরি হচ্ছে অদ্ভুত সুমিষ্ট রস। নির্মল চন্দ্র মৃধার সঙ্গে কথা হলো এই রস সংগ্রহ ও তার বহুবিধ ব্যবহার নিয়ে। শুধু রসই নয়, নির্মল ঘরের বেড়া এবং বাড়ির চালে গোলপাতা ব্যবহার করছেন বলে জানালেন। সংসারের নানা কাজেই আসলে গোলপাতার ব্যবহার হয়ে থাকে। প্রত্যেক জনবসতির জন্যই সৃষ্টিকর্তা এমন নিয়ামত দিয়ে রেখেছেন। বোঝাই যায়, এই গোলপাতার সুমিষ্ট রস এই জনপদের মানুষকে প্রাকৃতিক আশীর্বাদে পূর্ণ করেছে। অগ্রহায়ণ থেকে শুরু করে পাঁচ মাস রস পাচ্ছেন নির্মল। তার দুই একর জমিতে যে সংখ্যক গোলগাছ আছে তার প্রতিটি থেকে প্রতিদিন রস পাচ্ছেন তিনি। এই রস থেকে ১২ কেজির মতো গুড় পাচ্ছেন তিনি প্রতিদিন। আর প্রতি কেজির দাম ৮০ টাকা।   এতে রোজকার আয় দাঁড়াচ্ছে ১০০০ টাকা কম-বেশির মতো। এই চিত্রটি প্রায় সব চাষির ক্ষেত্রেই একইরকম। উপকূলীয় অঞ্চল মনে হলেই যেমন হাহাকার মনে আসে, এখানে সেই হাহাকার নেই। মনেই হয়, প্রকৃতির শক্তিতে মানুষগুলোর মানসিকতাও দারুণ উন্নত। এখানকার গোলপাতা নিয়ে একটি প্রচলিত প্রবাদ আছে। গোলের রস এতই ঘন যে বলা হয়, এই রসের আট ফোঁটায় এক ফোঁটা গুড় হয়। অন্যদিকে প্রচলিত আছে খেজুরের রসের ষোল ফোঁটায় হয় এক ফোঁটা গুড়। কারণ, খেজুরের রস গোলের রসের থেকে পাতলা। আমি নবীপুরের যে গোলগাছ দেখেছি সেগুলোর বয়স ষাটের কম না।   কিন্তু রসের পরিমাণ বা গুণে কোনো কমতি নেই। সত্যি কথা বলতে কী, নবীপুরের এমন কোনো বাড়ি খুঁজে পাওয়া যাবে না, যেখানে গোলগাছ নেই বা তারা সেখান থেকে রস সংগ্রহ করছেন না বা গুড় তৈরি করছেন না। প্রতিটি গাছের সঙ্গেই ঘট বাঁধা। টের পেলাম, নিশ্চয়ই কিছু বাড়িতে রস জাল দেওয়া শুরু হয়ে গেছে। কাকতালীয়ভাবে ঠিক জায়গাতেই এসেছি। কিছুটা ভাগ্যবানও মনে হলো নিজেকে। খোঁজ পাওয়া গেল এটিই গোলের গুড়ের প্রধান ঠিকানা। বাড়িটি জগদীশ চন্দ্র সরকারের। উত্তমের বাবা জগদীশ চন্দ্র সরকারের মুখ থেকেই শুনলাম গোলপাতার গুড়ের ইতিহাস। তিনি বলছিলেন, এই এলাকার এক সময়ের বার্মিজ অধিবাসীরা গোলপাতার রস জ্বালিয়ে মদ তৈরি করত। সেখান থেকেই স্থানীয় অধিবাসীদের হাত দিয়েই গোড়াপত্তন ঘটে রস থেকে গুড় তৈরির। জগদীশের পূর্বপুরুষরাই রস জাল দিয়ে শুরু করেছিলেন গোলপাতার গুড় উৎপাদন। দেখলাম, একটি চুলায় রস জ্বালানো চলছে। এটি দীর্ঘ সময়ের কাজ। এই কাজে বেশ দক্ষ উত্তম সরকারের স্ত্রী দীপালী সরকার। দীপালী বলছেন, প্রতিদিন গড়ে ৬০ কেজি কাঁচা রস জাল করেন তিনি যা থেকে গুড় হবে ১৫-১৬ কেজি। ঘণ্টাখানেকের মতো সময় লাগবে দীপালীর এই জালের কাজ শেষ করতে। এর ফাঁকে নবীপুর গ্রামের অন্য কৃষকের বাড়িতে যাব বলে মনস্থির করলাম। জগদীশের বাড়িতে খুঁজে পেলাম সুন্দরী গাছ। সুন্দরবনের একটা বড় অংশই এখানে ছিল হয়তো এক সময়। যে দৃশ্যটি সবচেয়ে অবাক করল আমাকে তা হলো ধানী জমির ধার ধরে শুধুই গোলপাতার চাষ হচ্ছে। গোলপাতার যে ফলটি বের হয় সেখান থেকেই আবার বীজ করে কৃষক তা চাষ করে। মজার বিষয় হচ্ছে, ফল আসার পর পাঁচ থেকে সাত দিন পা দিয়ে এক ধরনের মালিশ করতে হয় মাটির সঙ্গে লেগে থাকা ফলের ডালটিকে। বিষয়টি একদমই নতুন এবং আকর্ষণীয় এক দৃশ্য। কৃষক তার পা দিয়ে ম্যাসাজ করছেন গোলপাতার ডাল। দৃশ্যটি চোখে লেগে থাকার মতো। যেন ডালটি নুয়ে থাকে সে জন্য গাছের একটি চটি দিয়ে বেঁধে ফল কাটতে হয়। এর তিন দিন পর থেকে নুয়ে থাকা ডালটির মুখ থেকে আসা শুরু করে রস। অদ্ভুত এক প্রক্রিয়া। এভাবে সাত দিন মুখ কেটে কেটে ঘটগুলো থেকে রস সংগ্রহ করেন কৃষক। উত্তম সরকারের সঙ্গে কথা হলো গোলপাতার বাগানকে ঘিরে এক মৌসুমে তার লাভালাভের হিসাব নিয়ে। উত্তম জানালেন তার বাগানের অর্ধেক তিনি ইতিমধ্যে বিক্রি করে দিয়েছেন সবটুকু কাটা তার একার পক্ষে সম্ভব নয় বলে। প্রতিটি গাছের মূল্য ৬০ টাকা। কৃষি উপকরণের কোনো কিছু ব্যবহার না করেই এই লাভ ঘরে তুলছেন উত্তম বা তার মতো গোলচাষিরা। অন্য প্রসঙ্গে জানা গেল এখানে আমনের লবণসহিষ্ণু জাত এখনো হাতে পায়নি কৃষক। কৃষি বিভাগ সম্প্রসারণ করলেও কেন তারা এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত সে বিষয়টি প্রশ্নের জন্ম দিল। আমার সঙ্গে ছিল পটুয়াখালীর চ্যানেল আই সংবাদ প্রতিনিধি এনায়েতুর রহমান। এনায়েত জানাচ্ছেন গোলপাতার বাগানে সবচেয়ে ভয়ঙ্কর বিষয় হচ্ছে মৌমাছি। একবার সেও মৌমাছির কবলে পড়েছিল গোলবাগানে এসে। কাছাকাছি একটি মৌচাকও চোখে পড়ল। বেশ সতর্কতার সঙ্গেই কাজ করতে হয়েছে নবীপুরের গোলবাগানে। একটি লোকবিশ্বাসের কথা জানতে পারলাম। প্রথম দিন রস কাটার পর তারা বাড়িতে নেয় না। শেয়ালের বেশ উপদ্রব আছে এখানে। এলাকার গোলচাষি দীপন শিকারি ভেঙে বলল শিয়াল বশ করার প্রাচীন কারসাজি। কৃষক রস কেটে শিন্নি পাক করে দেয় শেয়ালের জন্য যাতে তারা উপদ্রব না করে। এই গোলবাগানকেন্দ্রিক জীবন বাস্তবতার ভিতর নানান উপকথা বা লোকবিশ্বাস সত্যিই আনন্দদায়ক। এগুলো যুগ যুগ ধরে এখানকার মানুষ অনুসরণ করে চলেছে। গোলপাতার কোনো কিছুই ফেলনা নয়। গোলপাতার রস থেকেই আবার মৌমাছি বানাচ্ছে মধু। এর আগে তো বলেছি গোলপাতার নানান উপকারিতার কথা। অনেকক্ষণ গোলবাগানের ভিতরে ছিলাম। কিছু আলো, কিছুটা অন্ধকারের ভিতর কাজ করছিলাম। এরপর হঠাৎ একটু ফাঁকা জায়গা পেলাম। প্রিয় পাঠক, সত্যি মনে হলো আফ্রিকান এক জঙ্গল থেকে বের হয়ে এলাম। বিমল চন্দ্র মৃধা বলছেন গোলগাছের গুড় শুধু সুস্বাদু নয়, রীতিমতো মহৌষধ। তিনি বলছেন, এটি স্যালাইনের মতোই কাজ করে। যদিও তিনি বলছেন চিকিৎসকদের গবেষণায় এমনটা পাওয়া গেছে। এমনকি ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ আছে এমন রোগীদের জন্যও গোলপাতার রস বেশ উপকারী। গোলের এই গুণাগুণ, গোলের প্রতি ভালোবাসার মধ্যে দোটানায় পড়েছেন এখানকার কৃষক। কারণ গোলগাছ লবণপানি চায়, আর লবণপানি সাধারণ কৃষির শত্রু। এই এলাকাগুলো কেবলই দেখতে শুরু করেছে ফসল বৈচিত্র্যের মুখ। এই সময়ে লবণপানির গোল গাছ টিকিয়ে রাখতে গিয়ে কৃষকের ‘শ্যাম রাখি না কুল রাখি’ অবস্থা। চাষিরা কোনোটিই হারাতে চান না। কিন্তু এর প্রতিকার কী? নীলগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নাসিরউদ্দিন মাহমুদও সবিস্তারে তুলে ধরলেন বিষয়গুলো। কৃষি মন্ত্রণালয়কে পরিকল্পিতভাবে খাল খনন করতে হবে জানালেন তিনি যদি সমতল ভূমির চাষ এবং একই সঙ্গে লবণপানির সাহায্যে গোলচাষ অব্যাহত রাখতে হয়। সেক্ষেত্রে খালের ভিতরে চাষ হবে গোল আর ওপরে সমতল ভূমিতে অন্যান্য ফসল। এর মধ্যে খবর পেলাম দীপালী সরকারের গুড়ের খোলায় গুড় প্রায় প্রস্তুত। দীপালীর বাড়ি পৌঁছে দেখলাম গুড় নাড়ানোতে সে মহাব্যস্ত। বলা যায় খেজুর গুড় তৈরির প্রক্রিয়াটাও এমনই। তবে রস জাল দেওয়ার সময় খুব দ্রুত হাত চালাতে হয় যে কাজে দীপালী বেশ পারদর্শী। নবীপুরে গোলের রস এবং গুড় তৈরির দৃশ্যপট প্রতিদিনের। নীলগঞ্জের এই গোলের গুড় উৎপাদনকারী পরিবারগুলোতে এখনো চালু আছে আবহমান বাংলার এক দারুণ রীতি। সকালে মেহমান আসলে গোলের রসের পায়েশ। এই অমৃত স্বাদ থেকে বঞ্চিত হলাম না আমরা। গোলপাতার রস-গুড়ের স্বাদ একবার যারা পেয়েছেন তারা ভুলতে পারেন না। মৌসুমের পাঁচ মাস কলাপাড়ায় হাটের একটি অংশে গুড়ের সন্ধানে ভোক্তাদের ভিড় জমে প্রতি মঙ্গলবার। হাটের এই জায়গাটিতে পর্যায়ক্রমে ওঠে গোল, খেজুর ও তালের গুড়। যে সময়টাতে গিয়েছিলাম তখন ছিল গোলের ভরা মৌসুম। একশ টাকা কেজি হিসেবে এমন বিক্রেতাও আছেন যারা আশি কেজি পর্যন্ত দিনে বিক্রি করছেন হাটে। বেচাকেনা বেশ ভালোই এই হাটে। প্রিয় পাঠক, প্রকৃতিই একেকটি জনপদের জীবন-জীবিকা নির্ধারণ করেছে। এই এলাকাটির সঙ্গে দেশের অন্য কোনো এলাকা মিলবে না। এই এলাকার অনন্য এক পরিচিতি গোলের গুড়কে কেন্দ্র করে। গোলপাতা থাইল্যান্ড, শ্রীলঙ্কা থেকে শুরু করে আফ্রিকা মহাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলে রয়েছে। কিন্তু সেসব জায়গায় এমন সুস্বাদু রস গুড়ের আয়োজন নেই। এটি আমাদের ঐতিহ্যের বড় একটি অংশ। যা সংরক্ষণের দাবি রাখে।

সঙ্গে এই এলাকার কৃষি বৈচিত্র্য সৃষ্টি স্বার্থেই পরিকল্পিত খাল খনন ও বেড়িবাঁধ তৈরির উদ্যোগ নিতে হবে। তা না হলে, প্রয়োজনীয় কৃষি ফসলের তাগিদে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মন চাইলেও গোলপাতার রস গুড়ের ঐতিহ্য ধরে রাখতে পারবে না। টিকিয়ে রাখতে পারবে না গোলবাগান। এর জন্য প্রয়োজন সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনার আলোকে এই এলাকার কৃষিভিত্তিক জীবন-জীবিকার উন্নয়ন করা। যাতে কৃষিও বাঁচে, ঐতিহ্যও টিকে থাকে।

লেখক : মিডিয়া ব্যক্তিত্ব shykhs@gmail.com

এই পাতার আরো খবর
up-arrow