Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, বুধবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০৭
আলেমরা নবী (সা.)-এর সুন্নতের ওয়ারিশ
আল্লামা মাহমূদুল হাসান

মানুষের চেহারায় যদি দাগ লাগে তখন সে তা দূর করার জন্য মেডিসিন ব্যবহার করে, ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়। কিন্তু এভাবে কতদিন সুন্দর রাখা যাবে? একদিন এই সুন্দর চেহারা কীটপতঙ্গ দংশন করে নষ্ট করে দেবে; সুন্দর এই চেহারার আকর্ষণ আর বাকি থাকবে না।

এই সুন্দর চেহারার সৌন্দর্য রক্ষা করতে হলে, কীটপতঙ্গের দংশন থেকে বাঁচাতে হলে চেহারায় সুন্নতের মেডিসিন লাগাতে হবে। সুন্নতের মেডিসিন লাগিয়ে কবরে যেতে পারলে কবর হবে শান্তির বাসস্থান। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আলেমদের তার সুন্নতের ওয়ারিস বানিয়েছেন। জান্নাতে শুধু আলেম যাবে না, গাইরে আলেমরাও যাবে। তাহলে ওয়ারিস বানানোর উদ্দেশ্য কী? উদ্দেশ্য হলো, আলেমরা সুন্নতের  দাওয়াতি কাজ নিয়ে দেশে দেশে মানুষের কাছে যাবে, সুন্নতের বাতি  জ্বালাবে। অন্ধকারে বাতি জ্বালালে যেমন মানুষ রাস্তা দেখতে পায়, ক্ষতি থেকে বাঁচতে পারে, ঠিক তদ্রূপ সুন্নতের বাতি জ্বালানোর দ্বারা কুফুর-শিরিক ও পাপাচারের অন্ধকার দুনিয়া থেকে দূর হবে এবং বান্দা লাভ করবে সরল সঠিক পথের সন্ধান। অর্থাৎ জান্নাতে যাওয়ার সহজ রাস্তা খুলে যাবে। আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন, দুনিয়ার সুখ-শান্তি, মানবতার কল্যাণ সব কিছুই ইত্তেবায়ে সুন্নতের মাঝে নিহিত।

আমাদের আকাবীরগণ দুনিয়া থেকে বিদায় নিয়ে গেছেন; আজ তাই এই কাজের দায়িত্ব আমাদের ওপর এসেছে।

আমরা যদি এ কাজ না করি তাহলে কে করবে? বিধর্মীরা এ কাজ করবে না, আমাদেরই এ কাজ করতে হবে। তবে আমাদের মাঝে সবাই করবে না। একদল মসজিদ-মাদ্রাসা ও খানকা বানিয়ে দেবে, ছাত্রদের খাদ্যের ব্যবস্থা করবে, ওস্তাদদের বেতনের ব্যবস্থা করবে। অন্যদল শুধু দাওয়াত-তাবলিগ ও এশাআতে সুন্নাতের কাজে ব্যাপৃত হবে। মানুষের ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় জীবনে সুন্নত প্রতিষ্ঠার দায়িত্ব আমাদেরই আঞ্জাম দিতে হবে। যারা শুধু দুনিয়া দুনিয়া করবে তারা তো তা পাবেই না বরং অপদস্থ ও লাঞ্ছিত হবে। হজরত সাহাবায়ে কেরামের ‘আল্লাহু আকবার’ ধ্বনিতে আকাশ-বাতাস প্রকম্পিত হতো। তাদের আজানের শব্দে শয়তান পালাত। আর এখন আমাদের আজানের দ্বারা পলায়ন তো দূরের কথা উল্টো ফিরে আসে। কারণ আজান সুন্নতের খেলাফ দেওয়া হয়।

আল্লাহপাক এমন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক দায়িত্ব আমাদের দিয়েছেন যা দুনিয়া ও আখিরাতের সফলতার চাবিকাঠি। যারা পুরো জীবনে রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সুন্নতের সহি ইত্তেবা করবে, দুনিয়া-আখিরাতের সফলতা তাদের পদচুম্বন করবে।

লেখক : খতিব, গুলশান সেন্ট্রাল জামে মসজিদ, ঢাকা

এই পাতার আরো খবর
up-arrow