Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, বুধবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২২:৫৮
জীবনের জন্য নয় সম্মানের জন্যে বাঁচি
বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম
জীবনের জন্য নয় সম্মানের জন্যে বাঁচি

আজ মহান ২১ ফেব্রুয়ারি, ভাষা আন্দোলনের সফল সমাপ্তির দিন। ’৪৮-এ শুরু হয়ে ’৫২-এর এইদিনে রক্তাক্ত ভাষা আন্দোলনের সফল সমাপ্তি ঘটে।

রক্তে ভেসে মা যেমন সন্তান জন্ম দেয়, বীর বাঙালি তেমনি ত্যাগের মাধ্যমে ভাষার দাবি প্রতিষ্ঠা করেছিল। আল্লাহর প্রতি হাজার শুকরিয়া বাংলাদেশ প্রতিদিনে গত সাত বছর লিখতে লিখতে সেই মহান দিনে আমার পর্ব পড়েছে- এও এক সৌভাগ্য। পাকিস্তানের আঘাতে ক্ষতবিক্ষত মায়ের ভাষার প্রতি আমাদের যে দারুণ দরদ ও প্রেম-ভালোবাসা ছিল, বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পর বাধামুক্ত মায়ের ভাষার প্রতি সে ধরনের আকুলতা এখন আর নেই। রাস্তাঘাট, অফিস-আদালত, স্কুল-কলেজে আজও মাতৃভাষা সে মর্যাদা পায়নি। প্রচার মাধ্যম রেডিও-টিভির কল্যাণে ভাষা নিয়ে ব্যঙ্গ, বিদ্রূপ, তাচ্ছিল্যের শেষ নেই, হূদয় জ্বলে যায়। সিলেট, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী বা অন্যান্য স্থানীয় ভাষা নিয়ে কারও কোনো আপত্তি থাকার কথা না। বরং সেটা ভাষাকে আরও সমৃদ্ধ করে। কিন্তু সত্যিকার বিশুদ্ধ বাংলাকে যখন গুরুচণ্ডালী করা হয়, রাতে রেডিওতে যার যা খুশি উচ্চারণ করে তখন ব্যথিত না হয়ে পারি না। ইদানীং সবাই চায় তার ছেলেমেয়ে ইংরেজি শিখুক, ইংরেজি জানুক- এতে কোনো দোষ দেখি না। কিন্তু কোনো বাঙালি বিশুদ্ধ বাংলা না জেনে ইংরেজ হতে গেলে মহাকবি মাইকেল মধুসূদনের চেয়ে খুব বেশি কিছু হবে না- এটা দিন-রাতের মতো সত্য। তাই মহান ২১ ফেব্রুয়ারিতে স্রষ্টার কাছে প্রার্থনা, তিনি যেন আমাদের প্রকৃত বাঙালি হতে সাহায্য করেন। আমরা যেন সত্যি সত্যি প্রকৃত বাঙালি হতে পারি।

পদ্মা সেতু দুর্নীতির ষড়ন্ত্রের দায় থেকে মুক্ত হাসান-হোসেনকে নিয়ে সারা দেশে বেশ বড় রকমের তোলপাড়। দীর্ঘদিন নৈতিক সংকটে নিমজ্জিত বাংলাদেশের গলা উঁচিয়ে বলার মতো কিছু ছিল না। বিশ্বব্যাংকের অহেতুক দুর্নীতির কাল্পনিক অভিযোগ থেকে হাসান-হোসেন মুক্ত হওয়ায় তাদের ভাবমূর্তিই শুধু উজ্জ্বল হয়নি, বাংলাদেশ, বাঙালির কৃষ্টি-সভ্যতা সূর্যের মতো জ্বলজ্বলে হয়েছে। সেদিন লিখেছিলাম, ‘হোসেনকে নিয়ে তেমন ভাবছি না, আমার যত ভাবনা হাসানকে নিয়ে। ’ হাসানকে নিয়ে ভাবনার কারণ পাশাপাশি বড় হয়েছি, নিকট আত্মীয় রক্তের সম্পর্ক, কত বড় পরিবার, দেশের জন্য আকাশছোঁয়া তাদের অবদান। সেই অবদানে কেউ কালিমা মাখলে হূদয়ে তো বাজবেই। কিন্তু তার অর্থ এই নয়, হোসেনের জন্য কোনো জায়গা নেই আমার হূদয়ে। হাসান ভাতিজা কিন্তু আবুল হোসেন ছোট ভাই। তাকে স্নেহ করি, ভালোবাসি। সদা হাসিমুখ শত ঝড়-তুফানে কোনো দিন কোনো আদব-কায়দা, আচার-ব্যবহারে ত্রুটি দেখিনি, দেখা হলে আগে বসেনি। অমন বিনয়ী হাসি-খুশি মন্ত্রী খুব কম পাওয়া যায়। তার কাজের সময় ছিল বহু মন্ত্রীর চেয়ে বেশি। সকাল ৮টায় শুরু করে কটায় শেষ করত জানি না। মন্ত্রী থাকতে দুই-চারবার দেখা হয়েছে। কোনো কাজের কথা বললে কখনো চেষ্টার ত্রুটি করেনি। বড় ভাই লতিফ সিদ্দিকীকে পিতার মতো শ্রদ্ধা করতেন। নেত্রীর প্রতি গভীর আস্থা, অগাধ শ্রদ্ধা, বিশ্বাস ও গভীর ভালোবাসা আমায় আলোড়িত মুগ্ধ করেছে।

প্রথম যখন পদ্মা সেতুর দুর্নীতির অভিযোগ আসে বিষয়টা তেমন জানা ছিল না। পরে খোঁজ-খবর নিয়ে জানলাম দুর্নীতি করতে হলে কাজ করতে হবে। পদ্মা সেতুর যে কাজ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ সে কাজ তখনো শুরুই হয়নি। প্রথমেই ধাক্কা খেয়েছিলাম। কোনো সন্তান জন্মের আগেই তার পক্ষে-বিপক্ষে বলা এ কেমন কথা? পদ্মা সেতুর ব্যাপারটাও অনেকটা তেমনি। পরম দয়ালু আল্লাহ সব জানেন, সব বুঝেন। তিনি সবকিছুর বিচার করেন। এমনকি কোনো কিছু সম্পর্কে খারাপ ভাবলে শাস্তি, ভালো ভাবলে পুরস্কার। এক্ষেত্রে বিশ্বব্যাংক তার চেয়ে একধাপ এগিয়ে। তাদের অভিযোগ পদ্মা সেতুতে নাকি দুর্নীতি করার চিন্তা-ভাবনা, পরিকল্পনা করা হয়েছিল। হায়রে কপাল! শুধু অনুমানের ওপর একটা দেশকে কত বড় শাস্তি, কত বড় বদনাম।

 

 

অন্যের কথা বলতে পারব না। আমি জীবনের জন্য নয়, সম্মানের জন্যে বাঁচি। এই পৃথিবীতে এমন অনেকে আছেন যারা ইজ্জত বিকিয়ে জীবন বাঁচায়, আবার এমনও আছে যারা জীবন দিয়ে ইজ্জত বাঁচায়। বিশ্বব্যাংকের অভিযোগে হাসান-হোসেনের যে সম্মানহানি হয়েছে তা যদি তারা সহ্য করতে না পারত, অভিযোগমুক্ত এই শুভদিন দেখার সৌভাগ্য যদি না হতো? মনোবেদনায় তাদের জীবনহানি হতো- তাহলে কে দায়ী হতো? একজন সচিব পর্যায়ে সরকারি কর্মকর্তা যদি বিনা দোষে জেলে যায় তাহলে তার এবং তার পরিবারের কী হয়- এসবের জবাব কী? আমাদের প্রবীণ নাগরিক সাবেক রাষ্ট্রপতি বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি, প্রখ্যাত চিকিত্সক বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেছেন, ‘আবুল হোসেনকে তার মন্ত্রিত্ব ফিরিয়ে দেওয়া উচিত। ’ তিনি যথার্থই বলেছেন। যেদিন কানাডার ফেডারেল কোর্টে হাসান-হোসেনকে অভিযোগ থেকে মুক্ত নিষ্কলঙ্ক, নিষ্কলুষ বলেছে, সেইদিন সেই মুহূর্তে হাসান না হয় বাইরের লোক, কিন্তু আবুল হোসেন যে মন্ত্রিত্ব হারিয়েছিল কারও পছন্দ হোক বা না হোক এটা তার প্রাপ্য। এ থেকে তাকে বঞ্চিত করা কৃতঘ্নতার শামিল। দুর্নীতির অভিযোগে অভিযুক্ত হলে তার পাশে এ কবছর কজন ছিল? মনে হয় কেউ না। আল্লাহর দয়ায় তার মাথার ওপর থেকে অভিযোগের বোঝা সরে গেছে। তাই তার গলায় মালা পরিয়ে আবার মন্ত্রিত্ব ফিরিয়ে দেওয়া উচিত। ভালো মানুষকে নষ্ট করলে আল্লাহ নারাজ হন, নষ্ট মানুষকেও আরও নষ্ট হতে সাহায্য করলেও আল্লাহ খুশি হন না। তাই অবিলম্বে স্বসম্মানে আবুল হোসেনকে তার হারানো মন্ত্রিত্ব ফিরিয়ে দেওয়া উচিত। তার পদ তাকে ফিরিয়ে দিলে তার কী হবে বলতে পারি না, তবে আমরা কিছুটা দায়মুক্ত ঋণমুক্ত হব। বেদনায় বুক চুরমার হয়ে গেছে। লেখালেখির কারণে প্রায় সবাই জানে, ছেলেবেলায় বাবা, বাবার মতো বড় ভাইয়ের হাতে লেখাপড়ার জন্য অনেক মার খেয়েছি। কিন্তু যেদিন ম্যাট্রিক পাস করেছিলাম সেদিন থেকে বাবা, বড় ভাই, অন্যান্য আত্মীয়স্বজন, ময়মুরব্বিরা আর কখনো চোখ তুলে কথা বলেননি। আমাদের পরিবারে তেমন চোখ তোলাতুলি নেই। সবসময় বন্ধুর মতো আমরা কথাবার্তা আলাপ-আলোচনা করি। পরিবারে আমরা একজন আরেকজনের অনেক কথা নিয়ে আপত্তি তুলি, তর্ক করি। কিন্তু তা অসাধারণ সৌন্দর্যের সঙ্গে করি। কিন্তু শৌর্য-বীর্য-কৃষ্টি-সভ্যতায় উপমহাদেশের একটি উল্লেখযোগ্য জেলা টাঙ্গাইল। এ জেলা মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্মৃতিধন্য। হুজুর মওলানা ভাসানী, আবু সাঈদ চৌধুরী, প্রিন্সিপাল ইব্রাহীম খাঁর টাঙ্গাইল। বাংলার দ্বিতীয় আলীগড় করটিয়া সা’দত কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ওয়াজেদ আলী খান পন্নীর দেশ, বিষাদ সিন্ধুর লেখক মীর মশাররফ হোসেন টাঙ্গাইলে যৌবন কাটিয়েছেন। জ্যোতি বসুর স্ত্রী কমলা বসু টাঙ্গাইলে লেখাপড়া করেছেন। স্বাধীন বাংলাদেশে ভারতের প্রথম রাষ্ট্রদূত শ্রী সুবিমল দত্ত বিন্দুবাসিনী স্কুলের ছাত্র। সুলেখক তারাপদ রায় টাঙ্গাইলের মানুষ। রফিক আজাদ, বুলবুল খান মাহাবুব, সাযযাদ কাদির, আবু কায়সার আরও কত কবির জন্ম। ফজলুল করিম মিঠু, লতিফ সিদ্দিকী, শাজাহান সিরাজ, ফজলুর রহমান খান ফারুক, আল-মুজাহিদী আরও কত সংগ্রামী নেতার পদচারণায় ধন্য টাঙ্গাইল। ’৪৬ সালের ভারত শাসন আইনে প্রথম নির্বাচনে টাঙ্গাইল সদর দক্ষিণের প্রথম এমপি ছিলেন মজলুম জননেতা হুজুর মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী। তারপর জননেতা শামসুল হক, যিনি আওয়ামী মুসলিম লীগের জন্ম দিয়েছিলেন। আওয়ামী লীগ কি-না পারে। যে আসনে আমাদের নেতা আবদুল মান্নান, ড. আলীম আলরাজীর মতো জ্ঞানী-গুণী মানুষ এমপি ছিলেন। সেই আসনে বর্তমান এমপি আবুল হাজীর ছেলে ছানোয়ার। সেই এমপিকে যমুনা রিসোর্টে এক মন্ত্রী অপমান অপদস্ত মারধর করেছেন- ওসব শুনে বুকটা খানখান হয়ে গেছে। এও কি সম্ভব!

কত বছর ভারতে ছিলাম। সেখানে এমপির কত মর্যাদা। শুনেছি, গণতান্ত্রিক দেশে সংসদ সদস্যের ওপর কোনো পদ নেই। একজন সরকারি কর্মচারী সারা জীবন চাকরি করে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পদে উঠলেও একজন রাস্তার যেনতেন মানুষও যখন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন সেই মুহূর্ত থেকে তিনি সর্বোচ্চ সরকারি কর্মকর্তার ওপর স্থান পান। তাহলে এটা কী? যে আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন নেতা জননেতা আবদুল মান্নান, জননেতা শামসুল হক, ড. আলীম আলরাজী। যে সংসদীয় এলাকায় এখনো আমি বাস করি, সেই সংসদ সদস্যের গায়ে হাত, সভ্যতা-ভব্যতা কোথায়?

আমি তখন ভারতে। ভাবী লায়লা সিদ্দিকী ’৮৬ সালে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে কালিহাতী থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেন। উপমহাদেশে দলীয় প্রার্থী হিসেবে বহু মহিলা বা নারী সংসদ সদস্য হয়েছেন। কিন্তু কেউ সরাসরি নির্বাচনে দলীয় ছায়া ছাড়া নির্বাচিত হননি একমাত্র লায়লা সিদ্দিকী ছাড়া। তার এক সংবর্ধনা সভায় সাবেক রাষ্ট্রপতি বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরী প্রধান অতিথি ছিলেন। লায়লা সিদ্দিকীর আগেই তিনি মঞ্চে উঠেছিলেন। যখন লায়লা সিদ্দিকী মঞ্চে উঠছিলেন অনেকেই তার সঙ্গে কথা বলছিল, হাত মিলাচ্ছিল, কুশল জিজ্ঞাসা করছিল। এতে মঞ্চে গিয়ে বসতে ৬-৭ মিনিট সময় লেগেছিল। আমার স্ত্রী সেখানেই ছিল। লায়লা সিদ্দিকী মঞ্চে আসার জন্য চৌধুরী সাহেবকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে আমার স্ত্রী বলেছিল, ‘স্যার, আপনি বসুন। উনি কথা বলে আসছেন। ’ সেদিন অত্যন্ত বিনয়ের সঙ্গে সাবেক রাষ্ট্রপতি বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরী বলেছিলেন, ‘সংসদ সদস্য এক বিরাট দুর্লভ মর্যাদার পদ। তাই উনার আগে বসতে পারি না। ’ এক সংখ্যা আগেই লিখেছিলাম, ‘ব্রিটিশ সভ্যতায় মন্ত্রীর সঙ্গে যখন তখন কথা বলা যায় না। কিন্তু এক এমপি আরেক এমপির সঙ্গে যখন তখন যেখানে সেখানে কথা বলতে পারে। ’  সংসদ সদস্যের সেই মর্যাদা আজ কোথায়?

     লেখক : রাজনীতিক

এই পাতার আরো খবর
up-arrow